× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনরকমারিপ্রবাসীদের কথাবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা ইলেকশন কর্নার
ঢাকা, ১৮ জুন ২০১৯, মঙ্গলবার

নেপালে নিরাপত্তার চাদরে মহিলা ফুটবল দল

খেলা

স্পোর্টস রিপোর্টার, বিরাটনগর নেপাল থেকে | ১৬ মার্চ ২০১৯, শনিবার, ৯:০২

এমনিতে বিরাটনগরে বাড়তি নিরাপত্তার মধ্যে আছে সাফ খেলতে আসা সব নারী ফুটবল দল। প্রতিটি দলের সঙ্গে সার্বক্ষণিক ছিল নিরাপত্তা বাহিনী। নিরাপত্তা বাহিনীর প্রহরা ব্যতীত কাউকে হোটেল থেকে বের হতে দেয় না আয়োজকরা। আর গতকাল নিউজিল্যান্ডের ক্রাইস্টচার্চে মসজিদে সন্ত্রাসী  হামলার পর নিরাপত্তারক্ষীদের আরো সতর্ক করেছে সাফের আয়োজকরা।  
গতকাল বাংলাদেশ দলের অনুশীলন ছিল আর্মড পুলিশ মাঠে। সেখানেও বাড়তি নিরাপত্তা চোখে পড়েছে। আসরের নিরাপত্তা নিয়ে কথা হয় অল নেপাল ফুটবল এসোসিয়েশনের মুখপাত্র কিরণ রায়ের সঙ্গে। কিরণ রায় জানালেন এই ঘটনার আগে থেকেই অর্থাৎ আসর শুরুর আগে থেকেই নিরাপত্তা নিয়ে তাদের বিশেষ পরিকল্পনা নেয়ার কথা, ‘টুর্নামেন্ট শুরুর আগেই আমরা স্থানীয় বিরাটনগর পুলিশকে সঙ্গে নিয়ে এই আসরের নিরাপত্তা পরিকল্পনা চূড়ান্ত করি।
এখানে প্রতিটি দলকে সর্বোচ্চ নিরাপত্তা দেয়া হচ্ছে। আমি বলতে পারি এখানে নিরাপত্তা নিয়ে অন্তত কারও কোনো অভিযোগ নেই।’ সাফের সমন্বয়কের দায়িত্ব পালন করা শহিদুল ইসলাম লিমনও নিরাপত্তা ব্যবস্থা থেকে সন্তুষ্ট। তিনি বলেন, ‘এখানে শুরু থেকেই দেখছি নিরাপত্তার কড়াকড়ি। দলগুলোকে অনুমতি ছাড়া হোটেল থেকে বের হতে দেয়া হচ্ছে না। খুব বিশেষ প্রয়োজনে কেউ বের হলেও তার সঙ্গে থাকছে নিরাপত্তারক্ষী। আমাদের কাছে বাংলাদেশসহ অন্য কোনো দলও নিরাপত্তা নিয়ে কোনো অভিযোগ করেনি।’ নিরাপত্তা নিয়ে বাড়াবাড়ির কথা আগেই শোনা গেছে বাংলাদেশ দলের কর্মকর্তাদের কাছ থেকে। হোটেল থেকে অনুমতি ছাড়া তাদের কাউকে বের হতে দেয়া হচ্ছে না বলে খানিকটা বিরক্তও ছিলেন তারা। তবে, নিউজিল্যান্ডে গতকালের ঘটনার পর নিরাপত্তা নিয়ে বরং প্রশংসাই করেছেন দলের ম্যানেজার আমিরুল ইসলাম বাবু, ‘আয়োজনের অনেক কিছু নিয়ে প্রশ্ন থাকতে পারে তবে নিরাপত্তা নিয়ে আমাদের কোনো অভিযোগ নেই। কারণ এখানে শুরু থেকেই নিশ্ছিদ্র নিরাপত্তার ব্যবস্থা করা হয়েছে। খেলোয়াড় তো বটেই টিম অফিসিয়ালদেরও বিশেষ প্রয়োজন ছাড়া হোটেল থেকে একা বের হতে দিচ্ছে না।’ ক্রিকেট দল অল্পের জন্য রক্ষা পাওয়ার কথা উল্লেখ করে দলের কোচ গোলাম রব্বানী ছোটন বলেন, ‘আজ নিউজিল্যান্ডের ঘটনায় আমরা সবাই স্তম্ভিত হয়ে পড়েছি। নামাজ পড়ে আল্লাহর কাছে শুকরিয়া আদায় করেছি যে আমাদের জাতীয় ক্রিকেট দলের কেউ এই ঘটনার শিকার হননি। বাংলাদেশ দলের ক্রিকেটাররা নিরাপদে হোটেলে ফিরতে পারায় শুকরিয়া জানিয়েছেন নারী ফুটবল দলের অধিনায়ক সাবিনা খাতুনও। গতকাল বিরাটনগরের আমর্ড পুলিশ মাঠে অনুশীলন শেষে সাবিনা বলেন, সংবাদটি শুনে আতকে উঠেছিলাম। আল্লাহ সহায় ছিল বলে আমাদের ক্রিকেটারা বেঁচে গেছেন।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর