× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনরকমারিপ্রবাসীদের কথাবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা ইলেকশন কর্নার
ঢাকা, ২৭ জুন ২০১৯, বৃহস্পতিবার

ঈদের ছবির দিকে তাকিয়ে প্রেক্ষাগৃহ মালিকরা

বিনোদন

কামরুজ্জামান মিলু | ২১ মে ২০১৯, মঙ্গলবার, ৮:৫৫

ঈদ মানেই নতুন ছবি। আর ঈদে নতুন ছবি মানেই প্রেক্ষাগৃহে পছন্দের অভিনয়শিল্পীদের দেখার জন্য দর্শকদের উপচে পড়া ভিড়। এটাই হয়ে এসেছে সব সময়। তবে গত দুই বছর ধরে প্রেক্ষাপটটা একটু ভিন্ন। কারণ পুরো বছরের মতো ঈদের সময়টাতেও হতাশায় কেটেছে বেশিরভাগ প্রেক্ষাগৃহ মালিকদের। কারণ হিসেবে তাদের ভাষ্য ছিল, আগের মতো আশানুরূপ ব্যবসা হচ্ছে না ঈদের ছবির। ঈদে প্রেক্ষাগৃহে দর্শকদের ছবি দেখার জন্য টানা  ভিড় থাকার কথা থাকলেও ঈদের ছবিগুলো সেভাবে জমজমাট ব্যবসা করছে না। তবে হাল ছাড়তে রাজি নন প্রেক্ষাগৃহের মালিকরা।
তারা এবারো ঈদের ছবির দিকে তাকিয়ে আছেন। আসছে ঈদে এরইমধ্যে তিনটি সিনেমা মুক্তির জন্য আপাতত  চূড়ান্ত হয়েছে। ছবি তিনটি হচ্ছে মালেক আফসারীর পরিচালনায় শাকিব-বুবলী অভিনীত ‘পাসওয়ার্ড’, সাকিব সনেটের পরিচালনায় শাকিব-ববির ‘নোলক’ এবং অনন্য মামুনের পরিচালনায় তারিক আনাম খান ও স্পর্শিয়ার ভিন্ন ধরনের গল্পের ছবি ‘আবার বসন্ত’। রাজধানীর মধুমিতা সিনেমা হলের অন্যতম কর্ণধার ইফতেখার উদ্দিন নওশাদ বলেন, পুরো বছর ভালো কনটেন্টের সিনেমা না থাকার কারণে মাসের পর মাস লস দিয়ে যাচ্ছেন প্রেক্ষাগৃহের মালিকরা। এভাবে চলতে থাকলে তো সিনেমা হল বন্ধ করে দিতে হবে আমাদের। এরইমধ্যে দেশের বিভিন্ন জায়গায় সিনেমা হল বন্ধ হয়ে গেছে। আশা করি, এবার ঈদে ভালো কনটেন্টের সিনেমা দর্শকরা দেখতে পাবেন। এবার ঈদে মধুমিতা সিনেমা হলে ‘পাসওয়ার্ড’ ছবিটি চালানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছি আমরা। এ ছবিতে অভিনয়ের পাশাপাশি লগ্নি করেছেন শাকিব খান। আর ছবিতে মানসম্মত গল্প ও গান রয়েছে বলে জেনেছি। আমার বিশ্বাস, ঈদে এ ছবিটি দর্শকরা পছন্দ করবেন। দিনাজপুর জেলার ফুলবাড়ী উপজেলার একটি জনপ্রিয় ও পুরানো সিনেমা হল ‘উর্বশী’। এই সিনেমা হলের কর্ণধার খোরশেদ আলম মতি বলেন, দীর্ঘ ছয় মাসেরও বেশি সময় ধরে সিনেমা হলটি বন্ধ রেখেছি। কারণ ভালো কাহিনীর সিনেমা এখন পাওয়া যাচ্ছে না। আগে ছবির গল্প ও গান দর্শকদের যেমন আকৃষ্ট করতো তেমনটা এখন একদম নেই বললেই চলে। কিছু সিনেমা এরইমধ্যে ভালোভাবে নির্মাণ হচ্ছে। তবে সেই সংখ্যাটা কম। সিনেমা হলে তো প্রতি সপ্তাহে নতুন ছবি দরকার। মুক্তিপ্রাপ্ত সিনেমার সংখ্যাটাও কমে গেছে। দর্শকরা অবশ্যই ভালো সিনেমা দেখতে চায়। দেখা যাক, এবার ঈদে ছবি চালানোর পর কেমন ব্যবসা হয়। ভালো মানের ছবি পেলে এবার ঈদে নতুন ছবি উর্বশীতে চালাবো। চলচ্চিত্র প্রদর্শক সমিতির সাংগঠনিক সম্পাদক আওলাদ হোসেন উজ্জ্বল বলেন, ঈদে মানসম্মত ছবি মুক্তি পায় ও কাঙ্খিত ব্যবসা হয়। দুঃখের বিষয় হলো ঈদ শেষে পর্যাপ্ত, মানসম্মত ও জনপ্রিয় ছবির অভাবে লোকসান গুনে ঈদে খোলা সিনেমা হলগুলো আবার বন্ধ করে দিতে বাধ্য হয় সংশ্লিষ্ট মালিকরা। তাই বাধ্য হয়ে ঈদের দিকে তাকিয়ে থাকতে হয় সিনেমা হল মালিকদের। শ্রীনগরে আমার ‘স্বপ্নপূরী’ নামে একটি সিনেমা  হল আছে। এবার তিনটি ছবি মুক্তি পাবে বলে জেনেছি। যেটা এখানকার দর্শকদের জন্য বেস্ট মনে হবে সেটাই আমার সিনেমা হলে চালাবো বলে সিদ্ধান্ত নিয়েছি। আরো ৫-৬ দিন পর ঈদে কোন ছবিটি চালাবো তা জানাতে চাই। সারা বছরের মধ্যে দুই ঈদেই সিনেমা হলে মানুষ বেশি ভিড় করে। তবে ভালো সিনেমা প্রতি মাসে কমপক্ষে একটি করে মুক্তি পেলে অবশ্যই সিনেমা হল মালিকরা লাভবান হতো এবং দর্শকরাও সিনেমা হলে ভিড় জমাতো।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর