× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনরকমারিপ্রবাসীদের কথাবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা ইলেকশন কর্নার
ঢাকা, ১৬ জুলাই ২০১৯, মঙ্গলবার

ওসি মোয়াজ্জেম গ্রেপ্তার

অনলাইন

স্টাফ রিপোর্টার | ১৬ জুন ২০১৯, রবিবার, ৩:৪৯

ফেনীর সোনাগাজী থানার সাবেক ওসি মোয়াজ্জেম হোসেনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের মামলায় বিকালে শাহবাগ থেকে তাকে গ্রেপ্তার করা হয়। মাদরাসাছাত্রী নুসরাত জাহান রাফিকে আপত্তিকর প্রশ্ন করে এবং তা ভিডিও ধারণ করে সামাজিক মাধ্যমে ছড়ানোর অভিযোগে ওসি মোয়াজ্জেমের বিরুদ্ধে তথ্য প্রযুক্তি আইনে মামলাটি করেন ব্যারিস্টার সৈয়দ সাইয়েদুল হক সুমন। এ মামলায় তাঁর বিরুদ্ধে ২৭শে মে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করেন আদালত।

মাদরাসা ছাত্রী নুসরাত জাহানকে গত ৬ই এপ্রিল পুড়িয়ে হত্যার  চেষ্টা করা হয়। ১০ ই এপ্রিল ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার মৃত্যু হয়।

হত্যা চেষ্টার কয়েক দিন আগে মাদরাসার অধ্যক্ষ সিরাজ-উদ দৌলার বিরুদ্ধে যৌন হয়রানির অভিযোগ জানাতে সোনাগাজী থানায় যান নুসরাত। থানার তৎকালীন ওসি মোয়াজ্জেম হোসেন সে সময় নুসরাতকে আপত্তিকর প্রশ্ন করে বিব্রত করেন এবং তা ভিডিও করে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে দেন।
ওই ঘটনায় ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মামলা হলে আদালতের নির্দেশে সেটি তদন্ত করে পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই)। গত ২৭ মে পিবিআই আদালতে অভিযোগপত্র জমা দিলে ওই দিনই গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি হয়। পরোয়ানা জারির দুইদিন পর মোয়াজ্জেম হোসেন হাইকোর্টে জামিন আবেদন করেন। এর পর থেকেই তিনি লাপাত্তা ছিলেন।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
পাঠকের মতামত
**মন্তব্য সমূহ পাঠকের একান্ত ব্যক্তিগত। এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।
রিপন
১৬ জুন ২০১৯, রবিবার, ১০:৪১

সেই গ্রেপ্তারই যখন করলে এতদিন ধরে খামাখা কেন অত নাটক টালবাহানা করলে? বহু আগেই গ্রেপ্তার করতে পারতে। সেই সক্ষমতা বাংলাদেশ পুলিসের ছিল। ওপরওয়ালাদের তরফে গ্রিন সিগন্যাল ছিল না। পুলিশের হাত পা বন্ধক রেখে দেয়া হয়েছে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে। বাজে অ-সভ্য সিসটেম নিঃসন্দেহে। দেড় বছর আগেই পুলিস ডিআইজি মিজানের বিরুদ্ধে তথ্য দিয়েছিল, তবুও স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় ছাতা ধরে রয়েছে মিজানের ওপর। তাই মিজান আজও বহাল স্বপদে। মোয়াজ্জেমের ওপরেও ছাতা মেলে রেখেছিল এতদিন। কিন্তু দিন দিন ঘটনাটি যেরকম বেয়াড়া প্রচার পেয়ে চলছিল জগতজুড়ে, বিদেশিরা পর্যন্ত অফিসিয়ালি প্রশ্ন তুলে ফেলেছে নুসরাত হত্যার বিচারের অগ্রগতির বিষয়ে, - তাতে গ্রেপ্তার না করে উপায় ছিল না, তাই নিতান্ত অনিচ্ছাসত্ত্বেও গ্রিন সিগন্যাল দেয় পুলিসকে এবং সেই মোতাবেক গ্রেপ্তার করা হয় মোয়াজ্জেমকে। এই গ্রেপ্তারটি, পুলিসের কাজের স্বাধীনতা থাকলে, বহু আগেই হয়ে যেত।

অন্যান্য খবর