× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনরকমারিপ্রবাসীদের কথাবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা ইলেকশন কর্নার
ঢাকা, ১৬ জুন ২০১৯, রবিবার

চতুর্থ দফার ভোটে পশ্চিমবঙ্গে ব্যাপক অনিয়মের অভিযোগ

ভারত

কলকাতা প্রতিনিধি | ২৯ এপ্রিল ২০১৯, সোমবার, ১২:০৯
ফাইল ছবি

ভারতে চতুর্থ দফার নির্বাচনে আজ পশ্চিবঙ্গের ৮টি কেন্দ্রের নির্বাচন নিয়ে সকাল থেকেই ব্যাপক অনিয়মের অভিযোগ উঠে আসছে। নির্বাচন কমিশনের ব্যাপক সতর্কতার আশ্বাস সত্ত্বেও অনেক জায়গাতেই ভোটাররা কেন্দ্রীয় বাহিনী না থাকায় ভোট দান বন্ধ করে দিয়েছেন। পরে অবশ্য পর্যাপ্ত বাহিনী এনে ভোট শুরু হয়েছে। আগের দফাগুলির মতই এদিনও বিভিন্ন বুথ থেকে ইভিএম বিভ্রাটের অসংখ্য অভিযোগ পাওয়া গিয়েছে। অনেক জায়গাতেই ইভিএম খারাপ থাকায় ভোট দেরিতে শুরু হয়েছে। কোথাও কোথাও ভোটদানের মাঝপথে ইভিএম খারাপ হয়ে যাওয়ায় ভোটগ্রহ্রণ ব্যাহত হয়েছে। ভোট গ্রহণ শুরু হওয়ায় ২ ঘন্টার মধ্যেই নির্বাচন কমিশনে ১০৭৬টি অভিযোগ জমা পড়েছে। কমিশনের দাবি, এর মধ্যে ১০০৬ টি অভিযোগও নিষ্পত্তি করা হয়েছে।
পশ্চিমবঙ্গের যে ৮টি আসনে আজ ভোট নেওয়া হচ্ছে সেগুলি হল, আসানসোল, বহরমপুর, বর্ধমান পূর্ব, বীরভূম, বোলপুর, বর্ধমান-দুর্গাপুর, কৃষ্ণনগর ও রানাঘাট। আসানসোলের বারাবনিতে একটি বুথে বিজেপির এজেন্টকে বের করে দেওয়া নিয়ে গোলমাল বাধে।  খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে যান আসানসোলের বিজেপি প্রার্থী বাবুল সুপ্রিয়। ওই বুথে যেতেই তৃণণূল কর্মীরা তাঁর গাড়ি ঘিরে ধরে বিক্ষোভ দেখান। গাড়ি ভাংচুর করা হয় বলেও অভিযোগ। বাবুলের অভিযোগ, তৃণমূল আমাকে এক জায়গায় আটকে রাখার চেষ্টা করছে। কিন্তু আমাকে আটকাতে পারবে না। আমি সব বুথে ঘুরে বেড়াচ্ছি। তবে বুথে ঢুকে তৃণমূলের এজেন্টকে ধমকানোর অভিযোগও উঠেছে বাবুলের বিরুদ্ধে। এই ঘটনায় বাবুলের ভূমিকা খতিয়ে দেখতে রিপোর্ট চেয়েছে নির্বাচন কমিশন। অন্যদিকে বাবুলের গাড়ি ভাঙচুরের ঘটনারও রিপোর্ট তলব করা হয়েছে। এদিন সকাল থেকেই আসানসোলের জেমুয়ার ভাদুবালা স্কুলে ভোটাররা কেন্দ্রীয় বাহিনী ছাড়া ভোট হবে না বলে বিক্ষোভ দেখিয়েছেন। একসময় তৃণমূল এবং বিজেপি কর্মীদের মধ্যে হাতাহাতি, মারপিটে গোটা ভোটগ্রহণ কেন্দ্র রণক্ষেত্রের চেহারা নিয়েছিল। পরে পুলিশ লাঠিচার্জ করে তাদের হটিয়ে দিয়েছে। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আসার পর কমিশনের হস্তক্ষেপে ভোট গ্রহণ শুরু হয়েছে এই ভোটগ্রহণ কেন্দ্রে। এদিন সকালেই ভোটগ্রহণ ঘিরে উত্তেজনা বহরমপুরের নানা বুথে। অভিযোগ, কৃষ্ণনাথ কলেজিয়েট স্কুলে অধীর চৌধুরীর এজেন্টকে ঢুকতে বাধা দেয় তৃণমূল। খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে চলে যান অধীর। তাঁর হস্তক্ষেপে এজেন্টে ঢুকতে পারেন। এই স্কুলেরই অন্য বুথে এজেন্টকে মারধর করে বাইরে বের করে দেওয়া হয়। এছাড়া বহরমপুর বিএড কলেজে ছাপ্পা ভোট দেওয়ার অভিযোগ উঠেছে তৃণমূলের বিরুদ্ধে। বহরমপুরের কংগ্রেস সাংসদের অভিযোগ, রাজ্য প্রশাসনের কর্মী-অফিসারদের একাংশ তৃণমূলের হয়ে কাজ করছেন। ছাপ্পাভোট দেওয়া অভিযোগ ওঠায় একটি বুথের প্রিসাইডিং অফিসারকে সরিয়ে দিয়েছে নির্বাচন কমিশন। এদিন অবশ্য নির্বাচন কমিশনের তৎপরতা দেখা গেছে। গতকাল রাত থেকেই বীরভূমের তৃণমূল সভাপতি অনুব্রত মন্ডলকে নির্বাচন কমিশন নজরবন্দি করে রেখেছে। তবে বেপরোয়া অনুব্রত বলেছেন, এসবে কিছু কাজ হবে না। আমি ভোটের আগের দিনই জেলা ঘুরে যেখানে যে ওষুধ দরকার তা দিয়ে এসেছি।

পশ্চিমবঙ্গের ৮টি আসন সহ দেশের ৯টি রাজ্যের ৭২টি আসনে ভোট নেওয়া হচ্ছে। অন্য রাজ্য থেকে ইভিএম বিভ্রাট ছাড়া বড় ধরণের কোনও অভিযোগ পাওয়া যায় নি। মুম্বাইয়ে সেলিব্রিটিরা উৎসাহের সঙ্গে ভোট দিয়েছেন। এ বছর এখন পর্যন্ত অনুষ্ঠিত লোকসভা নির্বাচনে মোট ৫৪৩টি আসনের মধ্যে প্রথম তিন দফায় ৩০৩টি আসনে ভোট নেওয়া হয়ে গিয়েছে।  প্রথম দফায়  ৯১টি আসনে, দ্বিতীয় দফায় ৯৭টি আসনে এবং তৃতীয় দফায় ১১৫ টি আসনে ভোট নেওয়া হয়েছে। ভারতে এ বার ভোট নেওয়া হচ্ছে ৭ দফায়। আজ ভোট নেওয়া হচ্ছে মহারাষ্ট্রের ১৭টি আসনে, উত্তরপ্রদেশের ১৩টি আসনে, রাজস্থানের ১৩টি আসনে, পশ্চিমবঙ্গের ৮টি, মধ্যপ্রদেশের ৬টি, ওড়িশার ৬টি, বিহারের ৫টি, ঝাড়খন্ডের ৩টি এবং জম্মুু ও কাশ্মীরের ১টি আসনে। জম্মু ও কাশ্মীরের অনন্তনাগ আসনে তিন দফায় ভোট নেওয়া হচ্ছে। প্রথম দফায় ভোট নেওয়া হয়েছে ২৩ এপ্রিল। দ্বিতীয় দফায় আজ অনন্তনাগের কুলগাঁও জেলায় ভোট হচ্ছে। তৃতীয় দফায় ৬ মে অন্যান্য বুথে ভোট নেওয়া হবে। ভারতের এই একটি মাত্র আসনে তিন দফায় ভোট নেওয়া হচ্ছে। আজ লোকসভার নির্বাচনের সঙ্গে ওড়িশা বিধানসভার ৪২টি আসনে এবং মদ্যপ্রদেশের ছিন্দওয়াড়া বিধানসভা আসনে, উত্তরপ্রদেশের নিঘাসান বিধানসভা আসনে এবং পশ্চিমবঙ্গের কৃষ্ণগঞ্জ বিধানসভা আসনেও উপনির্বাচন অনুষ্ঠিত হচ্ছে। এদিনের নির্বাচনে ৯৬৩ জন প্রার্থীর ভাগ্য নির্ধারিত হতে যাচ্ছে। আজ যাদের ভাগ্য নির্ধারণ হচ্ছে তাদের মধ্যে উল্লেখযোগ্যরা হলেন, বিজেপির গিরিরাজ সিং, বাবুল সুপ্রিয়, কংগ্রেসের মিলিন্দ মুরলি দেওরা, প্রিয়া দত্ত, উর্মিলা মতোন্ডকর, অধীর চৌধুরি,  সমাজবাদী পার্টির ডিম্পল যাদব, সিপিআইয়ের কানাইয়াকুমার ও তৃণমূল কংগ্রেসের মুনমুন সেন।
আজকের ভোটে বিজেপির কাছে বিশাল পরীক্ষা।  আজ যে ৭২টি আসনে ভোট হচ্ছে তার ৪৪টি আসনই বিজেপির দখলে ছিল। এছাড়া শিবসেনার দখলে ছিল ৯টি, বিজু জনতা দলের ৬টি, তৃণমূল কংগ্রেসের ৬টি, কংগ্রেসের ৩টি, লোক জনশক্তি পাটির ২টি, সমাজবাদী পার্টির ১টি এবং পিপলস ডেমোক্রাটিক পার্টির দখলে ছিল ১টি আসন। আজকের ভোটে নির্ধারণ হয়ে যাবে বিজেপি তার শরিকরা গতবারের জয়ী আসনগুলির কত শতাংশ ধরে রাখতে পারছে। আর এর উপরেই অনেকটা নির্ভর করবে দিল্লিতে বিজেপি সরকার গঠন করতে সমর্থ হবে কিনা।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর