× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনরকমারিপ্রবাসীদের কথাবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা ইলেকশন কর্নার মন ভালো করা খবর
ঢাকা, ১৭ অক্টোবর ২০১৯, বৃহস্পতিবার

বিশ্বকাপ বাছাইয়ের মূল পর্বে বাংলাদেশের প্রতিপক্ষ কারা?

খেলা

স্পোর্টস রিপোর্টঅর | ১৩ জুন ২০১৯, বৃহস্পতিবার, ৯:৪৪

প্রাক বাছাই পর্ব উতরে ২০২২ কাতার বিশ্বকাপের এশিয়া অঞ্চলের বাছাইয়ের মূল পর্বে জায়গা করে নিয়েছে বাংলাদেশ। এশিয়ার র‌্যাঙ্কিংয়ের ৩৫-৪৬ পর্যন্ত থাকা দেশগুলোকে নিয়ে অনুষ্ঠিত হয়েছে প্রথম পর্ব। এই ছয় ম্যাচের জয়ী দল প্রথম ৩৪ দলের সঙ্গে মিলে আট গ্রুপে ভাগ হয়ে অংশ নেবে দ্বিতীয় পর্বের বাছাইয়ে। প্রথম থেকে দ্বিতীয় পর্বের উত্তরণে বাংলাদেশের সঙ্গী হয়েছে ব্রুনাই, কম্বোডিয়া, গুয়াম ও মালয়েশিয়া। ফিফার র‌্যাঙ্কিংয়ে এই ছয় দলের মধ্যে বাংলাদেশের চেয়ে পেছনে আছে কেবল গুয়াম। ভূটানকে উড়িয়ে দিয়ে দ্বিতীয় পর্বে জায়গা পেয়েছে তারা। প্রথম লেগে জিতেও নিরাপত্তার কারণে শ্রীলঙ্কায় খেলতে না যাওয়া ম্যাকাওয়ের ভাগ্য আছে ঝুলে। ম্যাকাও খেলতে অস্বীকৃতি জানানোয় ফিফার নিয়ম অনুযায়ী শ্রীলঙ্কারই উঠে যাওয়ার কথা দ্বিতীয় পর্বে।
তবে সিদ্ধান্তের জন্য অপেক্ষা করতে হবে আরও কিছুদিন।
বাছাই পর্বের দ্বিতীয় রাউন্ড (৪০ দল)
এশিয়া থেকে নিয়মিত বিশ্বকাপ খেলা ইরান, সৌদি আরব, জাপান, অস্ট্রেলিয়া, দক্ষিণ কোরিয়া- সবাই আছে এখানে। ৪০ দেশের এই ড্র অনুষ্ঠিত হবে আগামী ১৭ই জুলাই, কাতারে। প্রতিটি গ্রুপের দলগুলো একে অন্যের বিপক্ষে হোম অ্যান্ড অ্যাওয়ে লেগের ভিত্তিতে খেলবে। বর্তমান র‌্যাঙ্কিং অনুযায়ী ইরান, জাপান, দক্ষিণ কোরিয়া, অস্ট্রেলিয়া, কাতার, আরব আমিরাত, সৌদি আরব ও চীন- এই আট দেশের যে কোনো একটি নিশ্চিতভাবে থাকবে বাংলাদেশের গ্রুপে। বাকি চারটি দেশের নাম জানা যাবে ড্রয়ের পর। স্বাগতিক দেশ হিসেবে কাতারের এবার বিশ্বকাপ খেলা নিশ্চিত। এশিয়া থেকে সরাসরি বিশ্বকাপে অংশ নেবে আরও চার দেশ। দ্বিতীয় রাউন্ডের আট গ্রুপের শীর্ষ আট দল ও শীর্ষ চার রানার্সআপকে নিয়ে হবে বিশ্বকাপের তৃতীয় রাউন্ডের বাছাইপর্ব।
তৃতীয় রাউন্ড (১২ দল)
তৃতীয় রাউন্ড নিশ্চিত করা ১২ দল দুই গ্রুপে ভাগ হবে। অর্থাৎ, প্রত্যেক গ্রুপে থাকা ৬ দল একে অন্যের সঙ্গে দুটি করে ম্যাচ খেলবে ( হোম অ্যান্ড অ্যাওয়ে)। এরপর দুই গ্রুপের শীর্ষ দুই দল ( মোট ৪ দল) পেয়ে যাবে কাতার বিশ্বকাপের টিকিট। সংখ্যাটি ৫ হতে পারে, তবে সেজন্য আন্তঃমহাদেশীয় প্লে অফ জিততে হবে। যদিও কাতার এবারের বিশ্বকাপের আয়োজক হওয়ায় দলের সংখ্যা ৬ হওয়ার সম্ভাবনাও থাকছে। সুযোগ থাকবে দুই গ্রুপের তৃতীয় হওয়া দুই দলেরও। বিশ্বকাপে খেলার আশা বাঁচিয়ে রাখতে তারা মুখোমুখি হবে চতুর্থ রাউন্ডে।
চতুর্থ রাউন্ড (২ দল)
তৃতীয় রাউন্ডে দুই গ্রুপের তৃতীয় হওয়া দল দুটি মুখোমুখি হবে। হোম অ্যান্ড অ্যাওয়ে ভিত্তিতে খেলা দুই ম্যাচের ফল পক্ষে এলেও অবশ্য বিশ্বকাপ নিশ্চিত হবে না। তবে আশা বেঁচে থাকবে। চতুর্থ রাউন্ডে জয়ী দলকে চূড়ান্ত পরীক্ষার জন্য আন্তঃমহাদেশীয় প্লে অফে নামতে হবে।
আন্তঃমহাদেশীয় প্লে অফ (২ দল)
চতুর্থ রাউন্ডে জয়ী দল আন্তঃমহাদেশীয় প্লে অফে উত্তর ও মধ্য আমেরিকা (কনকাকাফ) অঞ্চলের বাছাইয়ের পয়েন্ট টেবিলের চতুর্থ দলের মুখোমুখি হবে। দুই লেগের এই খেলায় জয়ী দল নিশ্চিত করবে বিশ্বকাপ।
এশিয়ান কাপ বাছাই পর্ব
বাস্তবতা বলছে এখানে বাংলাদেশের থাকার সম্ভাবনা প্রায় অসম্ভবের কাছাকাছি। বাছাইয়ের শীর্ষ ১২ দলই সরাসরি জায়গা করে নেবে পরের এশিয়া কাপে। সেখানে সুযোগ না পেলেও একেবারে খালি হাতে ফিরতে হবে না বাংলাদেশকে। লাওসের বিপক্ষে জয়ের মাহাত্ম্যটা এখানেই। বিশ্বকাপ বাছাইয়ের সঙ্গে এটা ২০২৩ চীন এশিয়া কাপেরও বাছাইপর্ব। দ্বিতীয় রাউন্ডের বাছাইপর্বে অন্তত আগামী দেড় বছরে আটটি ম্যাচ খেলার সুযোগ হবে বাংলাদেশের। গ্রুপের একেবারে তলানীতে শেষ করলেও এশিয়া কাপে বাছাই করার সুযোগ তখনও থাকবে বাংলাদেশের সামনে। আট গ্রুপের চতুর্থ হওয়া সেরা চার দল অংশ নেবে তৃতীয় রাউন্ডের এশিয়া কাপ বাছাই পর্বে। আর বাকি চার চতুর্থ হওয়া দল  ও পঞ্চম হওয়া দলগুলো একে অপরের বিপক্ষে খেলবে এশিয়া কাপের বাছাই পর্বের প্লে-অফে। তাই আর যাই হোক, বাংলাদেশকে আপাতত আগামী বিশ্বকাপের আগ পর্যন্ত আন্তর্জাতিক ফুটবলের অভাবে ভুগতে হচ্ছে না।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর