× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনরকমারিপ্রবাসীদের কথাবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা ইলেকশন কর্নার
ঢাকা, ২৩ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, শনিবার

তালতলীতে যৌতুক-নির্যাতন সইতে না পেরে গৃহবধূর আত্মহত্যা

অনলাইন

তালতলী(বরগুনা) প্রতিনিধি | ১২ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, মঙ্গলবার, ৩:১৬

বরগুনার তালতলী উপজেলায় যৌতুকের দাবিতে স্বামীর নির্যাতনের জ্বালা সইতে না পেরে মারিয়া বেগম (১৯) নামে এক গৃহবধূ আত্মহত্যা করেছে। গতকাল সোমবার গভীর রাতে উপজেলার পচাঁকোড়ালিয়া গ্রামে আত্মহত্যার এ ঘটনাটি ঘটে। পরিবার ও স্থানীরা জানায়, ১ বছর আগে উপজেলার হাড়িপাড়া এলাকার রহিম মোল্লার ছেলে সজিব মোল্লার সঙ্গে পচাঁকোড়ালিয়া গ্রামের মধু মিয়ার মেয়ে মারিয়া বেগমের বিয়ে হয়। বিয়ের কিছু দিন পরেই যৌতুকের জন্য মারিয়ার সাংসারিক জীবনে অশান্তি নেমে আসে। গৃহবধূ মারিয়াকে শারীরিক ও মানসিকভাবে অত্যাচার-নির্যাতন চালিয়ে আসছিল স্বামী সজিবসহ শশুর শাশুড়ি। প্রায়ই সজিব মারিয়াকে মারধর করতো। যৌতুকের দাবিতে স্বামীর সজিব মারিয়াকে ১৫ দিন আগে মারিয়া বাপের বাড়িতে দিয়ে যায় এবং মোবাইলে বিভিন্ন সময় যৌতুকের জন্য মাসসিক চাপ সৃষ্টি করতেন বলে জানিছেন মারিয়া। গরীব বাবার পক্ষে যৌতুক দেওয়ার সামার্থ্য নেই।
মধু মিয়া ও তার স্ত্রী রাবেয়া দিনমজুরের কাজ করেন চট্রগ্রামে। তিনটি মেয়ে সন্তান মধু মিয়ার। এদিকে বাবা মধু মিয়ার ব্রেন ক্যান্সার অন্যদিকে স্বামীর যৌতুকের জ্বালা সইতে না পেরে রাতে নিজের ঘরে ওড়নায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করে মারিয়া। ঘটনার দিন গভির রাত পর্যন্ত মারিয়া তার স্বামীর সঙ্গে মোবাইলে কথা বলে এই ঘটনা ঘটিয়েছে বলে জানান মারিয়ার পরিবার।  পরে সকালে পুলিশ ওই গৃহবধূর মরদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য বরগুনা জেনারেল হাসপাতালের মর্গে পাঠায়। তালতলী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা পুলক চন্দ্র রায় জানান, ময়নাতদন্তের জন্য লাশ মর্গে পাঠানো হয়েছে। স্বামী স্ত্রীর সঙ্গে ঘটনার আগে মোবাইলে কি কথা হয়েছে তা চেক করে ও ময়নাতদন্তের রির্পোট আসার পর আইগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর