× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনরকমারিপ্রবাসীদের কথাবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা ইলেকশন কর্নার
ঢাকা, ২৬ এপ্রিল ২০১৯, শুক্রবার

সুপার লীগেও আফতাবের একই রণকৌশল

খেলা

স্পোর্টস রিপোর্টার | ১৪ এপ্রিল ২০১৯, রবিবার, ৮:৫৮

জাতীয় দলের ৮ ক্রিকেটারকে নিয়ে চ্যাম্পিয়ান হওয়ার হুংকার দেয় আবাহনী লিমিটেড। কিন্তু লিজেন্ডস অব রূপগঞ্জের  কাছে এখন আবাহনীর শিরোপা ধরে রাখাই কঠিন। মোসাদ্দেক হোসেন সৈকতের দল লীগ পর্ব শেষ করেছে ১৬ পয়েন্ট নিয়ে তালিকার দ্বিতীয় স্থানে থেকে। অন্যদিকে নাঈম ইসলামের দল রূপগঞ্জ ২০ পয়েন্ট নিয়ে উঠে এসেছে সুপার লীগে। এবার প্রধান কোচ আফতাব আহমেদের ছোঁয়াতে যেন বদলে গেছে গেল আসরের রানার্সআপ  রূপগঞ্জ।  আসরের শুরুতে রূপগঞ্জ কোচের রণকৌশল ছিল একটি একটি করে ম্যাচ জিতে এগিয়ে যাওয়া। লীগে নবাগত  উত্তরা স্পোটিং ক্লাব থেকে শুরু করে সবচেয়ে শক্তিশালী দলগুলোর সঙ্গে তার ছিল একই কৌশল। শিরোপার কথা ভেবে নেয়নি চাপও। তাতেই এসেছে অভাবনীয় সাফল্য।
এবার সুপার লীগেও সেই একই কৌশল ধরে রাখতে চায় দলটি। কাল শেষ ছয়ের প্রথম লড়াইয়ে আফতাবের দল মুখোমুখি হবে মোহামেডান স্পোর্টিং ক্লাবের। রূপগঞ্জ কোচ আফতাব বলেন, ‘আমি আসলে প্রথম থেকেই একটা কথা বলে আসছি যে শিরোপার জন্য কখনোই আমরা সুযোগ নেইনি। আমাদের লক্ষ্যই হচ্ছে ওয়ান বাই ওয়ান ম্যাচ নিয়ে চিন্তা করা। সুতরাং আমরা কার বিপক্ষে খেলছি সেটি আমাদের দরকার নেই। আমাদের লক্ষ্যই হচ্ছে ম্যাচের দুই পয়েন্ট। আমরা এখন সুপার লীগ শুরু করতে যাবো। যেহেতু সেটি কঠিন পজিশন, সবাই খুব ভালো খেলেই এখানে উঠেছে। সুতরাং এদের সঙ্গে কোনও প্রকার হালকা হওয়ার সুযোগ নেই। আমাদের প্রথম ম্যাচ মোহামেডানের বিপক্ষে। লক্ষ্য থাকবে ঐ ম্যাচটি জিতে পরবর্তী ম্যাচের কথা চিন্ত করা।’  
কাল মোহামেডানের বিপক্ষে সুপার লীগের লড়াই মাঠে নামবে রূপগঞ্জ। টানা তিন জয়ে ঢাকার ক্লাব ক্রিকেটের ঐতিহ্যবাহী দলটি শুরু করলেও শেষ পর্যন্ত সুপার লীগে উঠতে  পোড়াতে হয়েছে কাঠখড়। ১২ পয়েন্ট নিয়ে শেষ দল হিসেবে তারা নিশ্চিত করেছে সুপার লীগে খেলা। লীগ পর্বে হেরেছে রূপগঞ্জের কাছেও। এরপরও দ্বিতীয় দেখায় দলটিকে হালকাভাবে নিতে নারাজ কোচ রূপগঞ্জ কোচ। আফতাব বলেন, ‘ম্যাচটি হালকা ভাবে নেয়ার সুযোগ নেই, এতে কোনও সন্দেহ নেই। কারণ তারা এমনই একটি দল যারা যেকোনো সময় ধস নামিয়ে দিতে পারে। এরা এমন একটি দল আপনি যদি একটুও হালকাভাবে নেন আপনাকে আর দাঁড়াতে দিবে না। এমনকি আমি শেষ ম্যাচেও বলেছি যে আবাহনীর বিপক্ষে জেতার পরে যখন উত্তরার সঙ্গে খেলেছি একই এফোর্ট দিয়ে। আমরা প্রত্যেকটি ম্যাচেই একই ধরণের এফোর্ট দিয়ে খেলবো। এমনকি আমরা যদি প্রথম তিনটি ম্যাচ জিততেও পারি এরপরেও বাকি দুই ম্যাচে প্রতিপক্ষকে আমাদের হালকাভাবে  নেয়ার কোন সুযোগ নেই।’

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর