× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনরকমারিপ্রবাসীদের কথাবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা ইলেকশন কর্নার
ঢাকা, ২৩ জুলাই ২০১৯, মঙ্গলবার

সুস্থ হলেই যুদ্ধবিমান চালাতে পারবেন অভিনন্দন

ভারত

কলকাতা প্রতিনিধি | ৪ মার্চ ২০১৯, সোমবার, ৯:২৬

পাকিস্তানের হেফাজত থেকে ফিরে আসার পর থেকে ভারতীয পাইলট অভিনন্দন বর্তমানের শারিরীক পরীক্ষা চলছে। তিনি এখনও হাসপাতালে রয়েছেন। ইতমধ্যে ভারতের প্রতিরক্শা মন্ত্রী নির্মলা সীতারমন এবং ভারতীয় বায়ুসেনার প্রধান বিএস ধানোয়া হাসপাতালে গিয়ে অভিনন্দনের সঙ্গে কথা বলেচেন। অভিনন্দন তাদের জানিয়েছেন, পাক হেফাজতে তাঁকে শারিরীক নির্যাতন করা সনা হলেও ব্যাপক মানসিক নির্যাতন করা হয়েছে।

গত তিন দিনে এমআরআই, স্ক্যান ও অন্যাণ্য পরীক্ষার পর অভিনন্দনের মেরুদন্ডে চোট রয়েছে বরে জানা গেছে, বিমান থেকে ইজেক্ট করে মাটিতে নামার সময়ই এই চোট লেগেছে বলে মনে করা হচ্ছে। এছাড়াও বুকের পাজরে র হাড়ে চিড় রয়েছে। সেটা পাক জনতার মারের ফলে হয়েছে বলে মনে করা হচ্ছে। হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, আরও অন্তত ১০ দিন চিকিৎসা এবং শারীরিক পরীক্ষার জন্য হাসপাতালে ভর্তি থাকতে হবে তাঁকে। তবে সোমবার এক সাংবাদিক সম্মেলনে বায়ু সেনাপ্রধান এয়ার চিফ মার্শাল বি এস ধানোয়া বলেছেন, অসুস্থতা কাটিয়ে উঠলেই কাজে যোগ দেবেন বায়ু সেনার উইং কমান্ডার অভিনন্দন বর্তমান।
সাংবাদিকদের প্রশ্নর উত্তরে ধানোয়া বলেছেন, আপাতত হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন উইং কমান্ডার অভিনন্দন বর্তমান। তিনি কবে ফের ককপিটে বসতে পারবেন, সেই বিষয়টি নির্ভর করছে তাঁর শারীরিক সুস্থতার উপর। চিকিৎসকরা তাঁকে ‘ফিট’ ঘোষণা করলেই ফের কাজে যোগ দেবেন তিনি।

এদিকে, পাকিস্তানের মাটিতে ভারতীয় বায়ু সেনার অভিযানে কত জনের মৃত্যু হয়েছে সে সর্ম্পকিত এক প্রশ্নের উত্তরে বায়ুসেনা প্রধান বলেছেন, আমরা মৃতদেহ গুণে দেখি না। শুধু দেখা হয়, নির্দিষ্ট করে দেওয়া লক্ষ্যমাত্রায় নিখুঁত হামলা করা সম্ভব হয়েছে কি না। সেই দিক থেকে এই অভিযান সফল। আমরা নির্দিষ্ট লক্ষ্যমাত্রায় আঘাত হানতে পেরেছি। তবে কত জনের মৃত্যু হয়েছে বা কত জন আহত হয়েছে, সে বিষয়ে সরকার তথ্য দিতে পারবে। বালাকোটে মৃত্যু নিয়ে চলছে রাজনৈতিক তরজা। অনেকে সন্দেহ প্রকাশষ করেছেন। বিরোধীরা প্রমাণ চাইছেন। এই পরিস্থিতিতে হামলার পাঁচ দিন পর মুখ খুলেছেন ভারতীয় বায়ু সেনা প্রধান।

গত ২৬ ফেব্রুয়ারি পাকিস্তানের আকাশসীমায় ঢুকে বালাকোটে ব্যাপক বোমাবর্ষণ করে ফিরে আসে ভারতীয় বায়ু সেনা। সেই হামলার পর থেকেই কত জন জঙ্গির মৃত্যু হয়েছে, কতগুলি জঙ্গি ঘাঁটি ধ্বংস হয়েছে, লক্ষ্যে আঘাত হানতে পেরেছে কি না ভারতীয় বায়ুসেনা, সে সব নিয়ে নানা জল্পনা, নানা পরিসংখ্যান, সংখ্যাতত্ত্ব সামনে এসেছিল। অন্যদিকে অথ্যাধুসিক এফ১৬-র মে,াকাবিলায় কেন মিগ ব্যবহার করা হল সেই প্রশ্নেরও উত্তর দিযেছে বায়ুসেনা প্রধান। তিনি বলেছেন, অভিনন্দন বর্তমান যে যুদ্ধবিমান নিয়ে ‘ডগ ফাইট’-এ নেমেছিলেন সেটি থার্ড জেনারেশন মিগ-২১। অনেক উন্নত প্রযুক্তির।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর