× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনরকমারিপ্রবাসীদের কথাবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা ইলেকশন কর্নার
ঢাকা, ২৩ জুলাই ২০১৯, মঙ্গলবার

হাজারো কণ্ঠে বর্ষবরণ উপভোগ করলেন ভুটানের প্রধানমন্ত্রী

বিনোদন

স্টাফ রিপোর্টার | ১৬ এপ্রিল ২০১৯, মঙ্গলবার, ৮:২৮

‘লিভার আয়ুশ চ্যানেল আই হাজারো কণ্ঠে বর্ষবরণ ১৪২৬’ অনুষ্ঠানকে চমৎকার আয়োজন উল্লেখ করে ভুটানের প্রধানমন্ত্রী লোটে শেরিং বলেছেন, আমাদের পক্ষ থেকে সবাইকে নববর্ষের শুভেচ্ছা। আপনারা সবাই পান্তাভাত খাইয়েছেন? ভুটানের প্রধানমন্ত্রী আরো বলেন, আমি আজকে অনেক খুশি হয়েছি। আমি এখান থেকে ময়মনসিংহ যাওয়ার জন্য খুবই এক্সসাইটেড হয়ে আছি। ময়মনসিংহে আমি সাত বছর ছিলাম। এরপর ঢাকায় চার বছর এফসিপিএস করেছি। এখানে এসে মনে হচ্ছে, আমার দ্বিতীয় বাড়িতে এসেছি। রোববার পহেলা বৈশাখের অনুষ্ঠান ‘লিভার আয়ুশ চ্যানেল আই হাজারো কণ্ঠে বর্ষবরণ ১৪২৬’-এ যোগ দিতে গিয়ে এ কথাগুলো বলেন ভুটানের প্রধানমন্ত্রী লোটে শেরিং। এর আগে সকালে এ অনুষ্ঠানে সুরের ধারার চেয়ারম্যান রবীন্দ্রসংগীত শিল্পী রেজওয়ানা চৌধুরী বন্যার নেতৃত্বে হাজারো কণ্ঠে ‘তোমার কাছে এ বর মাগি, মরণ হতে যেন জাগি গানের সুরে’ গানে বরণ করা হয় বাংলা নববর্ষ ১৪২৬।
বর্ণিল এই উৎসবের আয়োজন বসেছিল রাজধানীর বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রের উন্মুক্ত চত্বরে। অনুষ্ঠান উদ্বোধনের সময় চ্যানেল আই’র পরিচালক ও বার্তাপ্রধান শাইখ সিরাজ বলেন, ফলে ও ফসলে যেন সমৃদ্ধ হয় নতুন বছরটি। অনুষ্ঠানে ভুটানের প্রধানমন্ত্রী লোটে শেরিংকে বরণ করে নেন ইমপ্রেস টেলিফিল্ম ও চ্যানেল আইয়ের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ফরিদুর রেজা সাগর, চ্যানেল আইয়ের পরিচালক ও বার্তাপ্রধান শাইখ সিরাজ এবং শিল্পী রেজওয়ানা চৌধুরী বন্যা। অনুষ্ঠানে উৎসব ও সুরের ধারার পক্ষ থেকে লোটে শেরিংকে উত্তরীয় পরিয়ে দেন রেজওয়ানা চৌধুরী বন্যা। তিনি লোটে শেরিংয়ের হাতে ‘শ্রুতি গীতবিতান’ও তুলে দেন। তার হাতে ক্রেস্ট তুলে দেন ফরিদুর রেজা সাগর এবং লোটে শেরিং উৎসবস্থলে আসার সময়কার ফ্রেমে বাঁধা একটি ছবি তুলে দেন শাইখ সিরাজ। ছবি দেখে লোটে শেরিং উচ্ছ্বসিত হয়ে উঠেন। প্রতি বছরই বর্ষবরণ উৎসবের একটা প্রতিপাদ্য বিষয় থাকে। এবারের প্রতিপাদ্য ছিল ‘লোক সুরে বাংলা গান’। বর্ষবরণ উৎসবে গান করেছেন তপন চৌধুরী, দিনাত জামান মুন্নী, মাকসুদসহ চ্যানেল আই সেরাকণ্ঠ, ক্ষুদে গানরাজ, গানের রাজা ও বাংলার গানের শিল্পীরা। ছিল নৃত্য পরিবেশনা এবং আবৃত্তি পাঠ। উৎসবে একদল তরুণীর অংশগ্রহণে ফ্যাশন শো অনুষ্ঠিত হয়। উৎসবের স্টলগুলোতে শোভা পায় বাঙালির হাজার বছরের বিভিন্ন ঐতিহ্যের উপাদান, বৈশাখের হরেক রকম পণ্য সামগ্রী। আরো ছিলো পিঠা-পুলি, মাটির তৈরি তৈজস, বেত, কাঁথা, পিতল, পাট-পাটজাত দ্রব্যের জিনিসপত্রসহ রকমারি ও ঐতিহ্যসমৃদ্ধ নানান পণ্য সামগ্রী। বর্ষবরণ উৎসব উপস্থাপনা করেছেন অপু মাহফুজ, প্রিয়ান ও সাথী। পরিচালনায় ছিলেন আমীরুল ইসলাম ও শহিদুল আলম সাচ্চু। বর্ষবরণ উৎসবটি দুপুর ২টা পর্যন্ত চ্যানেল আই সরাসরি সমপ্রচার করে। এর আগে একই স্থানে ১৩ই এপ্রিল সন্ধ্যায় অনুষ্ঠিত হয় চৈত্রসংক্রান্তি বা বর্ষবিদায় উৎসব ১৪২৫।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর