× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনরকমারিপ্রবাসীদের কথাবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা ইলেকশন কর্নার
ঢাকা, ২৩ জুলাই ২০১৯, মঙ্গলবার

কপালে তিলক কেটে কীর্তনের আসরে কমিউনিষ্ট সেলিম

ভারত

পরিতোষ পাল,কলকাতা | ৩০ মার্চ ২০১৯, শনিবার, ১১:০৯

পশ্চিমবঙ্গের রায়গঞ্জের সিপিআইএম প্রার্থী মহম্মদ সেলিম পাঁচ ওয়াক্ত নামাজ পড়েন না। সচরাচর মসজিদে যেতেও তাকে দেখেনি কেউ। কিন্তু ভোটের বাজারে ভোটারদের মন জয় করতে আদ্যন্ত কমিউনিষ্ট সেলিমকে দেখা গেছে কপালে তিলক কেটে  কীর্তনের আসরে হাজির হতে। একটি দুটি নয়, প্রতিটি কীর্তনের আসরে তিনি হাজির থাকছেন। ব্রহ্মচারীর মত গায়ে জড়িয়ে নিচ্ছেন সাদা উত্তরীয়। মনোযোগ দিয়ে শুনলেন নেই কীর্তন।  তবে দলের পলিটব্যুরো সদস্য মহম্মদ সেলিমের এহেন ভূমিকায় অনেকেই হতভম্ব। সমর্থকদের মধ্যেও চলছে জোর আলোচনা। সেলিম অবশ্য বলেছেন, বিজেপি তো ধর্মের নামে বিভেদ সৃষ্টি করছে।
আর আমি কীর্তনের আসরে গিয়ে সবাইকে মিলনের সুতোয় গাঁথছি। তবে  বিরোধিরা রীতিমতো আক্রমণ শানিয়েছেন সেলিমকে নিয়ে। বিজেপি নেতা বিশ্বজিৎ লাহিড়ী সোশ্যাল মিডিয়ায় অভিযোগ করেছেন, ভন্ডামির চরম সীমা, ১০১টা ইঁদুর মেরে সাধুর বেশ ধারণ করা যায়, কিন্তু সাধু হওয়া কঠিন কাজ। এ সব ভোটের জন্য হাই পাওয়ার ড্রামা। আর তৃণমূল কংগ্রেস নেতারা বলছেন, কংগ্রেসের সঙ্গে সিপিএমের জোট ভেস্তে যাওয়ায় এখন ‘ভন্ড সন্ন্যাসী’ সাজা ছাড়া পালানোর পথ নেই সেলিম সাহেবের। ওদের ভোটের বাজার খুবই খারাপ। নীতির বালাই নেই। জোট, আঁতাত, আসন রফা যাই বলুন, সব ক্ষেত্রেই ‘হচপচ’ নীতি। একেক রাজ্যে একেক রকম নীতি।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর