× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনরকমারিপ্রবাসীদের কথাবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা ইলেকশন কর্নার
ঢাকা, ২৩ মে ২০১৯, বৃহস্পতিবার

‘এখন প্রতিযোগিতার সময় এসেছে’

বিনোদন

কামরুজ্জামান মিলু | ২৬ এপ্রিল ২০১৯, শুক্রবার, ৮:২৪

নায়িকা পপি সম্প্রতি সিলেটে টানা কয়েকদিন একটি ওয়েব সিরিজের কাজ নিয়ে ব্যস্ত সময় কাটিয়েছেন। এখানে আরো অভিনয় করেছেন রিয়াজ, নিপুণ, মনির খান শিমুলসহ অনেকে। এটি নির্মাণ করেছেন তৌহিদ মিটুল। এর আগে ‘ইন্দুবালা’ ওয়েব সিরিজে অভিনয় করে বেশ প্রশংসা পান পপি। নতুন এই ওয়েব সিরিজ নিয়েও আশাবাদী তিনি। এ বিষয়ে পপি বলেন, দর্শকরা গোয়েন্দা গল্প দেখতে খুব পছন্দ করেন। যেমন শার্লক হোমস, ব্যোমকেশ বা ফেলুদার কাহিনীগুলো পর্দায় দেখার পর বেশিরভাগ দর্শকই পছন্দ করেছেন। ঠিক তেমনি এবারই প্রথম এমন চরিত্রে কাজ করলাম, যা অন্য কাজ থেকে আলাদা। একজন নারী গোয়েন্দার চরিত্রে দর্শকরা আমাকে এখানে দেখতে পাবেন। এর কাহিনী নিয়ে জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কারপ্রাপ্ত এ অভিনেত্রী আরো বলেন, রেকর্ড পরিমাণ চা উৎপাদন করে দেশের সব ব্যবসায়িক প্রতিষ্ঠানের শীর্ষে আসে উদয়ন টি-এ স্টেট। এরপরেই টি-এ স্টেটে ঘটতে থাকে একের পর এক লোমহর্ষক খুন। ফুঁসে ওঠে শ্রমিক ইউনিয়ন। সেখানেই নারী গোয়েন্দা বৃতা চরিত্রে দর্শকরা আমাকে দেখতে পাবেন। খুনের রহস্য উদ্‌ঘাটন করতে দেখা যাবে আমাকে। ওয়েব সিরিজটির চিত্রনাট্যকার কলকাতার অদিতি মজুমদার ও সরদার সানিয়াত হোসেন। প্রোডাকশনটি ডিজাইন করেছেন রেবেকা বিনতি। বৃতা চরিত্রটি দর্শকরা পছন্দ করবেন বলে আশা করছি। বায়োস্কোপ লাইভে দর্শকরা এটি দেখতে পাবেন। ওয়েব সিরিজের শুটিং শেষ করে ঈদের জন্য বেশকিছু নাটকের গল্প হাতে পেয়েছেন পপি। এবারো কি তাকে ঈদে ছোট পর্দায় দেখা যাবে? এমন প্রশ্নের জবাবে এ অভিনেত্রী বলেন, এখনো বলতে পারছি না। এবার ঈদের জন্য বেশকিছু কাজ নিয়ে কথা চলছে। স্ক্রিপ্টগুলো বাসায় পড়ছি। বেশি কাজ করার ইচ্ছে নেই আমার। অল্প কাজ দিয়েই দর্শকের হৃদয়ে বেঁচে থাকতে চাই। ১৯৯৭ সালে মনতাজুর রহমান আকবর পরিচালিত ‘কুলি’ সিনেমাতে অভিনয়ের মধ্য দিয়ে চলচ্চিত্রে অভিষেক হয় পপির। এ পর্যন্ত অসংখ্য চলচ্চিত্রে অভিনয় করে সুনাম অর্জন করেছেন তিনি। ‘মেঘের কোলে রোদ’, ‘কি যাদু করিলা’ ও ‘গঙ্গাযাত্রা’ সিনেমাতে অভিনয় করে পেয়েছেন জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার। চলচ্চিত্রে কাজের ব্যস্ততা নিয়ে তিনি বলেন, আমি বর্তমানে তিনটি ছবির কাজ করছি। এরমধ্যে রয়েছে সাদেক সিদ্দিকীর ‘সাহসী যোদ্ধা’, কাজী আমিনুল ইসলামের ‘সেফ লাইফ’ ও আরিফুর জামান আরিফ পরিচালিত ‘কাঠগড়ায় শরৎচন্দ্র’। এরমধ্যে ‘সাহসী যোদ্ধা’ ছবির কাজ শেষ হয়েছে। এ ছবিতে আমাকে অ্যাকশন কন্যারূপে দর্শকরা দেখতে পাবেন। সেই সঙ্গে পারিবারিক গল্পও রয়েছে কাহিনীতে। এরইমধ্যে এর ডাবিং শুরু হবে। এ ছাড়া ‘সেফ লাইফ’ ও ‘কাঠগড়ায় শরৎচন্দ্র’ ছবির কিছু অংশের কাজ হয়েছে। সামনে এ ছবিগুলোর বাকি কাজ শুরু হবে। পপি অভিনীত এবং জাহাঙ্গীর আলম সুমনের পরিচালনায় ‘সোনাবন্ধু’ ছবিটি সবশেষ প্রেক্ষাগৃহে মুক্তি পায়। এ ছবিতে তার সহশিল্পী হিসেবে অভিনয় করেন ডি এ তায়েব। পপির কাছে জানতে চাওয়া, নতুন এ বছরে কি কি ছবি সামনে মুক্তি পাবে? এর উত্তরে পপি বলেন, এ বছর ওয়েব সিরিজ ও বেশকিছু চলচ্চিত্রে দর্শকরা বড় পর্দায় আমাকে দেখতে পাবেন। এখন তো চলচ্চিত্রের সার্বিক অবস্থা ভালো না। তারপরও যেসব কাজ হচ্ছে ভালো হচ্ছে। এখন প্রতিযোগিতার সময় এসেছে। আর আমরা শিল্পীরাও ভালো কাজ করার চেষ্টা করছি। নতুন কিছু ছবি নিয়ে কথা চলছে। বুলবুল বিশ্বাসের একটি ছবিতে চুক্তিবদ্ধ হয়েছিলাম। সেটারও সামনে কাজ শুরু হওয়ার কথা রয়েছে। আর সব ঠিক থাকলে শিগগিরই নতুন আরেকটি ছবিতে কাজ শুরু করবো।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর