× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনরকমারিপ্রবাসীদের কথাবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা ইলেকশন কর্নার
ঢাকা, ২৬ মার্চ ২০১৯, মঙ্গলবার

বঙ্গমাতা আন্তর্জাতিক ফুটবলের ড্র ও লোগো উন্মোচন

খেলা

স্পোর্টস রিপোর্টার | ১৩ মার্চ ২০১৯, বুধবার, ৮:৩৪

মঙ্গলবার রাজধানীর হোটেল সোনারগাঁওয়ে হয়ে গেল বঙ্গমাতা আন্তর্জাতিক ফুটবল টুর্নামেন্টের ড্র ও লোগো উন্মোচন। ছয় দেশের টুর্নামেন্টে এ-গ্রুপে রয়েছে মঙ্গোলিয়া, লাওস ও স্বাগতিক বাংলাদেশ এবং বি-গ্রুপে রয়েছে আরব আমিরাত, তাজিকিস্তান ও কিরগিজস্তান। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন জাতীয় সংসদ সদস্য সালমান এফ রহমান। এ সময় বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশনের (বাফুফে) সভাপতি কাজী সালাউদ্দিন, বাংলাদেশ অলিম্পিক এসোসিয়েশনের মহাসচিব সৈয়দ শাহেদ রেজা, বাফুফের সিনিয়র সহ-সভাপতি আবদুস সালাম মুর্শেদী এমপি, পৃষ্ঠপোষক কে-স্পোর্টসের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা ফাহাদ করিম সহ আরো অনেকে উপস্থিত ছিলেন।
বাংলাদেশ নারী ফুটবল দলের খেলোয়াড়দের অধিকাংশই এখন নেপালে। সাফ চ্যাম্পিয়নশিপে অংশ নেবেন কোচ গোলাম রব্বানী ছোটনের শিষ্যরা। জাতীয় দলের সঙ্গে বয়সভিত্তিক দলের সদস্যরাও গেছেন দলের অংশ হিসেবে। দল যখন একটি টুর্নামেন্টের জন্য নেপালে, তখনই আরেকটি টুর্নামেন্টের ড্র অনুষ্ঠিত হলো।  দেশের মাটিতে অনুষ্ঠিতব্য বঙ্গমাতা টুর্নামেন্টে তুলনামূলক দুর্বল গ্রুপেই পড়েছে বাংলাদেশ। ফিফা নারী র‌্যাঙ্কিং ঘেটে লাওসের অবস্থান খুঁজে পাওয়া না গেলেও মঙ্গোলিয়ার অবস্থান ১১৫ নম্বরে এবং বাংলাদেশের ১২৫।
যেখানে বি-গ্রুপে থাকা দলগুলোর মধ্যে আরব আমিরাত রয়েছে ৯২ ও তাজিকিস্তান রয়েছে ১২৪ নম্বরে। মুঠোফোনে নেপাল থেকে এই টুর্নামেন্টের গ্রুপিং নিয়ে কোচ ছোটন বলেন, ‘আমাদের গ্রুপটি ভালোই হয়েছে। নিজেদের মাটিতে এই টুর্নামেন্টে আমাদের লক্ষ্য শিরোপা। স্বাভাবিকভাবেই প্রাথমিক লক্ষ্য থাকবে গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন। সাফ চ্যাম্পিয়নশিপ থেকে ফিরে এই টুর্নামেন্ট নিয়ে পূর্ণ মনোযোগ দেবো।’

টুর্নামেন্টে এশিয়ার পৃথক পাঁচটি অঞ্চলের দেশকে খেলাতে চেয়েছিল বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশন। ১০টি দেশকে আমন্ত্রণ জানানো হয়েছিল। শেষ পর্যন্ত পাঁচ অঞ্চলের ছয়টি দেশ খেলছে এই টুর্নামেন্টে। যার মধ্যে আরব আমিরাত পশ্চিম এশিয়া, মঙ্গোলিয়া উত্তর এশিয়া, দক্ষিণ এশিয়ার লাওস, মধ্য এশিয়ার তাজিকিস্তান ও কিরগজিস্তান এবং দক্ষিণ এশিয়া অঞ্চলের দল হিসেবে খেলবে স্বাগতিক বাংলাদেশ।

বাংলাদেশের মেয়েদের ফুটবল মানেই প্রাধান্য বয়সভিত্তিক খেলোয়াড়দের। সিনিয়র খেলোয়াড় কম থাকায় বাফুফে এই আন্তর্জাতিক টুর্নামেন্টটি জাতীয় দল ভিত্তিক না করে বয়সভিত্তিক করছে। তবে বাফুফের সভাপতি কাজী সালাউদ্দিন বলেছিলেন, বাংলাদেশের মেয়েদের অভিজ্ঞতা বাড়লে সামনে টুর্নামেন্টটি জাতীয় দল নিয়ে হবে।
লোগো উন্মোচন অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি সালমান এফ রহমান বলেন,‘ টুর্নামেন্টের নামকরণটি যথার্থ। বঙ্গমাতা ফজিলাতুননেসা মুজিব মহিয়সী নারী। শেখ কামালের বন্ধু হিসেবে তাকে কাছ থেকে দেখার সৌভাগ্য হয়েছে। বাফুফের এই উদ্যোগকে স্বাগত জানাই। ’ কে-স্পোর্টসের সিইও ফাহাদ করিম বলেন,‘ বাফুফে এমন উদ্যোগে আমাদের সম্পৃক্ত করায় কৃতজ্ঞ। সর্বোচ্চ গুরুত্ব দিয়ে আমরা এই টুর্নামেন্ট আয়োজন করবো।’ আগামী ২৩শে এপ্রিল বঙ্গবন্ধু স্টেডিয়ামে এই প্রতিযোগিতা শুরু হবে। টুর্নামেন্টের খেলা সরাসরি  সম্প্রচার করবে আরটিভি ও নাগরিক টিভি।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর