× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনরকমারিপ্রবাসীদের কথাবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা ইলেকশন কর্নার
ঢাকা, ২৫ এপ্রিল ২০১৯, বৃহস্পতিবার

পশ্চিমবঙ্গের সব বুথকে স্পর্শকাতর ঘোষণার দাবি বিজেপির

ভারত

কলকাতা প্রতিনিধি | ১৪ মার্চ ২০১৯, বৃহস্পতিবার, ১০:৩৭

পশ্চিমবঙ্গের সব বুথকে স্পর্শকাতর ঘোষণার দাবি নিয়ে নির্বাচন কমিশনের দ্বারস্থ হয়েছে বিজেপি। বুধবার দিল্লিতে কমিশনের ফুল বেঞ্চের সঙ্গে দেখা করে বিজেপির কেন্দ্রীয ও রাজ্য নেতারা দাবি করেছেন, পশ্চিমবঙ্গে প্রতিটি বুথে চাই কেন্দ্রীয় বাহিনী। আর স্থানীয় প্রশাসনিক আধিকারিকদের পরিবর্তে বাহিনী মোতায়ন নিয়ে যাবতীয় সিদ্ধান্ত নির্বাচন কমিশনের পর্যবেক্ষকদের নেবার দাবি জানিয়েছে । বিজেপির এই সব দাবির কড়া প্রতিক্রিয়া জানিয়েছেন তৃণমূল কংগ্রেস নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।  বুধবার দলীয় প্রার্থীদের সঙ্গে বৈঠকের পরে সাংবাদিকদের তিনি বলেছেন, বিজেপি বাংলার মানুষকে অপমান করছে। বিজেপির মাথা খারাপ হয়ে গিয়েছে। বিজেপি মিথ্যা কথা বলছে। মমতার অভিযোগ, পশ্চিমবঙ্গে অস্থিরতা তৈরির চেষ্টা করছে বিজেপি।

মমতা বলেন, দেশে বিজেপি সুপার ইমাজেন্সি চালাচ্ছে।  বাংলার সব বুথকে কেন অতিস্পর্শকাতর ঘোষণা করা হবে? ওরা কী ভাবছে, আমাকে নিয়ন্ত্রণ করবে? বিজেপি নেতারা নির্বাচন কমিশনের সঙ্গে দেখা করে একটি স্মারকলিপিও দিযেচেন।
বিজেপির প্রতিনিধিদলে ছিলেন বিজেপি নেতা রবিশঙ্কর প্রসাদ, কৈলাস বিজয়বর্গীয় ও ভূপেন যাদব। এছাড়া ছিলেন রাজ্যের বিজেপি নেতা মুকুল রায়ও। কমিশনের কাছে বিজেপি নেতারা পশ্চিমবঙ্গে আলাদা করে মিডিয়া পর্যবেক্ষক নিয়োগেরও দাবি জানিয়েছে। কমিশনের অফিস থেকে বেরিয়ে এসে সাংবাদিকদের রবিশঙ্কর প্রসাদ বলেছেন, আমরা কমিশনের কাছে গোটা পশ্চিমবঙ্গকে স্পর্শকাতর ঘোষণার দাবি জানিয়েছি। সঙ্গে নিরপেক্ষ নির্বাচনের স্বার্থে প্রতিটি বুথে কেন্দ্রীয় বাহিনী মোতায়েনের দাবি জানিয়েছি কমিশনের কাছে। তিনি আরও বলেছেন, পশ্চিমবঙ্গে শান্তিপূর্ণ নির্বাচনের ইতিহাস নেই।

গত পঞ্চায়েত নির্বাচনে ১০০ জনের বেশি মানুষ হিংসার বলি হয়েছেন। বিরোধী দলগুলির জয়ী প্রার্থীরা পশ্চিমবঙ্গে ঢুকতে পারছেন না। পশ্চিমবঙ্গের মাটিতে বিজেপি সভাপতি অমিত শাহের কপ্টার অবতরণের অনুমতি পাচ্ছে না। বিজেপি দাবি করেছে, রাজ্য সরকারের পাঠানো রং মাখানো রিপোর্ট নয়, কেন্দ্রীয় পর্যবেক্ষকদের রিপোর্টের ভিত্তিতে পদক্ষেপ করতে হবে কমিশনকে। এমনকী আধাসেনা মোতায়েন করতে হবে পর্যবেক্ষকদের নির্দেশে। এছাড়া রাজ্যে যে সমস্ত আধিকারিকদের বিরুদ্ধে পক্ষপাতিত্বের অভিযোগ রয়েছে তাদের নির্বাচন প্রক্রিয়ার বাইরে রাখার আরজি জানানো হয়েছে।  বিজেপির দাবির প্রতিক্রিয়ায় তৃণমূল কংগ্রেস নেতা ও কলকাতার মেয়র ফিলহাদ হাকিম বলেছেন, বাংলার মানুষকে বিজেপি অপমান করছে। রাজ্যে শান্তির বাতাবরণ রয়েছে।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর