× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনরকমারিপ্রবাসীদের কথাবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা ইলেকশন কর্নার
ঢাকা, ২২ সেপ্টেম্বর ২০১৯, রবিবার

ভারতে শেষ দফার ভোট চলছে, ব্যাপক ইভিএম বিভ্রাটের অভিযোগ

ভারত

কলকাতা প্রতিনিধি | ১৯ মে ২০১৯, রবিবার, ১১:৪৭

ভারতের ১৭তম লোকসভা নির্বাচনের সপ্তম তথা শেষ দফায় আজ রবিবার ৮টি রাজ্য ও কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলের ৫৯টি কেন্দ্রে প্রখর রোদের তাপ উপেক্ষা করে মানুষ ভোটের লাইনে দাঁড়িয়ে ভোট দিচ্ছেন। বেলা ন’টা পর্যন্ত প্রায় ১০ শতাংশ ভোট পড়েছে বলে নির্বাচন কমিশন সূত্রে জানা গেছে।  আজকের শেষ দফার ভোটে সবচেয়ে নিরাপত্তা বন্দোবস্ত করা হয়েছে পশ্চিমবঙ্গে। তবে ইভিএম বিভ্রাটের ঘটনা প্রথম দফা থেকেই হয়ে চলেছে। এদিনও বিভিন্ন রাজ্যের বিভিন্ন জায়গা থেকে ইভিএম খারাপ থাকায় ভোটগ্রহণ দেরিতে শুরু হওয়ার অভিযোগ পাওয়া গিয়েছে। পশ্চিমবঙ্গে একটি বুথে ইভিএম খারাপ থাকার অজুহাতে বেলা সাড়ে ন’টা পর্যন্ত ভোট গ্রহণ শুরু করা যায় নি বলে অভিযোগ।  দ্রুত ইভিএম পরিবর্তন করতে না পারাকে নির্বাচন কমিশনের ব্যর্থতা বলে দাবি করেছেন সাধারণ ভোটাররা। আজ ভোট চলছে বিহারের ৮টি, চন্ডীগড়ের ১টি, হিমাচল প্রদেশের ৪টি, ঝাড়খন্ডের ৩টি, মধ্য প্রদেশের ৮টি, পাঞ্জাবের ১৩টি, উত্তরপ্রদেশের ১৩টি ও পশ্চিমবঙ্গের ৯টি আসনে। ভারতে এবার সাতদফায় লোকসভার ভোট নেওয়া হয়েছে।

আজকের ভোটের মধ্য দিয়ে শেষ হচ্ছে এক মাসব্যাপী ভারতের লোকসভা নির্বাচন । ফল প্রকাশ হবে ২৩ মে। তবে আজ সন্ধ্যার পর থেকে সকলের নজর থাকবে বুথফেরত সমীক্ষার দিকে। শেষ দফার ভোটে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী, মন্ত্রী রবিশঙ্কর প্রসাদ, বিজেপির অভিনেতা সানি দেওল, কিরণ খের, কংগ্রেসের শত্রুঘœ সিনহা, ঝাড়খন্ড মুক্তি মোর্চার শিবু সোরেন, তৃণমূল কংগ্রেসের নুসরাত জাহান, মিমি চক্রবর্তী ও অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়, সিপিআইএমের বিকাশ রঞ্জন ভট্টাচার্য সহ ৯১৮ জন প্রার্থীর ভাগ্য নির্ধারিত হচ্ছে।  শেষ দফার ভোটে সকলকে ভোট দেবার আহ্বান জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী এবং পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। 

আজ পশ্চিমবঙ্গে ভোট চলছে কলকাতা ও দুই ২৪ পরগণার উত্তর কলকাতা, দক্ষিণ কলকাতা, যাদবপুর, দমদম, বসিরহাট, বারাসাত, ডায়মন্ড হারবার, মথুরাপুর ও জয়নগর লোকসভা কেন্দ্রে। এছাড়াও চারটি বিধানসভা কেন্দ্রেরও উপনির্বাচন একই সঙ্গে হচ্ছে। এদিনের ভোটে ৯টি কেন্দ্রের ১৭ হাজার ৭৮টি বুথে ৭১০ কোম্পানি কেন্দ্রীয় বাহিনী নিয়োগ করা হয়েছে। কমিশনের মতে, পশ্চিমবঙ্গ থেকে অনেক অভিযোগ এসেছে। তাই অন্য রাজ্যের তুলনায় পশ্চিমবঙ্গে অনেক বেশি বাহিনী মোতায়েন করা হয়েছে। ৪৬১টি  কিউআরটি (কুইক রেসপন্স টিম) রাখা হয়েছে। কিন্তু এত সতর্কতা সত্ত্বেও সকাল থেকেই পশ্চিমবঙ্গের বিভিন্ন জায়গা থেকে ভোটারদের হুমকি প্রদর্শন, বিরোধী এজেন্টদের মারধর ও ব্যাপক বোমাবাজির অভিযোগ উঠেছে শাসক দলের বিরুদ্ধে। তবে দক্ষিণ কলকাতার একটি বুথে কেন্দ্রীয় বাহিনীর বিরুদ্ধে অভিযোগ তারা ঐ কেন্দ্রের প্রার্থী মালা রায়কে বুথে ঢুকতে বাধা দিয়েছেন । নির্বাচন কমিশন সূত্রে জানা গেছে, যত বেলা গড়াচ্ছে তত বিভিন্ন জায়গা থেকে কমিশনে অভিযোগ এসে পৌঁছাচ্ছে।   

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর