× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনরকমারিপ্রবাসীদের কথাবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা ইলেকশন কর্নার
ঢাকা, ১৭ জুন ২০১৯, সোমবার

অনলাইন শপিংয়ের নামে প্রতারণা, আটক ৭

অনলাইন

অনলাইন ডেস্ক | ২৩ মে ২০১৯, বৃহস্পতিবার, ৩:২৬

বিভিন্ন ব্র্যান্ডের পণ্য নকল করে অনলাইনে বিক্রির অভিযোগে এক প্রতারক চক্রের সাত সদস্যকে আটক করেছে র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‌্যাব)। আজ রাতভর রাজধানীর দারুস সালাম এলাকায় অভিযান চালিয়ে তাদের আটক করে র‌্যাব-৪। আটককৃতরা হলেন সুজন মোল্লা (২৬), হাসিবুল হাসান চঞ্চল (৩২), জোরদিস হাসান (২৭), মেহেদী হাসান (২৩), নুর ইসলাম (১৯), পারভেজ মোল্লা (১৯) ও আবু তাহের (১৯)।

আজ দুপুরে কারওয়ান বাজার মিডিয়া সেন্টারে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে র‌্যাব-৪ এর সিও (কমান্ডিং অফিসার) এডিশনাল ডিআইজি চৌধুরী মঞ্জুরুল কবির এসব তথ্য জানান।

র‌্যাবের সিও বলেন, নামি ব্র্যান্ড সেইলর্স এর পক্ষ থেকে অভিযোগ করা হয় যে, তাদের দামি পোশাক যেমন পাঞ্জাবির ছবি তুলে সেইলসের স্থানে নকল নাম জুড়ে দিয়ে অনলাইনে বিক্রির চেষ্টা করছে একটি চক্র। পরে অনুসন্ধানে বেরিয়ে আসে প্রতারক চক্রের সদস্যরা অন্যের ব্র্যান্ডের ডিজাইন তো চুরি করছেই আবার কমদামে ভালো পোশাক দেখে ক্রেতারা অর্ডার করছেন সেখানেও দামি পোশাকের পরিবর্তে বঙ্গবাজার থেকে একটি কমদামি পোশাক এনে ডেলিভারি দিচ্ছে। আবার কখনো পোশাকের পরিবর্তে মোবাইলের চার্জার, রাউটার, কাভার ইত্যাদি ডেলিভারি দিয়ে ক্রেতাদের সঙ্গে প্রতারণা করে আসছে।

পণ্য অর্ডারের আগে প্রথমে সার্ভিস চার্জ নেয় এবং একটু দামি পণ্যের ক্ষেত্রে পুরো দাম আগেই নিয়ে নেয়। এরপর পণ্য যখন ক্রেতারা হাতে পায় তখন খুলে দেখতে পায় কাঙ্খিত পণ্যটি তিনি পাননা। এমনকি কখনো মোবাইলের পরিবর্তে সাবান দেয়া হয়েছে বলে স্বীকার করেছে আটকরা। পরবর্তীতে কর্তৃপক্ষকে জানালে তারা বেমালুম অস্বীকার করে।
আবার কখনো বিভিন্ন কুরিয়ার সার্ভিসের কর্মীদের দায়ী করে তারা। কুরিয়ার সার্ভিসের লোকজনই আসল মাল সরিয়ে রেখে অন্য মালামাল ডেলিভারি দিয়েছে বলে জানায়।

র‌্যাবের সিও আরও বলেন, আটকদের বিরুদ্ধে দারুস সালাম থানায় মামলা দিয়ে আদালতে পাঠানো হয়েছে।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
পাঠকের মতামত
**মন্তব্য সমূহ পাঠকের একান্ত ব্যক্তিগত। এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।
ওমর ফারুক
২৩ মে ২০১৯, বৃহস্পতিবার, ৫:১২

আরো আচে। তারা বিভিন্ন নিত্য পণ্য যেমন ঘি, মধু, সরিষার তেল সাবান খাদ্য দ্রব্য অনুমোদন চাড়া বিক্রী করছে। তাদের ঠিকানা কখনো দেয়না। এইসব পন্য খেয়েও ব্যাবহার করে জনগনের ক্ষতি হচ্ছে সরকার রাজস্ব থেকে বঞ্চিত হচ্ছে। কর্ত্তৃপক্ষ দৃষ্টি দেয়া আবশ্যক।

অন্যান্য খবর