× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনরকমারিপ্রবাসীদের কথাবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা ইলেকশন কর্নার
ঢাকা, ১৭ জুন ২০১৯, সোমবার

সুযোগ থাকলে কোহলিকে নিতেন মাশরাফি

খেলা

স্পোর্টস ডেস্ক | ২৪ মে ২০১৯, শুক্রবার, ৯:৪১

ওয়ানডে বিশ্বকাপের ১০ দলের অধিনায়ককে নিয়ে গতকাল আয়োজন করা হয় ‘মিট দ্য ক্যাপটেনস’ অনুষ্ঠান। ১ ঘণ্টার অনুষ্ঠানে সবাইকে একটা মজার প্রশ্ন করা হয়- অন্য দলের খেলোয়াড় নেয়ার সুযোগ থাকলে কাকে নিতেন? উত্তরে বাংলাদেশি অধিনায়ক মাশরাফি বিন মুর্তজা বলেন ভারতের ব্যাটিং জিনিয়াস বিরাট কোহলির নাম। স্বাগতিক ইংল্যান্ডের অধিনায়ক এউইন মরগান জানান, এখনকার কোনো ক্রিকেটার নয়, সুযোগ থাকলে তিনি নিতেন রিকি পন্টিংকে। ভারত দলের অধিনায়ক কোহলি বলেন, ‘জবাব দেয়া কঠিন। নিজেদেরই যথেষ্ট ভালো মনে করি আমরা। একজনকে যদি নিতেই হয়, এখনকার ক্রিকেটারদের মধ্যেই কি নিতে হবে? আমি এবি ডি ভিলিয়ার্সের কথা বলতাম, কিন্তু সে অবসর নিয়ে নিয়েছে। হুম, ফাফ ডু প্লেসিকে নিতাম। ও আমার ভালো বন্ধু।’ পাকিস্তানের অধিনায়ক সরফরাজ আহমেদ বেছে নেন ইংল্যান্ডের জস বাটলারকে।
অস্ট্রেলিয়ার অধিনায়ক অ্যারন ফিঞ্চ চান দক্ষিণ আফ্রিকার পেসার কাগিসো রাবাদাকে। আর প্রোটিয়া অধিনায়ক ফাফ ডু প্লেসি বলেন, ভারতের জাসপ্রীত বুমরাহ ও রশীদ খানের কথা। শ্রীলঙ্কার অধিনায়ক দিমুথ করুণারত্নের পছন্দ ইংল্যান্ডের বেন স্টোকসকে। নিউজিল্যান্ডে অধিনায়ক কেন উইলিয়ামস আবার রশিদ খানের কথা বলেছেন। তবে ওয়েস্ট ইন্ডিজ অধিনায়ক জেসন হোল্ডার ও আফগানিস্তান অধিনায়ক গুলবাদিন নাইব প্রশ্নটা এগিয়ে যান।
বাংলাদেশের বিশ্বকাপ শুরু ২রা জুন দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে। ওই ম্যাচে প্রোটিয়াদের হারিয়ে শুভসূচনা করতে চান মাশরাফি। ডু প্লেসিসকে পাশে রেখেই মাশরাফি বলেন, ‘আমাদের দলে বেশ কয়েকজন ভালো ক্রিকেটার রয়েছে। সিনিয়র ক্রিকেটারের পাশাপাশি তরুণেরাও উঠে আসছে, যারা সবখানেই দারুণ ক্রিকেট খেলছে। অভিজ্ঞতা আর তারুণ্যের মিশেলে আমাদের দলটা দারুণ। আয়ারল্যান্ডে হয়ে যাওয়া গত সিরিজেও সবাই ভালো খেলেছে। আশা করছি বিশ্বকাপটাও ভালোভাবে শুরু করতে পারব। ২রা জুন ফাফের (দক্ষিণ আফ্রিকা অধিনায়কের দিকে তাকিয়ে) দলের বিপক্ষেই তো আমাদের শুরু। আশা করছি ভালো শুরুই হবে।’ উপস্থাপক তখন মাশরাফিকে থামিয়ে প্লেসিকে প্রশ্ন করেন, ‘তার কি সত্যিই তোমাদের হারিয়ে দেবে?’ প্লেসির উত্তর ছিল, ‘আশা করি সেটা হবে না।’
গত বিশ্বকাপে ইংল্যান্ডকে হারিয়ে কোয়ার্টার ফাইনালে উঠে বাংলাদেশ। উপস্থাপক মাশরাফির কাছে জানতে চান বাংলাদেশের ক্রিকেটারদের পরিবর্তিত মানসিকতাটা গড়ে উঠলো কীভাবে। জানতে চান, যেকোনো দলকে যে বাংলাদেশ হারাতে পারে, এই বিশ্বাসটা কি গত বিশ্বকাপের পর থেকে হয়েছে? মাশরাফি বললেন, ‘ক্রিকেট এমন একটা খেলা, যেকোনো দিনে যে কেউ যে কাউকে হারাতে পারে। আর আমাদের মতো দলের ক্ষেত্রে যেটা হয়, ভালো একটা শুরু পেলে আমরা সেটার ফায়দা নিতে জানি। আমাদের দৃঢ় বিশ্বাস আছে যেকোনো দলকে হারানোর। তবে সবকিছু নির্ভর করছে ভালো শুরুর ওপর।’
বিশ্বকাপ একেবারে সন্নিকটে। এই মুহূর্তে মানসিকভাবে কতটা প্রস্তুত- এই প্রশ্নের জবাবে মাশরাফি বলেন, আমার জন্য এটা তো নতুন কিছু নয়। বাকিরাও নিশ্চয়ই একই কথা বলবে। সবকিছু মানসিক প্রস্তুতির ওপর নির্ভর করছে। বিশ্বকাপ একদম সন্নিকটে। মানসিকভাবে কীভাবে নিজেকে তৈরি করছেন সেটা খুবই গুরুত্বপূর্ণ।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর