× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনরকমারিপ্রবাসীদের কথাবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা ইলেকশন কর্নার
ঢাকা, ২৭ জুন ২০১৯, বৃহস্পতিবার

বন্দরে গৃহবধূর লাশ উদ্ধার

বাংলারজমিন

বন্দর (নারায়ণগঞ্জ) প্রতিনিধি | ১৬ মার্চ ২০১৯, শনিবার, ৭:৫১

বন্দরে লিপি আক্তার (৩০) নামের এক গৃহবধূর ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। বৃহস্পতিবার রাতে পূর্ব কেওঢালা পুকুনিয়াবাড়ী এলাকায় ভাড়া বাসা থেকে লাশ উদ্ধার করা হয়। গৃহবধূ লিপি আক্তার সোনারগাঁ উপজেলার মারুবদী গ্রামের মৃত রমিজউদ্দিনের মেয়ে। প্রথম স্বামী তালাকের পর দ্বিতীয় স্বামী পরশ আলীকে নিয়ে ভাড়া থাকতেন লিপি।  
এলাকাবাসী জানান, লিপি আক্তারের প্রথম বিয়ের পর ৭ বছরের এক ছেলে সন্তানসহ তালাক দেন মাঈনউদ্দিন। ছেলে জুবায়েরকে সঙ্গে নিয়ে পারিবারিকভাবে দ্বিতীয় বিয়ে হয় লিপির। বিয়ের পর থেকে স্বামী পরশ আলীকে নিয়ে বন্দর উপজেলার মদনপুর ইউপির পূর্ব কেওঢালা পুকুনিয়াবাড়ি আনোয়ার হোসেনের বাড়িতে এক বছর যাবৎ বসবাস করছেন। বৃহস্পতি দুপুরে পূর্বের শাশুড়ি নাতিকে দেখতে আসেন ভাড়াটিয়া বাড়িতে।
দেখতে আসাকে কেন্দ্র করে লিপি আক্তারের মায়ের সঙ্গে ঝগড়া হয়। পরে লিপি আক্তার ভাড়া বাসার কক্ষের ভেতর থেকে দরজা লাগিয়ে ঘরের আড়ার সঙ্গে রশি দিয়ে ফাঁস লাগিয়ে আত্মহত্যা করে। জানালা দিয়ে লিপি আক্তারের ঝলতে লাশ দেখে এলাকাবাসী পুলিশকে খবর দেয়। এ খবর পেয়ে বৃস্পতিবার রাতে কামতাল তদন্তকেন্দ্রের ইনচার্জ এসআই আনোয়ার হুসাইন সঙ্গীয় ফোর্স নিয়ে ঘটনাস্থলে উপস্থিত হন। এ সময় এলাকাবাসীর সহয়তায় ঘরের দরজা ভেঙে পুলিশ ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করে
 মর্গে প্রেরণ করেছে। নিহত গৃহবধূ লিপি আক্তার, মদনপুর ইউনিয়ন পরিষদ ৮নং ওয়ার্ডের সদস্য ইমন আলীর ফুফাতো বোন।
বন্দর থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) রফিকুল ইসলাম জানান, গৃহবধূ লিপি আক্তারের ঘটনায় মামলা হয়েছে। বিষয়টি আত্মহত্যা করেছেন বলে প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে। তবে, ময়নাতদন্তের রিপোর্ট না পাওয়া পর্যন্ত প্রকৃত ঘটনা উদঘাটন করা অসম্ভব।   

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর