× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনরকমারিপ্রবাসীদের কথাবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা ইলেকশন কর্নার
ঢাকা, ২০ জুলাই ২০১৯, শনিবার

শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের কাছে ইটভাটা বন্ধের আবেদন নিষ্পত্তির নির্দেশ

দেশ বিদেশ

স্টাফ রিপোর্টার | ১৫ মে ২০১৯, বুধবার, ৯:৪৬

চট্টগ্রামের লোহাগাড়া উপজেলার ফসলি জমিতে পাহাড় কেটে ইটভাটা নির্মাণের কার্যক্রম বন্ধে করা আবেদন নিষ্পত্তির নির্দেশ দিয়েছেন হাইকোর্ট। আগামী ১৫ দিনের মধ্যে পরিবেশ অধিদপ্তরের মহাপরিচালক, চট্টগ্রাম জেলার ডিসি, পরিবেশ অধিদপ্তরের চট্টগ্রামের প্রধান ও সংশ্লিষ্ট থানার নির্বাহী কর্মকর্তাকে রিটকারীর আবেদন নিষ্পত্তি করার জন্য বলেছেন আদালত। একইসঙ্গে, পরিবেশের ভারসাম্য রক্ষায় পাহাড় কেটে বা শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের আশপাশে ইটভাটা তৈরির বন্ধে রুলও জারি করেছেন হাইকোর্ট। আগামী চার সপ্তাহের মধ্যে সংশ্লিষ্টদের এই রুলের জবাব দিতে বলা হয়েছে। গতকাল বিচারপতি এফআরএম নাজমুল আহসান ও বিচারপতি কেএম কামরুল কাদেরের সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্ট বেঞ্চ এই আদেশ দেন। আদালতে রিটের পক্ষে শুনানি করেন অ্যাডভোকেট অমিত দাশ গুপ্ত। সঙ্গে ছিলেন আইনজীবী রাশিদা চৌধুরী নিলুৃ। অন্যদিকে, রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল ব্যারিস্টার এবিএম আব্দুল্লাহ আল মাহমুদ বাশার।
আইনজীবী আব্দুল্লাহ আল মাহমুদ বাশার বলেন, আগামী ১৫ দিনের মধ্যে পরিবেশ অধিদফতরের মহাপরিচালক, চট্টগ্রাম জেলার ডিসি, পরিবেশ অধিদফতরের চট্টগ্রামের প্রধান ও সংশ্লিষ্ট থানার নির্বাহী কর্মকর্তাকে রিটকারীর আবেদন নিষ্পত্তি করার জন্য বলেছেন আদালত। ইটভাটা তৈরি বন্ধে রুলও জারি করেছেন এবং আগামী চার সপ্তাহের মধ্যে সংশ্লিষ্টদের এই রুলের জবাব দিতে বলা হয়েছে।
জানা যায়, চট্টগ্রামের লোহাগাড়া উপজেলার পশ্চিম কলাউজান বাংলাবাজারের দক্ষিণে মালিপাড়া ও বাহাদুর পাড়া এলাকায় মোস্তাফিজুর রহমান, আবদুল কাদের ও জামাল উদ্দীনসহ আরও কয়েকজন প্রভাব খাটিয়ে এলাকার অসহায় কৃষকের জমির ওপর পাহাড় কেটে শ্মশান,  লোকালয় ও অভয়ারণ্যের মাঝখানে অবৈধভাবে নতুন ইটভাটা গড়ে তুলছে। ইটভাটার কাজ চালানোর কারণে এলাকাবাসী ও শিক্ষার্থীদের চলাচলে চরম বিঘ্ন ঘটছে। কাঁচা রাস্তায় গাড়ি চলাচলের কারণে প্রতি মুহূর্ত ধূলাবালুতে আচ্ছন্ন থাকে পুরো এলাকা। ইটভাটা বন্ধের ব্যাপারে পরিবেশ অধিদফতর, ডিসি, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সবার কাছে আবেদন করা হয়। তার পরও ইটভাটা বন্ধ না করায় রিট করা হয়। ওই রিটের শুনানি নিয়ে আদালত এই আদেশ দেন।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর