× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনরকমারিপ্রবাসীদের কথাবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা ইলেকশন কর্নার মন ভালো করা খবর
ঢাকা, ২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৯, সোমবার

পাকুন্দিয়ায় ভাবিকে হত্যার দায়ে দেবরের মৃত্যুদণ্ড

বাংলারজমিন

স্টাফ রিপোর্টার, কিশোরগঞ্জ থেকে | ১১ জুন ২০১৯, মঙ্গলবার, ৮:৩১

 কিশোরগঞ্জের পাকুন্দিয়ায় পারিবারিক কলহের জের ধরে ভাবিকে কুপিয়ে হত্যায় দেবর আজহারুল ইসলাম মিলন (৪৪)কে মৃত্যুদণ্ড দিয়েছেন আদালত। এ ছাড়া আসামিকে পাঁচ লাখ টাকা জরিমানা করা হয়েছে। গতকাল আসামির উপস্থিতিতে কিশোরগঞ্জের অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ প্রথম আদালতের বিচারক মো. আব্দুর রহিম এ রায় ঘোষণা করেন। মৃত্যুদণ্ডে দণ্ডিত আজহারুল ইসলাম মিলন পাকুন্দিয়া উপজেলার পাকুন্দিয়া মধ্যপাড়া পর্দানীপাড়ার মৃত ছায়ামুদ্দিনের ছেলে। অন্যদিকে, নিহত তাছলিমা আক্তার (৪৫) একই উপজেলার ছয়ছির গ্রামের মৃত ফজর আলীর মেয়ে এবং পাকুন্দিয়া মধ্যপাড়া পর্দানীপাড়ার বাবুল মিয়ার স্ত্রী। তিনি তিন সন্তানের জননী ছিলেন।
মামলা ও সংশ্লিষ্ট একাধিক সূত্রে জানা যায়, একটি কাঁথা হারানোকে কেন্দ্র করে দেবর-ভাবির মধ্যে ঝগড়ার জের ধরে ২০১৫ সালের ১৫ই জুন সকাল সাড়ে ১০টার দিকে পাকুন্দিয়া মধ্যপাড়া পর্দানীপাড়ার বাড়িতে ভাবি তাছলিমা আক্তারকে উপর্যুপরি কুপিয়ে গুরুতর আহত করে দেবর আজহারুল ইসলাম মিলন। ভাবিকে কুপিয়ে আহত করার পর পরই দাসহ পাকুন্দিয়া থানায় সে আত্মসমর্পণ করে। আশঙ্কাজনক অবস্থায় তাছলিমাকে পাকুন্দিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যাওয়ার পর সেখান থেকে তাকে ঢাকায় পঙ্গু হাসপাতালে রেফার্ড করা হয়। ঢাকায় পঙ্গু হাসপাতালে নিয়ে যাওয়ার পর বিকাল সাড়ে ৪টার দিকে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর