× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনরকমারিপ্রবাসীদের কথাবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা ইলেকশন কর্নার
ঢাকা, ২৫ মে ২০১৯, শনিবার

টিআইবির প্রতিবেদন নিম্নমানের: ওয়াসা

অনলাইন

স্টাফ রিপোর্টার | ২০ এপ্রিল ২০১৯, শনিবার, ৩:২০

'ঢাকা ওয়াসায় অনিয়ম রয়েছে, পানি সুপেয় নয় এবং সক্ষমতার ঘাটতি রয়েছে।' ওয়াসা সম্পর্কে টিআইবির সম্প্রতি এই প্রতিবেদনকে নিম্নমানের ও স্ট্যান্ডবাজি বলে উল্লেখ করেছেন ঢাকা ওয়াসার ব্যবস্থাপনা পরিচালক প্রকৌশলী তাকসিম এ খান। শনিবার দুপুরে ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটিতে এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এসব কথা বলেন।

তিনি বলেন, এটা কোন গবেষণার প্রতিবেদনের মধ্যে পড়ে না, এটা একটা রিপোর্টের মতো হয়েছে। এটা নিম্নমানের ও ঢালাও রিপোর্ট। রিপোর্টে টিআইবি নিজেদের পার্সপেক্টিভ উল্লেখ করেছে, এটা গবেষণার মানদ-ের মধ্যে পড়ে না। রিপোর্টে ওয়াসার বিরুদ্ধে আনা বিভিন্ন অনিয়মের অভিযোগের কোনো ভিত্তি নেই।

তিনি বলেন, টিআইবি তাদের প্রতিবেদনে যা বলেছে তারা কোথা থেকে ডাটা সংগ্রহ করেছে আমাদের জানা নেই। কিন্তু আমাদের পানি শতভাগ সুপেয়। তবুও আমরা সাধারণ মানুষকে ফুটিয়ে খেতে বলি। কারণ পুরাতন পাইপ লাইন এখনো সম্পূর্ণ সংস্করণ করা যায়নি। তবে আমরা সব লাইনগুলো শীঘ্রই সংস্কার করবো।
এর আগে গত বুধবার টিআইবির পক্ষ থেকে ‘ঢাকা ওয়াসা: সুশাসনের চ্যালেঞ্জ ও উত্তরণের উপায়’ শীর্ষক এক গবেষণা প্রতিবেদন প্রকাশ করা হয়।

প্রতিবেদনে ওয়াসার অনিয়ম ও দুর্নীতি সম্পর্কে বলা হয়, সেবাগ্রহীতাদের ৮৬.২ ভাগ ওয়াসার কর্মচারী এবং ১৫.৮ ভাগ দালালকে ঘুষ দিয়ে থাকেন। এরমধ্যে পানির সংযোগ গ্রহণে ২০০ থেকে ৩০০০০ টাকা, পয়লাইনের প্রতিবন্ধকতা অপসারণে ৩০০ থেকে ৪৫০০ টাকা, গাড়িতে করে জরুরি পানি সরবরাহ করার ক্ষেত্রে ২০০ থেকে ১৫০০ টাকা, মিটার ক্রয়/পরিবর্তন করতে ১০০০ থেকে ১৫০০০ টাকা মিটার রিডিং ও বিল সংক্রান্ত বিষয়ে ৫০ থেকে ৩০০০ টাকা এবং গভীর নলকূপ স্থাপনে এক লাখ থেকে দুই লাখ টাকা পর্যন্ত ঘুষ গ্রহণ করা হয়।

প্রতিবেদনে আরও বলা হয়, ঢাকা ওয়াসার পানির নিম্নমানের কারণে ৯৩ শতাংশ গ্রাহক বিভিন্ন পদ্ধতিতে পানি পানের উপযোগী করে। এর মধ্যে ৯১ শতাংশ গ্রাহকই পানি ফুটিয়ে বা সেদ্ধ করে পান করে। গৃহস্থালি পর্যায়ে পানি ফুটিয়ে পানের উপযোগী করতে প্রতিবছর আনুমানিক ৩৩২ কোটি টাকার গ্যাসের অপচয় হয়।

পানি ও পয়নিষ্কাশন সেবার নিম্নমান এবং সেবা সম্পর্কে প্রায় এক-তৃতীয়াংশের বেশি সেবাগ্রহীতা অসন্তুষ্ট। এছাড়া গ্রাহক সেবায় এলাকাভেদে সেবার মানের তারতম্য ও ন্যায্যতার ঘাটতি-চাহিদা অনুযায়ী পানি না পাওয়ার হার সবচেয়ে বেশি বস্তিবাসীর ক্ষেত্রে।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
পাঠকের মতামত
**মন্তব্য সমূহ পাঠকের একান্ত ব্যক্তিগত। এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।
Kazi
২০ এপ্রিল ২০১৯, শনিবার, ১১:১১

ওয়াসার সাপ্লাই করা পানি দুর্গন্ধ যুক্ত ও পানের অযোগ্য। এটাই জনগণ বার বার প্রতিবাদ করছে ও প্রতিকার চাইছে। চাপা বাজি করে লাভ হবে না।

Quazi Nasrullah
২০ এপ্রিল ২০১৯, শনিবার, ৩:৩১

WASA water is 100% upto standard. (?) and TIB report is below standard (!). then what about WASA actual scenario?

অন্যান্য খবর