× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনরকমারিপ্রবাসীদের কথাবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা ইলেকশন কর্নার
ঢাকা, ১৬ জুলাই ২০১৯, মঙ্গলবার

ওসি মোয়াজ্জেমকে গ্রেপ্তারে গাফিলতি নেই: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

দেশ বিদেশ

স্টাফ রিপোর্টার | ১৬ জুন ২০১৯, রবিবার, ৯:২৩

ফেনীর সোনাগাজীর মাদরাসা শিক্ষার্থী নুসরাত জাহানকে আপত্তিকর প্রশ্নের ভিডিও ধারণ ও ছড়িয়ে দেয়ার অভিযোগে ওই থানার সাবেক ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোয়াজ্জেম হোসেনের গ্রেপ্তারে পুলিশের কোনো গাফিলতি নেই বলে জানিয়েছেন স্বরাষ্ট্র্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল। গতকাল শনিবার দুুপুরে জাতীয় জাদুঘরে এক অনুষ্ঠানে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে এ কথা জানান মন্ত্রী। মাদরাসা অধ্যক্ষ সিরাজ উদ দৌলার নির্দেশে নুশরাত জাহান রাফিকে গায়ে কেরোসিন ঢেলে পুড়িয়ে হত্যা করে অধ্যক্ষের অনুসারীরা। এ হত্যাকাণ্ডের আগে রাফি অধ্যক্ষের বিরুদ্ধে যৌন হয়রানির অভিযোগ আনেন। এর প্রতিকার চেয়ে ওসি মোয়াজ্জেমের কার্যালয়ে গিয়েছিলেন রাফি। তখন ওসি রাফিকে আপত্তিকর প্রশ্ন করে নিজের মোবাইলে তা ধারণ করে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে দেন। এ ঘটনায় তার বিরুদ্ধে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মামলা হওয়ার পর থেকে লাপাত্তা হয়ে যান ওসি মোয়াজ্জেম। ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের পরোয়ানাভুক্ত আসামি মোয়াজ্জেমকে গ্রেপ্তারে পুলিশের কোনো গাফিলতি আছে কি না-এমন প্রশ্নের জবাবে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, এতে পুলিশের কোনো গাফিলতি নেই।
তিনি আরো বলেন, ওসি মোয়াজ্জেম হোসেন আত্মগোপনে থাকায় তার গ্রেপ্তারে দেরি হচ্ছে। তবে ওসি যেকোনো সময় গ্রেপ্তার হবেন বলেও সাংবাদিকদের জানান মন্ত্রী। পুলিশকে লক্ষ্য করে মালিবাগ ও গুলিস্তানে হামলার ঘটনার বিষয়ে মন্ত্রী বলেন, দুটি ঘটনার তদন্ত চলছে। প্রায় গুছিয়ে এনেছি আমরা। শিগগিরই এ ব্যাপারে সবাইকে জানানো হবে।
উল্লেখ্য, যৌন হয়রানির অভিযোগে সোনাগাজী ইসলামিয়া সিনিয়র ফাজিল মাদরাসার অধ্যক্ষ সিরাজ উদ দৌলার বিরুদ্ধে মামলার পর গত ২৭শে মার্চ নুসরাতকে থানায় ডাকেন ওসি মোয়াজ্জেম। থানায় জিজ্ঞাসাবাদের সময় নুসরাতকে আপত্তিকর প্রশ্ন করেন, যা পরে তিনি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে দেন। এরপর গত ৬ই এপ্রিল সকালে আলিম পরীক্ষা দিতে মাদরাসায় গেলে নুসরাতের শরীরে আগুন ধরিয়ে দেয় অধ্যক্ষের অনুসারীরা। ১০ই এপ্রিল রাতে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের বার্ন ইউনিটে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান নুসরাত। সোনাগাজী থানার তৎকালীন ওসি মোয়াজ্জেম হোসেনের বিরুদ্ধে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মামলা দায়ের করেন সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী ব্যারিস্টার সায়েদুল হক সুমন। এই মামলায় গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি হওয়ার পর থেকে গা ঢাকা দেন মোয়াজ্জেম। ওসি যেন বিদেশে পালিয়ে যেতে না পারে সেজন্য এরই মধ্যে দেশের বিমানবন্দর ও স্থলবন্দরগুলোতেও নজরদারি বাড়ানো হয়েছে।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর