× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনরকমারিপ্রবাসীদের কথাবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা ইলেকশন কর্নার
ঢাকা, ১৮ আগস্ট ২০১৯, রবিবার
আজ মোদি শপথ নেবেন

ভারতের নতুন মন্ত্রিসভা নিয়ে কৌতূহল

ভারত

পরিতোষ পাল, কলকাতা থেকে | ৩০ মে ২০১৯, বৃহস্পতিবার, ১০:০০

রেকর্ড সংখ্যাগরিষ্ঠতা নিয়ে দ্বিতীয়বারের জন্য প্রধানমন্ত্রী পদে আজ সন্ধ্যায় শপথ নেবেন নরেন্দ্র দামোদরদাস মোদি। সেই সঙ্গে শপথ নেবেন নতুন মন্ত্রিসভার সদস্যরা। রাষ্ট্রপতি ভবনের রাজকীয় এই শপথ অনুষ্ঠানে যোগ দেবেন বিমসটেকভুক্ত দেশগুলোর রাষ্ট্রপ্রধান বা প্রতিনিধিরা। এ ছাড়াও উপস্থিত থাকবেন মালদ্বীপ, মরিশাস, আফগানিস্তান ও কিরঘিজিস্থানের রাষ্ট্রপ্রধানরা। তবে ভারতের নতুন মন্ত্রিসভায় কাদের কাদের জায়গা হচ্ছে তা নিয়ে দেশজুড়ে প্রবল কৌতূহল তৈরি হয়েছে। বিজেপির জয়ী সাংসদরাও অপেক্ষায় কার ভাগ্যে শিকে ছিঁড়বে। নতুন মন্ত্রিসভার তালিকা ইতিমধ্যেই রাষ্ট্রপতির কাছে পৌঁছে গেছে। গত মঙ্গলবার রাতে প্রধানমন্ত্রীর বাসভবনে মোদির সঙ্গে দীর্ঘ ৫ ঘণ্টা  বৈঠক করেছেন বিজেপি সভাপতি অমিত শাহ।
মন্ত্রিসভা গঠন নিয়েই তাদের মধ্যে আলোচনা হয়েছে বলে জানা গেছে। বিভিন্ন সূত্রে জানা গেছে, নতুন মন্ত্রিসভায় অভিজ্ঞতা ও  তারুণ্যের মিশেল ঘটবে। সেই সঙ্গে সঠিক আঞ্চলিক ও জাতপাতের ভারসাম্য বজায় রেখেও মন্ত্রী ঠিক করা হবে।  তবে মন্ত্রিসভার বিগ ফোর বলে পরিচিত অর্থ, স্বরাষ্ট্র, প্রতিরক্ষা ও পররাষ্ট্রমন্ত্রক কার কার হাতে যাবে তা নিয়ে রাজধানীতে নানা জল্পনা চলছে। গত মন্ত্রিসভার অর্থমন্ত্রী অরুন জেটলি প্রধানমন্ত্রীকে চিঠি লিখে স্বাস্থ্যের কারণে তাকে নতুন করে দায়িত্ব না দেয়ার অনুরোধ জানিয়েছেন।  পররাষ্ট্রমন্ত্রী সুষমা স্বরাজও কিডনি বদলের পর বেশি সুস্থ নেই। তিনি এবার নির্বাচনেও প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেন নি। তিনিও মন্ত্রিসভায় থাকতে চাইছেন না। তবে তাকে রেখে দেয়া হতে পারে। এই অবস্থায় অর্থ মন্ত্রকের দায়িত্ব কে পাবেন তা নিয়ে গুঞ্জন চলছে। তবে বিজেপি সভাপতি অমিত শাহ এবারই প্রথম সাংসদ হিসেবে জয়ী হয়েছেন। ফলে তাকে মন্ত্রিসভায় দ্বিতীয় গুরুত্বপূর্ণ পদ দেয়ার সম্ভাবনাই বেশি। সেক্ষেত্রে অমিত শাহকে অর্থমন্ত্রীর পদ দেয়া হতে পারে বলে পর্যবেক্ষকরা মনে করছেন। বিজেপি সূত্রে অবশ্য একে গুজব বলে উড়িয়ে দেয়া হয়েছে।  আগে শোনা গিয়েছিল পীযূষ গোয়েলকে এই পদ দেয়া হতে পারে। পীযূষ এর আগে অর্থমন্ত্রীর দায়িত্ব পালন এবং বাজেট পেশ করেছেন। কিন্তু অমিত শাহকে রাজনাথ সিংকে সরিয়ে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রক দেয়ার কথা ভাবা হচ্ছে না। প্রতিরক্ষামন্ত্রী নির্মলা সীতারমনই থাকবেন না অন্য কেউ আসবেন তা নিয়ে জোর আলোচনা চলছে। নীতিন গড়গড়ির মতো অভিজ্ঞতা সম্পন্নদের পুরনো মন্ত্রকেই রেখে দেয়া হতে পারে। আমেথিতে রাহুল গান্ধীকে হারিয়ে স্মৃতি ইরানি যে কৃতিত্ব দেখিয়েছেন তাকে পুরস্কার হিসেবে গুরুত্বপূর্ণ মন্ত্রক দেয়ার সম্ভাবনাই বেশি বলে জানা গেছে। এদিকে ওড়িশা, পশ্চিমবঙ্গ এবং উত্তর-পূর্ব ভারত থেকে বিজেপি যেভাবে সাফল্য দেখিয়েছে সেখানে এই সব রাজ্যের বেশি সংখ্যক প্রতিনিধিত্ব মন্ত্রিসভায় থাকবে। পশ্চিমবঙ্গকে মোদি ও শাহ যেভাবে গুরুত্ব দিয়ে চলেছেন তাতে এই রাজ্য থেকে ৪ বা ৫ জন মন্ত্রী হতে পারেন। গতবার ২টি আসনে জিতে বাবুল সুপ্রিয় এবং এসএস আলুওয়ালিয়া মন্ত্রী হয়েছিলেন। এবার সেখানে ১৮ জন সাংসদ হয়েছেন রাজ্য থেকে। সূত্রের খবর, গতবারের দুজন ছাড়াও রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ, প্রতিনিধি জন বারলা এবং নারী প্রতিনিধি হিসেবে লকেট চট্টোপাধ্যায় বা দেবশ্রী চৌধুরীকে মন্ত্রী করা হতে পারে।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর