× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনরকমারিপ্রবাসীদের কথাবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা ইলেকশন কর্নার
ঢাকা, ২৩ জুলাই ২০১৯, মঙ্গলবার

টুইটারে বিজেপি নেতা মন্ত্রীদের চৌকিদার হওয়ার প্রতিযোগিতা

ভারত

কলকাতা প্রতিনিধি | ১৮ মার্চ ২০১৯, সোমবার, ৩:০৫

ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি নিজের নামের আগে চৌকিদার শব্দ লাগিয়ে অফিসিয়াল  টুইটার হ্যান্ডেলে নাম পরিবর্তন করার পর থেকে বিজেপির নেতা ও মন্ত্রীদের মধ্যে চৌকিদার হওয়ার প্রতিযোগিতা শুরু হয়েছে। অবশ্য প্রধানমন্ত্রী মোদিই দলের ছোট-বড় নেতা, সমর্থকদের নামের আগে টুইটারে ‘চৌকিদার’ শব্দটি যোগ করতে বলেছেন । ফলে নিমেষের মধ্যে হাজার হাজার বিজেপি নেতা ও কর্মীর টুইটার ছেয়ে গিয়েছে চৌকিদার-এ। অমিত শাহ থেকে পীযূষ গয়াল, শিবরাজ সিংহ চৌহান থেকে প্রকাশ জাভড়েকড়, বাংলায় মুকুল রায়রাও  নিজের নামের আগে ‘চৌকিদার’ শব্দ জুড়ে দিয়েছেন টুইটারে। প্রথমে গররাজি ছিলেন নিতিন গড়কড়ী, রাজনাথ সিংহ, অরুণ জেটলি, সুষমা স্বরাজের মতো নেতারা। তা নিয়ে কংগ্রেস সভাপতি রাহুল গান্ধী টুইট করা শুরু করতেই চাপে পড়ে যায় বিজেপি। রাহুল লেখেন, মোদিজি চেষ্টা করে যান। তবে সত্যিকে চাপা দেওয়া যাবে না।
সব ভারতীয় এ কথাই বলছে। এর সঙ্গেই ছিল তার কটাক্ষ, প্লিজ, সুষমা স্বরাজকেও চৌকিদার শব্দটা যোগ করতে বলুন। এটা খুবই খারাপ দেখাচ্ছে। বিজেপি সূত্র জানাচ্ছে, তখনই ফোন যায় সুষমার কাছে। তিনি বিদেশে বসেই নামের সঙ্গে জুড়ে দিয়ে ‘চৌকিদার’ হয়েছেন। একইভাবে নীতিন, অরুণরাও হয়ে উঠেছেন চৌকিদার। মোদি অবশ্য দেশের মানুষের উদ্দেশে লিখেছেন, মোদী ভি চৌকিদার কথাটা সকলের মধ্যে চৌকিদার সত্তাকে যেভাবে জাগিয়ে তুলেছে, তাতে আমি খুশি।..সব চৌকিদারকে শুভেচ্ছা।
বেশ কিছুদিন ধরেই চৌকিদার নিয়ে সরগরম ভারতের জাতীয় রাজনীতি। অনেকদিন আগেই প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি নিজেকে চৌকিদার আখ্যায়িত করেছিলেন। এর পাল্টা হিসেবে কংগ্রেস সভাপতি রাহুল গান্ধী  নরেন্দ্র মোদীর বিরুদ্ধে ‘চৌকিদার চোর হ্যায়’ স্লোগান তুলে রাজনীতির ময়দানে ঝড় তুলেছেন। তবে প্রধানমন্ত্রী মোদি এজন্য পিছু হটেন নি। বরং আসন্ন নির্বাচনের এই চৌকিদার শব্দটিকেই হাতিয়ার করেছেন। ‘ম্যায় ভি চৌকিদার’ শ্লোগান নিয়ে তিন মিনিটের একটি ভিডিও প্রকাশ করেছে বিজেপি। রবিবারই প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির অফিসিয়াল টুইটার হ্যান্ডেলের নাম বদলে ফেলা হয়েছে। নিজের নামের আগে চৌকিদার শব্দটি জুড়ে দিয়েছেন। এই টুইটার অ্যাকাউন্টে অবশ্য বিদেশি রাষ্ট্রনায়করা অনেক সময়ই ট্যাগ করে থাকেন। এর পরেই  টুইটারে নাম বদলের প্রতিযোগিতা শুরু হয়েছে।  বিজেপির সকলেই এখন চৌকিদার। গতবার লোকসভা নির্বাচনে বিজেপির ‘আচ্ছে দিন’ এর স্লোগানে মজেছিল আমজনতা। এবার নির্বাচনের মুখে মাইক্রো ব্লগিং সাইট ট্যুইটারে ‘ম্যায় ভি চৌকিদার’ প্রচার শুরু  করেছেন নরেন্দ্র মোদি।  মোদি কিছু ট্যুইট করা মানেই তা ট্রেন্ড হতে বেশি সময় লাগে না। এবার তিনি মাইক্রো ব্লগিং সাইটে যে নতুন ক্যাম্পেইন শুরু করেছেন তা ইতিমধ্যেই টপ ট্যুইটার টে্েরন্ড পরিণত হয়েছে। শুধু ভারতেই নয়, বিদেশেও সমানভাবে এই ট্যুইট নতুন ট্রেন্ড সেট করেছে। শনিবার সকালে সরকার ৫ বছরে কি কাজ করেছে তার ব্যাখ্যা দিয়ে একটি ভিডিও শেয়ার করে ট্যুইট করেন মোদি। এটিতে হ্যাশট্যাগ দিয়ে লিখেছেন, ম্যায় ভি চৌকিদার। সেইসঙ্গে তিনি সবাইকে ম্যায় ভি চৌকিদার ক্যাম্পেইনে অংশগ্রহণ করার আহ্বান জানিয়ে ট্যুইটটি পোস্ট করার মুর্হূতের মধ্যে সেটি ২৫ হাজার বার রিট্যুইট হয়েছে। ৭৫ হাজার লাইক  পড়েছে। সময়ের সঙ্গে সঙ্গে এই সংখ্যা দ্রুত বেড়ে চলেছে। বিজেপি সুত্রের খবর, জনগনের মধ্যে ব্যাপক সমীক্ষা চালানোর পরই এই নতুন স্লোগানটি প্রচার করা হয়েছে। বিজেপি নেতারা মনে করছেন, রাহুল গান্ধীর চৌকিদার চোর হ্যায় স্লোগানের পাল্টা হিসেবে ম্যায় ভি চৌকিদার স্লোগানটি বাজিমাত করবে। প্রধানমন্ত্রী বিভিন্ন সময়ে একটি কথাই বলেছেন, সমস্ত সৎ মানুষের আস্থা রয়েছে চৌকিদারের উপর। কিন্তু যারা ভ্রষ্ট তারা মোদির জন্য কষ্টে রয়েছেন।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর