× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনরকমারিপ্রবাসীদের কথাবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা ইলেকশন কর্নার
ঢাকা, ২৬ জুন ২০১৯, বুধবার

ব্যাংকপাড়ায় ঈদের আমেজ, গ্রাহক উপস্থিতি কম

দেশ বিদেশ

অর্থনৈতিক রিপোর্টার | ১০ জুন ২০১৯, সোমবার, ৯:২১

টানা ৫ দিনের ছুটি শেষে গতকাল খুলেছে ব্যাংক-বীমা, শেয়ারবাজারসহ অন্য আর্থিক প্রতিষ্ঠান। সকাল ১০টা থেকে লেনদেন শুরু হয়ে চলে বিকাল ৪টা পর্যন্ত। তবে ব্যাংকে লেনদেনের চাপ ছিল না। গ্রাহকদের ভিড়ও ছিল কম। ঈদের ছুটি শেষে প্রথম দিনে ব্যাংকগুলোতে কমকর্তা ও কর্মচারীদের উপস্থিতিও ছিল কম। যারা এসেছেন কাজের চাপ কম থাকায় গল্প গুজব আর কুশল বিনিময় করে সময় পার করছেন। মতিঝিলের ব্যাংক পাড়া, দিলকুশা, রাজধানীর পল্টন এলাকা ঘুরে দেখা গেছে গ্রাহকদের ভিড় নেই। চিরচেনা প্রাণচাঞ্চল্য ও ব্যস্ততা এখনো অনুপস্থিত।
বাংলাদেশ ব্যাংকেও একই চিত্র। তবে ব্যাংকের অন্য কর্যক্রমের মত লেনদেন কম থাকলেও নগদ টাকা উত্তোলন ও সঞ্চয়পত্রের মুনাফা তুলতে গ্রাহকের ভিড় দেখা গেছে। ডাচ বাংলা ব্যাংকের মতিঝিল শাখায় ভিড় ছিল লক্ষ্য করার মতো। ডাচ বাংলা ব্যাংকের লোকাল শাখার দায়িত্বরত কর্মকর্তা বলেন, ঈদের পর অনেকেই টাকা উঠাতে এসেছেন।  ব্যাংক কর্মকর্তারা জানান, ব্যাংকের বেশিরভাগ কর্মী উপস্থিত থাকলেও প্রথম দিন অন্য কাজের চাপ একেবারেই কম। এনসিসি ব্যাংকের মতিঝিল শাখার দায়িত্বরত কর্মকর্তা জানান, ছুটির আমেজ এখনো পুরোপুরি কাটেনি। যে কারণে লেনদেন কম হচ্ছে। কোনো কোনো ব্যাংকে নগদ টাকা তোলার কাউন্টারে লাইন থাকলেও জমার লাইন ছিল ফাঁকা। তবে পুঁজিবাজারে প্রায় ৩০০ কোটি টাকার লেনদেন হয়েছে।
মতিঝিল সোনালী ব্যাংকের লোকাল অফিসের জেনারেল ম্যানেজার নিজাম উদ্দীন আহম্মেদ চৌধুরী বলেন, ঈদের পর ব্যাংক খুলেছে। প্রায় শতভাগ কর্মী উপস্থিত রয়েছে।
প্রথম দিন অন্য কাজের চাপ না থাকলেও নগদ টাকার লেনদেনের জন্য কাউন্টারগুলোতে গ্রহকের বেশ ভিড় রয়েছে। তিনি বলেন, ঈদের পর বেশিরভাগ গ্রাহক নগদ টাকা তুলতে এসেছেন। এছাড়া সঞ্চয়পত্রের মুনাফা তুলতে সবচেয়ে বেশি ভিড় রয়েছে। তিনি বলেন, এ সপ্তাহে ক্রমান্বয়ে লেনদেন বাড়বে। আগামী সপ্তাহ থেকে স্বাভাবিকভাবে লেনদেন হবে বলে জানান এ ব্যাংক কর্মকর্তা। সোনালী ব্যাংকে সঞ্চয়পত্রের মুনাফা তুলতে আসা আব্দুর রহমান জানান, প্রতি মাসের এক তারিখ সুদের টাকা তুলি। এবার ঈদের কারণে আসতে পারিনি। তাই টাকা তুলতে এসেছি।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর