× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনরকমারিপ্রবাসীদের কথাবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা ইলেকশন কর্নার
ঢাকা, ২৪ জুন ২০১৯, সোমবার

গবেষণায় বরাদ্দ বাড়ানোর তাগিদ নোমানের

অনলাইন

স্টাফ রিপোর্টার | ১২ জুন ২০১৯, বুধবার, ৭:২৭

ইস্ট ডেল্টা ইউনিভার্সিটির গবেষণাখাতে বরাদ্দ বাড়ানোর তাগিদ দিয়েছেন বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রতিষ্ঠাতা ও চেয়ারম্যান আবদুল্লাহ আল নোমান। তিনি বলেছেন, বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রধান কাজ জ্ঞানসৃজন। তাই পাঠদানের পাশাপাশি গবেষণায় মনোনিবেশ বাড়াতে হবে ফ্যাকাল্টি মেম্বারদের। একই সাথে শিক্ষার্থীদের মধ্যে আগ্রহ সৃষ্টির মাধ্যমে তাদেরকে গবেষক হিসেবে গড়ে তুলতে হবে। ইডিইউকে গবেষণা নির্ভর বিশ্ববিদ্যালয়ে পরিণত করতে গবেষণাখাতে বরাদ্দ বাড়ানোর মাধ্যমে অবদান রাখতে হবে। সম্প্রতি ইস্ট ডেল্টা ইউনিভার্সিটি (ইডিইউ) ক্যাম্পাসে বিশ্ববিদ্যালয়ের ১০ম সিন্ডিকেট সভায় এসব কথা বলেন তিনি।

ভিসি প্রফেসর মু. সিকান্দার খানের সভাপতিত্বে সভায় অন্যদের মধ্যে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রতিষ্ঠাতা ভাইস চেয়ারম্যান সাঈদ আল নোমান, কোষাধ্যক্ষ  প্রফেসর সামস উদ-দোহা, রেজিস্ট্রার সজল কান্তি বড়ুয়া, ইউজিসি প্রতিনিধি প্রফেসর ড. সুলতান আহমদ, অ্যাকাডেমিক কাউন্সিল প্রতিনিধি আবদুল মালেক, প্ল্যানিং অ্যান্ড ডেভলপমেন্ট ডিরেক্টর শাফায়েত কবির চৌধুরী, স্কুল অব ইঞ্জিনিয়ারিংয়ের অ্যাসোসিয়েট ডিন ড. মো. নাজিম উদ্দিন ও স্কুল অব লিবারেল আর্টসের অ্যাসোসিয়েট ডিন মুহাম্মদ শহিদুল ইসলাম চৌধুরী অংশ নেন।

শিক্ষার্থীদের রাইটিংয়ের ক্ষেত্রে নকল প্রবণতা রোধের মাধ্যমে রচনাক্ষমতা উন্নয়নে সহায়তা করতে ইস্ট ডেল্টা ইউনিভার্সিটিতে প্রণয়ন করা হচ্ছে ইন্টারনেট ভিত্তিক প্লেজিয়ারিজম ডিটেকশন সফটওয়্যার টার্নইটইন।
শিক্ষার্থীদের মধ্যে মৌলিক গবেষণার মানসিকতা সৃষ্টিতেই এ উদ্যোগ নেয়া হয়েছে বলে জানান ইডিইউর প্রতিষ্ঠাতা ভাইস চেয়ারম্যান সাঈদ আল নোমান। তিনি বলেন, শিক্ষার্থীদের মান উন্নত করাই ইডিইউর লক্ষ্য। তাই সূচনালগ্ন থেকেই আমরা বিশ্বের উন্নত বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে ব্যবহৃত সবরকমের আধুনিক সুযোগ-সুবিধা ইডিইউতে যুক্ত করার চেষ্টা করেছি। সাঈদ আল নোমানের আগ্রহে নেয়া এ উদ্যোগটির ভূয়সী প্রশংসা করা হয় সিন্ডিকেটের সভায়।
এছাড়া, চট্টগ্রামের বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর মধ্যে ইস্ট ডেল্টা ইউনিভার্সিটিতে প্রথমবারের মতো মাস্টার অব পাবলিক পলিসি অ্যান্ড লিডারশিপ প্রোগ্রাম চালু করা একটি যুগোপযোগী সিদ্ধান্ত বলে মত দেয় সিন্ডিকেট। এ সময় মাস্টার্স প্রোগ্রামটিকে আন্তর্জাতিক প্রেক্ষাপটে দাঁড় করানো এবং শুধু বাংলাদেশি নয়, বিদেশের বিশ্ববিদ্যালয়ের ফ্যাকাল্টি মেম্বারদের দিয়ে পড়ানোর বিষয়ে আলোচনা হয়। সভায় স্থায়ী ক্যাম্পাসের জন্য জমি ব্যবহারের সুযোগ দেয়ায় প্রতিষ্ঠাতা ও বিশ্ববিদ্যালয়ের চেয়ারম্যান আবদুল্লাহ আল নোমানকে সিন্ডিকেটের পক্ষ থেকে ধন্যবাদ জানানো হয়।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর