× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনরকমারিপ্রবাসীদের কথাবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা ইলেকশন কর্নার
ঢাকা, ২৬ এপ্রিল ২০১৯, শুক্রবার

দিল্লিতে জোট নিয়ে রাহুল-কেজরিওয়াল বাক্যবাণ

বিশ্বজমিন

মানবজমিন ডেস্ক | ১৬ এপ্রিল ২০১৯, মঙ্গলবার, ১১:২৭

দিল্লিতে বিজেপিকে পরাস্ত করতে চায় কংগ্রেস ও আম আদমি পার্টি (আপ)। তাই দল দুটির মধ্যে জোট গঠনের চেষ্টা হচ্ছে। এখনও চূড়ান্ত হয় নি আসন ভাগাভাগি। ফলে পরস্পরের বিরুদ্ধে বাক্যবাণ করছেন কংগ্রেস প্রধান রাহুল গান্ধী ও আপ প্রধান অরবিন্দ কেজরিওয়াল। দিল্লির ৭টি আসনের মধ্যে আপ’কে চারটি আসন দিতে চেয়েছেন রাহুল গান্ধী। কিন্তু আপ চায় ৫:২ অনুপাতে আসন ভাগাভাগি। এ নিয়ে দুই নেতার মধ্যে কড়া বাক্যবাণ চলছে। এ খবর দিয়েছে অনলাইন টাইমস অব ইন্ডিয়া।


রাহুল গান্ধী বলেছেন, কংগ্রেস ও আপের মধ্যে দিল্লিতে একটি জোট হওয়ার অর্থ হলো বিজেপি পরাজিত হবে। এটা নিশ্চিত করতে আপ’কে দিল্লিতে ৪টি আসন দিতে আগ্রহী কংগ্রেস। কিন্তু কেজরিওয়াল আরেকবার ইউ-টার্ন নিয়েছেন। তবে আমাদের দরজা এখনও উন্মুক্ত। সময় দ্রুত শেষ হয়ে যাচ্ছে।

রাহুল গান্ধীর এ বক্তব্যের জবাবে অরবিন্দ কেজরিওয়াল বলেছেন, কোন ইউ-টার্ন? এখনও তো আলোচনা চলছে। আপনার টুইটই বলে দেয় যে, আপনি জোট গঠনের বিষয়ে সিরিয়াস নন। আমি বেদনাহত এ জন্য যে, আপনি বাগাড়ম্বরতায় জড়িয়ে পড়ছেন। মোদি-অমিত শাহ এই দু’জনের বিপদ থেকে দেশকে রক্ষা করা এখন খুবই গুরুত্বপূর্ণ। এটা দুর্ভাগ্যজনক যে, আপনি উত্তর প্রদেশ ও অন্যান্য রাজ্যে বিজেপি বিরোধী ভোটারদের বিভক্ত করে সহায়তা করছেন মোদিজিকে।

দিল্লিতে লোকসভার সাতটি আসন আছে। বর্তমানে এ আসনগুলো বিজেপির দখলে। সেখানে ১৬ই এপ্রিল মনোনয়নপত্র জমা নেয়া শুরু হওয়ার কথা। চলবে ২৩ শে এপ্রিল পর্যন্ত। ফলে হাতে সময় খুব কম। তাই রাহুল গান্ধী জোট গঠনের সময় দ্রুত শেষ হয়ে যাচ্ছে বলে উল্লেখ করেছেন। রোববার অরবিন্দ কেজরিওয়াল একটি বিবৃতিতে বলেছেন, দিল্লির আসন্ন নির্বাচনে বিজেপিকে সব আসনে বিজয় থামাতে তিনি যেকোনো কিছু করতে চান। এমন বিবৃতির পর কংগ্রেস রাজ্যসভার এমপি সঞ্জয় সিংকে বিশেষ বার্তা পাঠায়। সঞ্জয় সিং আপ-এর পক্ষে সমঝোতাকারীর দায়িত্ব পালন করছেন। এ ছাড়া বার্তা পাঠানো হয় উপ মুখ্যমন্ত্রী মানিশ সিসোদিয়ার কাছে। এর মাধ্যমে নতুন করে জোট গঠনের জন্য আমন্ত্রণ জানায় কংগ্রেস। কিন্তু এ বিষয়ে দুই নেতার কেউই কোনো সাড়া দেন নি।

কংগ্রেসের একজন সিনিয়র নেতা বলেছেন, ২০১৭ সালের মিউনিসিপ্যাল নির্বাচনে আমরা যেভাবে ভোট ও আসন বন্টন করেছিলাম, ৪-৩ আসন ভাগাভাগি করেছিলাম, সে বিষয়ে বিস্তারিত জানিয়ে তাদেরকে বার্তা পাঠিয়েছি। কিন্তু আপ-এর পক্ষ থেকে কোনোই সাড়া পাই নি। আমরা তাদেরকে বলেছি, দিল্লির বাইরে সুস্পষ্টভাবে আপ-এর কোনোই ভিত্তি নেই। গত বিধানসভা নির্বাচনে গোয়াতে তারা শতকরা মাত্র চার ভাগ ভোট পেয়েছিল। হরিয়ানায় মিউনিসিপ্যাল নির্বাচনে ভোট পেয়েছিল শতকরা মাত্র ৫ ভাগ। তাই জোট হবে গত নির্বাচনের ফলের ওপর ভিত্তি করে।
হরিয়ানায় ১০টি আসন নিয়ে জোট গঠনের চেষ্টা করছে আপ। তবে তারা কংগ্রেসের সঙ্গে এই শর্তে যোগাযোগ করেছে যে, তাদেরকে দিল্লিতে ৫টি আসন দিতে হবে।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর