× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনরকমারিপ্রবাসীদের কথাবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা ইলেকশন কর্নার
ঢাকা, ২৫ এপ্রিল ২০১৯, বৃহস্পতিবার

কংগ্রেস লোকসভা নির্বাচনের প্রার্থী তালিকা প্রকাশ করে চমক দিয়েছে

ভারত

কলকাতা প্রতিনিধি | ৮ মার্চ ২০১৯, শুক্রবার, ১২:৩২

ভারতে ১৭তম লোকসভা নির্বাচনের ঘোষনা এখনও হযনি। তবে আগামী মঙ্গলবারের মধ্যে যে কোনও দিন নির্বাচন কমিশন নির্বচনের তফসিল ঘোষনা করতে পারে বলে জানা যাচ্ছে। এই অবস্থাতেই কোনওরকম দেরী না করে কংগ্রেস প্রথম দফার প্রার্থী তালিকা প্রকাশ করে সকলকে চমকে দিয়েছে। ভারতের শাসক দল বিজেপি এখনও ঠিকই করে উঠতে পারেনি, দলের ৭৫ বছরের উপরের নেতাদের প্রার্থী করা হবে কি না।  বিজেপি শুক্রবারই দলের সংসদীয় বোর্ডের বৈঠক ডেকেছে প্রার্থী নিয়ে আলোচনার জন্য। বৃহষ্পতিবার রাতে দলের সাধারণ সম্পাদক মুকুল ওয়াসনিকের স্বাক্ষর করা একটি প্রেস বিবৃতিতে জানানো হয়েছে, প্রথম দফায় কংগ্রেস ১৫ জন প্রার্থীর নাম ঘোষনা করেছে। এই ১৫ টির চারটি গুজরাটের, বাকী ১১ টি উত্তর প্রদেশের।

চমকের আরও বাকী ছিল সেটি হল রায়বেরিলি কেন্দ্র থেকে শত অসুস্থতা সত্ত্বেও ইউপিএ-র চেয়ার পারসন সোনিয়া গান্ধীই নির্বাচনে লড়বেন। একই সঙ্গে রাহুল গান্ধী লড়াই করবেন তাঁর পুরনো কেন্দ্র আমেথি থেকেই। তবে দলের নতুন সাধারণ সম্পাদক প্রিয়াঙ্কা গান্ধী নির্বাচনে লড়াই করতে পারেন বলে যে জল্পনা শুরু হয়েছিল তাতে আপাতত ইতি পড়েছে।
কেননা, প্রথম দফার তালিকাতে নাম নেই প্রিয়াঙ্কার। তবে জিতিন প্রসাদের নাম রযেছে তালিকাতে। উত্তরপ্রদেশে অবশ্য সমাজবাদী পার্টি এবং বহুজন সমাজ পার্টি নিজেদের মধ্যে জোট করে ৩৮ টি করে আসনে লড়াই করবে বলে ঘোষনা দিয়েছে। তবে সমাজবাদী পার্টির অখিলেশ যাদব এখনও কংগ্রেসের সঙ্গে সমঝোতার আলোচনা চালিয়ে যাচ্ছেন। তবে মায়াবতী কংগ্রেসের সঙ্গে কোনও সমঝোতায় যেতে রাজি নয়। আর তাই কংগ্রেস আগেভাগে উত্তরপ্রদেশের ১১টি আসনে প্রার্থী ঘোষনা করে বার্তা দিতে চেয়েছে বলে রাজনৈতিক পর্যবেক্ষকদের অভিমত। এদিকে রাজ্যে অবশ্য কংগ্রেস এখনও জোট তৈরির জন্য নানা দলের সঙ্গে আলোচনা চালিয়ে যাচ্ছে।

পশ্চিমবঙ্গে বামপন্থীদের সঙ্গে আলোচনা চললেও দুটি আসনকে কেন্দ্র করে জটিলতা তৈরি হয়েছে। এই দুটি আসন হল, মুর্শিদাবাদ ও রায়গঞ্জ।এই দুটি আসন কংগ্রেসের শক্তি বেশি হলেও গত নির্বাচনে দুটি আসনেই জিতেছিল সিপিআইএম। তাই বামপন্থীরা এই দুটি আসন কংগ্রেসকে ছাড়তে রাজি নয়। অন্যদিকে, কঙগ্রেসের বক্কব্য, এই দুটি আসনেই কংগ্রেসের জয়ের সম্ভাবনা প্রবল।  তবে শেষ বারের জন্য বৈঠকে বসে জট খোলার চেষ্টা করবেন রাহুল গান্ধী এবং সিপিআইএমের সাধালন সম্পাদক সীতারাম ইয়েচুরি। আলোচনা ব্যথর্ধ হলে পশ্চিমবঙ্গে চর্তুমুখী প্রতিদআবনিন্দ্বতা হবারই সম্ভাবনা।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর