× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনরকমারিপ্রবাসীদের কথাবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা ইলেকশন কর্নার মন ভালো করা খবর
ঢাকা, ১৫ অক্টোবর ২০১৯, মঙ্গলবার

আওয়ামী লীগ জিতলেও পরাজিত হয়েছে গণতন্ত্র:ফখরুল

অনলাইন

ঠাকুরগাঁও প্রতিনিধি | ১৭ জুন ২০১৯, সোমবার, ৪:৩৩

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগ জিতলেও পরাজিত হয়েছে গণতন্ত্র বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। আজ সোমবার সকালে ঠাকুরগাঁওয়ের হরিপুর উপজেলা বিএনপি কার্যালয়ে আয়োজিত এক কর্মীসভায় তিনি এসব কথা বলেন। তিনি বলেন, এ সরকার রাষ্ট্রযন্ত্রকে ব্যবহার করে ক্ষমতাকে কুক্ষিগত করে রেখেছে। কিন্তু আমরা ব্যালটে বিশ্বাস করি। অবস্থা বিচার করে আমরা ভোটে অংশ নিয়েছিলাম। এই বারের কারচুপির নির্বাচনে আওয়ামী লীগ জিতেছে কিন্তু গণতন্ত্র পরাজিত হয়েছে। মির্জা আলমগীর বলেন, একাদশ নির্বাচনের মাধ্যমে গঠিত বর্তমান সংসদ একটি অবৈধ সংসদ। এই সংসদের সদস্যরা জনগণের ভোটে নির্বাচিত হয়নি।
এই নির্বাচনের মাধ্যমে জনগণের ভোট ডাকাতি করা হয়েছে। দুর্ভাগ্য আমাদের যে আমরা জনগণের অধিকার রক্ষা করতে পারিনি। বিএনপি মহাসচিব বলেন, এবার হাজার হাজার কোটি টাকা ঋণ নিয়ে বাজেট প্রণয়ন করা হয়েছে। এসব টাকা লুটেরাদের পকেটে যাবে। ধনিরা আরো ধনি হবে। গরীবরা আরো গরীব হবে। এবারের বাজেটের আয়ের বেশিরভাগ অর্থ যাচ্ছে সরকারের কর্মকর্তা-কর্মচারিদের বেতন ভাতায়। তাদের গাড়ি, অনুদানসহ সুযোগ সুবিধা বাড়ানো হয়েছে। কিন্তু কৃষকদের কথা ভাবা হয়নি। তাই সাধারণ মানুষের মুখে হাসি নেই। কারণ বড়লোকদের জন্য যে বাজেট, তাতে তারা ঋণ করে আরো বড়লোক হবে। এ থেকে মানুষকে মুক্ত করতে হবে। মানুষকে সকল অন্যায়-অবিচার থেকে রক্ষা করতে হবে।

তিনি আরো বলেন, আওয়ামী লীগ জনবিচ্ছিন্ন দল হয়ে পড়েছে। সরাসরি একদলীয় শাসন কায়েম না করে সংসদকে ব্যবহার করে একদলীয় ব্যবস্থা চালাচ্ছে। কথায় কথায় বলা হয় ন্যায় বিচার কিন্তু কোথায় ন্যায় বিচার? দেশে আজ অরাজকতা, সমাজে বিশৃঙ্খলা, খুন, ধর্ষণ আর ত্রাসের রাজত্ব কায়েম হয়েছে। বন্দুক আর বুটের নিষ্পেশন দিয়ে দেশ শাসন করা যায় না। তাই বিএনপি আন্দোলনের মধ্য দিয়ে নিরপেক্ষ ও তত্ত্বাবধারক সরকারের অধীনে আবারো নির্বাচন আদায় করে নেবে।

নেতাকর্মীদের উদ্দেশ্যে তিনি বলেন, হতাশ হলে চলবে না। আন্দোলনে জিতবার জন্য মাঝে মাঝে পিছিয়ে আসতে হয়। ইনশাল্লাহ্ আমরা তৃণমূলের রাজনীতি আরো জোরদার করবো। আমাদের ছাত্রদল, যুবদল, কৃষকদলসহ সকল অঙ্গসংগঠনের কর্মীদের নিয়ে দেশনেত্রী খালেদা জিয়াকে আইনের মাধ্যমে মুক্ত করে আনবো। ভোট, ব্যালট ছাড়া আমাদের কোন অস্ত্র নেই। আমরা নিয়মতান্ত্রিক আন্দোলনে বিশ্বাসী। তাই অবিলম্বে নিরোপেক্ষ নির্বাচন দিতে হবে। আমাদের দাবী নির্দলীয় সরকারের অধীনে নির্বাচন দিতে হবে।

যৌথ কর্মী সভায় ঠাকুরগাঁও জেলা বিএনপি’র সভাপতি তৈমুর রহমান, জেলা বিএনপি নেতা মো. আসগর আলী, আব্দুল্লা আল মামুন, সুলতানুল ফেরদৌস নম্র, আনছারুল ইসলাম, শরিফ আহমেদ প্রমুখ বক্তব্য রাখেন। এছাড়া উপস্থিত ছিলেন- জেলা যুবদল সাধারণ সম্পাদক মাহবুবুর রহমান তুহিন, জেলা ছাত্রদল সভাপতি কায়েসসহ হরিপুর উপজেলা ছাত্রদল, যুবদল, কৃষকদলের বিভিন্ন স্তরের শত শত নেতাকর্মীরা।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
পাঠকের মতামত
**মন্তব্য সমূহ পাঠকের একান্ত ব্যক্তিগত। এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।
আমির
১৭ জুন ২০১৯, সোমবার, ৭:১০

আপনার কথা ১০০% সত্য তবে জোর যার ক্ষমতা তার

অন্যান্য খবর