× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনরকমারিপ্রবাসীদের কথাবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা ইলেকশন কর্নার
ঢাকা, ২৬ জুন ২০১৯, বুধবার
৪০ লাখ টাকা ঘুষ নেয়ার অভিযোগ

দুদক পরিচালক বরখাস্ত

শেষের পাতা

স্টাফ রিপোর্টার | ১১ জুন ২০১৯, মঙ্গলবার, ৯:৩৬

সমালোচিত ও নানা অভিযোগে চাকরি থেকে অব্যাহতি পাওয়া ডিআইজি মিজানুর রহমানের  কাছ থেকে ঘুষ নেয়ার অভিযোগে দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) পরিচালক খন্দকার এনামুল বাছিরকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে।
গতকাল বিকালে দুদকের জনসংযোগ কর্মকর্তা প্রণব কুমার ভট্টাচার্য্য মানবজমিনকে জানান, অবৈধভাবে কমিশনের তথ্য পাচার ও চাকরির শৃঙ্খলা ভঙ্গের অভিযোগে এনামুল বাছিরকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে।

দুদক চেয়ারম্যান ইকবাল মাহমুদ এনামুল বাছিরের বিরুদ্ধে দুর্নীতির অভিযোগে তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে জানিয়ে সাংবাদিকদের বলেন, অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে কমিটি গঠন করা হয়। কমিটির আহ্বায়ক করা হয়েছে দুদকের সচিব মো. দিলওয়ার বখতকে। অন্য সদস্যরা হলেন- মহাপরিচালক (লিগ্যাল) মো. মফিজুর রহমান ভূঞা এবং মহাপরিচালক (প্রশাসন) সাঈদ মাহবুব খান।’
বিতর্কিত ডিআইজি মিজান রোববার একটি বেসরকারি টেলিভিশনে দাবি করেন, তার বিরুদ্ধে অভিযোগের অনুসন্ধান কর্মকর্তা দুদকের পরিচালক খন্দকার এনামুল বাছির তাকে অভিযোগ থেকে রেহাই দেয়ার প্রতিশ্রুতি দিয়ে ৪০ লাখ টাকা ঘুষ নেন এবং বিভিন্ন সময় তার কাছে তদন্তের তথ্য সরবরাহ করেন। এই অভিযোগ ওঠার পর রোববারই দুদক সচিব মুহাম্মদ দিলোয়ার বখতকে প্রধান করে একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে।

সংবাদ সম্মেলনে দুদক চেয়ারম্যান বলেন, এনামুল বাছিরের বিরুদ্ধে যে অভিযোগ, সেটি অসদাচরণ। এতে দুদক বিব্রত নয়। ব্যক্তির দায় প্রতিষ্ঠানের নয়। দুদকের ৮৭৪ জন কর্মীর সততার নিশ্চয়তা কমিশন দিতে পারে না।
এনামুল বাছিরের সঙ্গে ডিআইজি মিজানুর রহমানের কথোপকথন নিশ্চিত হতে অডিও রেকর্ডের ফরেনসিক পরীক্ষা করতে হবে। তা ছাড়া মিজানুর ঘুষ দিয়েছেন প্রমাণিত হলে দুদক মামলা করবে। ডিআইজি মিজানুর ঢাকা মহানগর পুলিশে (ডিএমপি) অতিরিক্ত কমিশনার হিসেবে কর্মরত ছিলেন। গত জানুয়ারির শুরুর দিকে তাকে প্রত্যাহার করে পুলিশ সদর দপ্তরে সংযুক্ত করা হয়। বিয়ে গোপন করতে নিজের ক্ষমতার অপব্যবহার করে দ্বিতীয় স্ত্রী মরিয়ম আক্তারকে গ্রেপ্তার করানোর অভিযোগ উঠেছিল তার বিরুদ্ধে। তখন তার বিরুদ্ধে নারী নির্যাতনের অভিযোগ ওঠে। মিজানুরের বিরুদ্ধে এক সংবাদ পাঠিকাকেও প্রাণনাশের হুমকি এবং উত্যক্ত করার অভিযোগে বিমানবন্দর থানায় সাধারণ ডায়েরি (জিডি) রয়েছে। গত বছরের ৩রা মে অবৈধ সম্পদসহ বিভিন্ন দুর্নীতির অভিযোগে মিজানুরকে দুদকের কার্যালয়ে প্রায় সাত ঘণ্টা জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়। প্রাথমিক অনুসন্ধান প্রতিবেদনে মিজানুর রহমান ও তার প্রথম স্ত্রী সোহেলিয়া আনারের আয়ের সঙ্গে অসংগতিপূর্ণ কোটি টাকারও বেশি সম্পদের খোঁজ পায় দুদক।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর