× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনরকমারিপ্রবাসীদের কথাবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা ইলেকশন কর্নার
ঢাকা, ২০ মার্চ ২০১৯, বুধবার

গোয়াইনঘাটে কে পরবেন বিজয়ের মালা

বাংলারজমিন

মিনহাজ উদ্দিন, গোয়াইনঘাট (সিলেট) থেকে | ১৬ মার্চ ২০১৯, শনিবার, ৮:৫৩

গোয়াইনঘাট উপজেলা পরিষদ নির্বাচন ২০১৯ উপলক্ষে প্রার্থীরা সর্বশেষ প্রচার প্রচারণা, গণসংযোগ, পথসভায় ব্যস্ত সময় কাটাচ্ছেন। বিরামহীনভাবে গোয়াইনঘাট উপজেলার ৯টি ইউনিয়নের অলিগলি থেকে শুরু করে সর্বত্র প্রচার প্রচারণা, মাইকিং, গণসংযোগ চলছে। আসন্ন নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে ৭ জন প্রার্থী  থাকলে মূল আলোচনায় রয়েছেন ৩ জন হেভিওয়েট প্রার্থী। উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে কে পরবেন বিজয়ের মালা এটা এখনো পরিষ্কার না হলেও কাপ পিরিচ প্রতীকধারী গোলাপ মিয়া, ঘোড়া প্রতীকধারী বিএনপির বহিষ্কৃত সাধারণ সম্পাদক আলহাজ শাহ্‌ আলম স্বপন ও মোটরসাইকেল প্রতিকধারী যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ফারুক আহমদ, বিরামহীনভাবে প্রচারণা চালাচ্ছেন। প্রতীকধারী বিএনপির সদ্য সাবেক সাধারণ সম্পাদক আলহাজ শাহ্‌ আলম স্বপন। এছাড়াও যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মোটরসাইকেল প্রতীকধারী ফারুক আহমদ এবং আওয়ামী লীগের মনোনীত প্রার্থী  আলহাজ গোলাম কিবরিয়া হেলালও প্রচারণা চালিয়ে যাচ্ছেন। নির্বাচন কেন্দ্রিক প্রচার প্রচারণার শেষ মুহূর্তে প্রার্থী রা যেদিকেই যাচ্ছেন সেদিকেই তাদের কর্মী সমর্থকরা মোটরসাইকেলসহ স্লোগানে স্লোগানে মুখরিত করে রাখছেন আশপাশের পরিবেশ। আসন্ন উপজেলা পরিষদ নির্বাচন উপলক্ষে নির্বাচন কমিশনের বিধি নির্দেশনাও কোথাও কোথাও লঙ্ঘিত হচ্ছে।
তবে কোনো প্রার্থীর বিরুদ্ধে কারো অভিযোগ না থাকায় তা আমলে নেয়া হচ্ছে না। ৯টি ইউনিয়নের ৬৯টি ভোট কেন্দ্র, ১ লাখ ৭৯ হাজার ৩০২ জন ভোটার রয়েছেন গোয়াইনঘাটে। তার মধ্যে পুরুষ ভোটার ৯১ হাজার ৪৫৭ জন ও নারী ভোটার ৮৭ হাজার ৮৪৫ জন। নির্বাচনের শেষ মুহূর্তেই সরব এসব প্রার্থীর পক্ষে বিপক্ষে কথা বলার পাশাপাশি ভোটার জনসাধারণরা জম্পেশ আড্ডায় মাতোয়ারা করে তুলছেন চায়ের দোকান। সরজমিন ঘুরে যা পাওয়া গেছে তাতে দেখা যায়, যুক্তরাজ্য আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা কাপ পিরিচ প্রতীকধারী গোলাপ মিয়া, বিএনপির বহিষ্কৃত সাধারণ সম্পাদক আলহাজ শাহ্‌ আলম স্বপন, যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ফারুক আহমদের মোটরসাইকেল প্রতীকের কথাবার্তাই বেশি আলোচিত হচ্ছে। ভোটার এবং সাধারণ জনগণের মতে যদি এই পরিস্থিতি নির্বাচনের দিন পর্যন্ত বলবত থাকে তাহলে এই ৩ প্রার্থী  থেকেই উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান নির্বাচিত হবেন। এ ব্যাপারে কথা হলে গোয়াইনঘাটের আলীরগাঁও ইউনিয়নের ধর্মগ্রামের বাসিন্দা সালেহ রাজা বলেন, নির্বাচনের প্রচারণায় যারা আছেন, তাদের মধ্যে কাপ পিরিচ প্রতীকধারী গোলাপ মিয়া রয়েছেন প্রচারণার শীর্ষে। তাকে নিয়ে পর্দার আড়ালে আওয়ামী লীগ, বিএনপির শীর্ষ পর্যায়ের একাধিক বলয়ের তৎপরতা সাধারণ মানুষ এবং ভোটারের মধ্যে প্রভাব ফেলেছে। পূর্ব জাফলংয়ের আসামপাড়া গ্রামের ইউনুছ আলী জানান, এবারের নির্বাচন ঘোড়া বিজয় রথই বাস্তবায়ন হবে। জনগণ শাহ্‌ আলম স্বপনের স্বপক্ষেই রায় দিবেন। গোয়াইনঘাট বাজারের ডিমের আড়ৎদার বিশিষ্ট ব্যবসায়ী বদরুল ইসলাম জানান, মাইকিং আর প্রচারণার যন্ত্রণায় অতিষ্ঠ আছি। নির্বাচনে গোলাপ মিয়ার কাপ পিরিচ, শাহ্‌ আলম স্বপনের ঘোড়া এবং ফারুক আহমদের মোটরসাইকেলের আলোচনা বেশি হচ্ছে। আসন্ন নির্বাচনে আমি চেয়ারম্যান পদে এমন একজনকে ভোট দিব যার কোনো লোভ-লালসা নেই, জনগণের জন্য নিঃস্বার্থবান হয়ে জনসেবায় নিয়োজিত থাকবেন এমন মানুষেরই এই পদে আসা উচিত বলে আমি মনে করছি।

লেঙ্গুড়া গ্রামের হাবিবুর রহমান হাবিব বলেন, আসন্ন নির্বাচনে মোটরসাইকেল প্রতীকধারী ফারুক আহমদই বিপুল ভোটে বিজয়ী হবেন বলে আমি মনে করি। কেননা তার স্বপক্ষে গণজোয়ার এখনো অব্যাহত রয়েছে। গোয়াইনঘাট উপজেলা সদরের গোয়াইন গ্রামের বাসিন্দা নাম প্রকাশ্যে অনিচ্ছুক ব্যক্তি জানান, আওয়ামী লীগের প্রার্থীসহ একাধিক বিদ্রোহী প্রার্থীর মাঝে যিনি আলোচিত তিনি হলেন কাপ পিরিচ প্রতীকধারী গোলাপ মিয়া। তাকে নিয়ে আওয়ামী লীগ বিএনপির শীর্ষ পর্যায়সহ সাধারণ মানুষও তার কর্মী হয়ে নীরবে কাজ করছে। পর্দার আড়ালে এবং প্রকাশ্যে দুটি রাজনৈতিক দলের অগণিত নেতাকর্মী তাদের কর্মী সমর্থক নিয়েও গোলাপ মিয়ার কাপ পিরিচের হয়ে কাজ করে যাচ্ছেন। নাম প্রকাশ্যে অনিচ্ছুক আওয়ামী লীগের রাজনীতির সঙ্গে জড়িত একজন কর্মী বলেন, আসন্ন নির্বাচনে আওয়ামী লীগের প্রার্থী  স্বপক্ষে প্রথম সারীর নেতাকর্মীসহ অনেকে থাকলেও পর্দার আড়ালে বেশির ভাগই যুক্তরাজ্য আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা গোলাপ মিয়ার পক্ষে কাজ করে যাচ্ছেন। সূত্র মতে গোয়াইনঘাটের আসন্ন উপজেলা পরিষদ নির্বাচনী আকাশ এখনো মেঘাচ্ছন্ন রয়েছে। কে হচ্ছেন গোয়াইনঘাটের আগামীদিনের জনপ্রতিনিধি এ নিয়ে সাধারণ মানুষ, রাজনৈতিক দলসমূহের কর্মীসহ সরব আলোচনা চলছে প্রার্থীদের নিয়ে। সূত্র মতে গোলাপ মিয়া, শাহ্‌ আলম স্বপন ও ফারুক আহমদের মধ্যেই চেয়ারম্যান নির্বাচিত হবেন এমনটা ধারণা। গোয়াইনঘাট প্রেস ক্লাবের প্রতিষ্ঠাতা সাবেক সভাপতি সাংবাদিক এমএ মালিক জানান, গোয়াইনঘাটের উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে একাধিক প্রার্থী  মাঠে থাকলেও আওয়ামী লীগের দুই বিদ্রোহী এবং বিএনপির বহিষ্কৃত সাধারণ সম্পাদক আলহাজ শাহ্‌ আলম স্বপন আলোচনায় শীর্ষে আছেন। তবে আওয়ামী লীগের দলীয় নেতাকর্মীরা আন্তরিকভাবে নৌকা প্রতীকের হয়ে কাজ করলে মনোনীত প্রার্থী  আলহাজ গোলাম কিবরিয়া হেলালও শেষ মুহূর্তে চমক দেখাতে পারেন। এদিকে সিলেটের গোয়াইনঘাটে উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে কে নির্বাচিত হচ্ছেন তা এখনো পরিষ্কার না হলেও প্রার্থীদের গণসংযোগ, প্রচারণা এবং পথসভায় জনসাধারণের উপস্থিতি হাড্ডাহাড্ডি লড়াইয়ের আবাস দিচ্ছে। ফলাফল পেতে হলে ১৮ই মার্চ নির্বাচনের দিন পর্যন্ত অপেক্ষা করতে হবে।

 

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর