× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনরকমারিপ্রবাসীদের কথাবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা ইলেকশন কর্নার
ঢাকা, ১৮ জুন ২০১৯, মঙ্গলবার
লক্ষ্মীপুরে তরুনীকে পুড়িয়ে হত্যা:

৪ আসামী রিমান্ডে

অনলাইন

লক্ষ্মীপুর প্রতিনিধি | ২৪ এপ্রিল ২০১৯, বুধবার, ৩:৪৯

স্ত্রীর স্বীকৃতি চাইতে গিয়ে লক্ষ্মীপুরে কমলনগরে কেরোসিন ঢেলে তরুনী শাহেনুর আক্তার হত্যা মামলায় গ্রেপ্তারকৃত ৪ আসামীর ২ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন আদালত। আজ বুধবার দুপুরে সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট মো. তারিক আজিজের আদালতে গ্রেপ্তারকৃত আসামীদের হাজির করা হয়। তাদের জিজ্ঞাসাবাদের জন্য ৫ দিনের রিমান্ডের আবেদন করে পুলিশ। পরে শুনানী শেষে বিচারক প্রত্যেক আসামীর ২দিন করে রিমান্ড মঞ্জুর করেন।

জজকোর্টের পাবলিক প্রসিউকিটর মো. জসিম উদ্দিন বিষয়টি নিশ্চিত করেন। আসামীরা হচ্ছেন, তরুনীর স্বামী সালাউদ্দিনের দুই ভাই আবদুর রহমান, আলাউদ্দিন, চরফলকন ইউনিয়নের ইউপি সদস্য হাফিজ উদ্দিন ও গ্রাম পুলিশ আবু তাহের।

এর আগে সোমবার রাতে নিহত তরুনী শাহেনুর আক্তারের বাবা জাফর আলম বাদী হয়ে স্বামী সালাউদ্দিনসহ ১৩ জনকে আসামী করে কমলনগর থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন। ওই মামলায় গ্রেপ্তারকৃত ৪ আসামী ছাড়াও শাহেনুর আক্তারের স্বামী সালাউদ্দিনসহ অন্য অজ্ঞাত ৮ আসামী পলাতক রয়েছে।

কোর্ট পরিদর্শক (ওসি) মো. শহীদ উল্ল্যাহ জানান, তরুনী হত্যাকান্ডে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য ৫দিন করে রিমান্ড চাওয়া হয়েছে। আদালত শুনানী শেষে দু’দিন করে রিমান্ড মঞ্জুর করেন।


উল্লেখ্য যে, গত ৬ মাস আগে মোবাইল ফোনে সালাউদ্দনিরে সঙ্গে পরিচয় হয় চট্টগ্রামের রাউজানের তরুণী সাহানুর আক্তারের।
পরিচয় থেকে প্রেম তারপর প্রায় দেড় বছর আগে কাজী অফিসে বিয়ে করে তারা। গত ৬ মাস আগে তরুণী জানতে পারে সালাউদ্দনি বিবাহিত। এই কথা শোনার পর বেশ কয়েকবার কমলনগরে স্ত্রীর স্বীকৃতির জন্য সালাউদ্দিনের কাছে ছুটে আসেন তিনি। শুক্রবার আবারো সালাউদ্দিনের কাছে লক্ষীপুরে আসেন শাহেনুর। স্ত্রী’র স্বীকৃতি না দিলে তিনি ফিরে যাবেন না বলেও জানিয়ে দেন। এতে স্বামী সালাউদ্দিন স্থানীয় ইউপি সদস্য ও চৌকিদারের সহায়তায় এক সালিশ বৈঠকের আয়োজন করা হয়। সালিশ বৈঠকে শাহেনুর আক্তারকে নানাভাবে তিরস্কার অপমান অপদস্থ করে এবং এলাকা থেকে চলে যেতে বলে তারা।

কিন্তু এতেও তিনি যেতে অস্বীকৃতি জানালে রোববার বিকালে ইউপি সদস্য ও গ্রাম পুলিশের সহযোগিতায় স্বামী সালাউদ্দিনসহ অন্যরা শাহেনুর আক্তারের গায়ে কেরোসিন ঢেলে আগুন ধরিয়ে দিলে মারাত্মকভাবে দগ্ধ হন। পরে একটি সয়াবিন ক্ষেত থেকে আগুনে দগ্ধ অবস্থায় তাকে উদ্ধার করে হাসপাতালে ভর্তি করে স্থানীয় এলাকাবাসী। পরে অবস্থার অবনতি হওয়ায় উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকা মেডিকেল কলেজের বার্ণ ইউনিটে পাঠানো হয় শাহেনুর আক্তারকে। সোমবার সকালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান তরণী শাহেনুর আক্তার।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর