× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনরকমারিপ্রবাসীদের কথাবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা ইলেকশন কর্নার
ঢাকা, ১৭ জুন ২০১৯, সোমবার

সাড়ে ৪ হাজার ফুট লম্বা তসবিহ

এক্সক্লুসিভ

স্টাফ রিপোর্টার, ব্রাহ্মণবাড়িয়া থেকে | ১৪ মার্চ ২০১৯, বৃহস্পতিবার, ৯:০৪

একশ বা হাজার দানার নয়, ব্রাহ্মণবাড়িয়ার বড়াইল ইউনিয়নের জালশুকা গ্রামের আব্দুল্লাহ্‌ আল হায়দার তসবিহ বানিয়েছেন ১ লাখ ৬৭,৫০০টি দানা দিয়ে। প্রায় সাড়ে চার হাজার ফুট লম্বা এ তসবিহ তৈরি করে গিনেজ বুক অব ওয়ার্ল্ড  রেকর্ড-এ নাম উঠানোর আবেদন করেছেন তিনি। দেড় লাখ টাকা ব্যয়ে তৈরি করা এই তসবিহটির ওজন ৬৭ কেজিরও বেশি।
হায়দারের দাবি, পুঁথি দিয়ে তৈরি তার এ তসবিহ এখন পর্যন্ত বিশ্বের সর্ববৃহৎ তসবিহ। বলেন, ইন্টারনেট ঘেটে দেখেছি পাকিস্তানে ৬০ কেজি ওজনের একটি তসবিহ রয়েছে। সে অনুপাতে আমার তসবিহটি লম্বা এবং ওজনে বিশ্বের সবচেয়ে বড় হবে। এ নিয়ে আরেকটি ইচ্ছের কথাও জানান হায়দার। যদি সুযোগ পাই তাহলে তসবিহটি আমি তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রিসেপ তাইয়েপে এরদোগানকে উপহার দিতে চাই। যেহেতু উনি সবচেয়ে বড় মসজিদ নির্মাণ করেছেন তাই আমি তসবিহটি তাঁকে দিতে চাই।
জালশুকা গ্রামের শরীফ আবাদুল্লাহ্‌ হারুন ও খোশ নাহার বেগম দম্পতির ছয় সন্তানের মধ্যে সবার ছোট হায়দার।
পড়ালেখা শেষ করে এখন বাড়িতেই অলস সময় কাটছে তার। তাই এই অলস সময়টাকে কাজে লাগানোর জন্য সিদ্ধান্ত নেন এমন কিছু করার যাতে রেকর্ড গড়া যায়। তাই মা খোশ নাহার বেগমের অনুমতি নিয়ে বিশ্বের সর্ববৃহৎ এই তসবিহ তৈরির কাজ শুরু করেন। বছরের শুরুতে ২ জানুয়ারি থেকে তসবিহ তৈরির কাজ শুরু করেন হায়দায়। মো. আরিফুল ইসলাম নামে তাঁর এক বন্ধু এ কাজে সহযোগিতা করেন। প্রায় দুই মাস কাজ করে তসবিহটি তৈরির কাজ সম্পন্ন করেন তারা। হায়দারের বাড়িতে গিয়ে দেখা যায় বিশাল আকৃতির ওই তসবিহ। বাড়ির একটি কক্ষের মেঝেতে কাপড়ের ওপর তসবিহটি রাখা হয়েছে। বিশাল আকৃতির এ তসবিহর খবর পেয়ে অনেকেই উৎসুক হয়ে এটি দেখার জন্য হায়দারের বাড়িতে আসছেন।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
পাঠকের মতামত
**মন্তব্য সমূহ পাঠকের একান্ত ব্যক্তিগত। এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।
azad
১৪ মার্চ ২০১৯, বৃহস্পতিবার, ৯:৫২

tasbih not allowed in islam .

অন্যান্য খবর