× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনরকমারিপ্রবাসীদের কথাবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা ইলেকশন কর্নার
ঢাকা, ২৪ মে ২০১৯, শুক্রবার

লোকসভা নির্বাচনে ভারতে ইস্যু হবে তেঁতুলিয়া করিডোর

বিশ্বজমিন

মানবজমিন ডেস্ক | ১২ মার্চ ২০১৯, মঙ্গলবার, ৩:৪১

লোকসভা নির্বাচনে বাংলাদেশের ভিতর দিয়ে ভারত থেকে ভারতে যাওয়ার জন্য তেঁতুলিয়া করিডোর একটি বড় রাজনৈতিক ইস্যু হবে। প্রস্তাবিত ৪ কিলোমিটার দীর্ঘ এই করিডোরটি গত ৪০ বছর ধরে জনদাবিতে পরিণত হয়েছে। কিন্তু কোনো রাজনৈতিক দল এ বিষয়ে পরোয়া করছে না। ভারতের প্রভাবশালী অনলাইন ইকোনমিক টাইমসের এক প্রতিবেদনে এ কথা বলা হয়েছে।
এতে বলা হয়, পশ্চিমবঙ্গের উত্তর দিনাজপুরের চোপড়া সাবডিভিশনের সঙ্গে জলপাইগুঁড়ি জেলার ময়নাগুঁড়ি পর্যন্ত সংযুক্ত করতে পারে এই করিডোর। এই করিডোরটি বাংলাদেশের তেঁতুলিয়া উপজেলার ভিতর দিয়ে গিয়েছে। যদি এই করিডোরটি বাস্তবায়ন করা যায় তাহলে তাতে উত্তর-পূর্ব ভারতগামী সব পরিবহনকে কমপক্ষে ৮৫ কিলোমিটার দূরত্ব কম অতিক্রম করতে হবে। তাতে অর্থ খরচও অনেক কমে যাবে।

রিপোর্টে বলা হয়েছে, পশ্চিমবঙ্গের পুরো উত্তরাঞ্চলে এই করিডোরটি বাস্তবায়ন একটি বড় জনদাবিতে পরিণত হয়েছে। ওই এলাকায় লোকসভার মোট আসন ৩১টি। এ জন্য এ অঞ্চলের নির্বাচনে তেঁতুলিয়া করিডোরটি গুরুত্বপূর্ণ ইস্যু হয়ে উঠেছে। কয়েকদিন আগে পানীয় জল ও পয়ঃনিষ্কাশন বিষয়ক কেন্দ্রীয় প্রতিমন্ত্রী এস এস আহলুওয়ালিয়া বলেছেন, যত তাড়াতাড়ি সম্ভব আমরা তেঁতুলিয়া খুলে দিতে চাই। এটি দীর্ঘদিনের অমীমাংসিত ইস্যু। তিনি ও তার দলীয় সহকর্মী, বিজেপির শীর্ষ নেতা রাহুল সিনহা একই কথা বলেছিলেন ২০১৪ সালের পার্লামেন্ট নির্বাচনের আগেও।

চোপড়ার একজন স্কুলশিক্ষক অশোক দে বলেছেন, এখন নির্বাচনী বাদ্য বাজছে। তাই প্রায় সব দলের রাজনৈতিক নেতারা আরো একবার নির্বাচনে ভোট বাগিয়ে নিতে এ বিষয়ে নতুন করে নাড়া দিচ্ছেন। কিন্তু বাস্তবে, কেউই এর তোয়াক্কা করেন না।
ইকোনমিক টাইমস লিখেছে, ১৯৮০ সালে সম্পাদিক ভারত-বাংলাদেশ বাণিজ্যিক চুক্তির অনুচ্ছেদ আট-এর অধীনে তেঁতুলিয়া করিডোরটি খুলে দেয়া যেতে পারে। ওই অনুচ্ছেদে বলা হয়েছে, দুই দেশের সরকারই পারস্পরিক সুবিধার জন্য তাদের পানিপথ, রেলপথ ও সড়কপথ বাণিজ্যের জন্য ব্যবহারে একমত। এ ছাড়া পণ্য এক স্থান থেকে অন্য স্থানে নিতে হলে দুই দেশই অন্য দেশের ভূখণ্ড ব্যবহার করতে পারবে। কিন্তু এখনও এই করিডোর খুলে দেয়ার বিষয়ে জোরালো কোনো ভূমিকা নেয় নি কোনো রাজনৈতিক দল।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
পাঠকের মতামত
**মন্তব্য সমূহ পাঠকের একান্ত ব্যক্তিগত। এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।
মদন বাঙ্গালী
১৩ মার্চ ২০১৯, বুধবার, ৯:০০

পারলে তো পুরো বাংলাদেশকেই খেয়ে নিতে চায়। আমাদেরকে দেয় কোন কাঁচকলাটা?

অন্যান্য খবর