× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনরকমারিপ্রবাসীদের কথাবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা ইলেকশন কর্নার
ঢাকা, ১৬ জুলাই ২০১৯, মঙ্গলবার

গঙ্গাচড়ায় ভাবির শরীরে গরম পানি ৬ দিনেও গ্রেপ্তার হয়নি দেবর-জা

বাংলারজমিন

গঙ্গাচড়া (রংপুর) প্রতিনিধি | ১৮ জুন ২০১৯, মঙ্গলবার, ৮:২৯

রংপুরের গঙ্গাচড়ায় ভাবিকে গরম পানিতে ঝলসে দেয়ার ঘটনায় মামলার ৬ দিনেও আসামি দেবর তারিক মিয়া ও জা আমেনা বেগমকে গ্রেপ্তার করতে পারেনি পুলিশ।
এদিকে রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের বার্ণ ও সার্জারি বিভাগের আইসিইউতে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মৃত্যুর সঙ্গে লড়াই করছেন সাবিনা।
মামলা ও ভুক্তভোগীর পরিবার জানায়, উপজেলার লক্ষীটারী ইউনিয়নের পূর্ব মান্দ্রাইন গ্রামের আবুল কাশেমের ছেলে গোলাম রব্বানী ও তারিক মিয়া দু-ভাইয়ের মধ্যে জমিজমা সংক্রান্ত বিরোধ চলে আসছে দীঘদিন থেকে। গোলাম রব্বানী জীবিকার তাগিদে ঢাকায় থাকার সুযোগে তারিক ও তার স্ত্রী আমেনা বেগম প্রায় সময় রব্বানীর বিভিন্ন প্রজাতির গাছপালার ক্ষতিসাধন করে। রব্বানীর স্ত্রী সাবিনা বেগম বাধা দিলে তাকে বিভিন্ন রকম হুমকি দেয়।
গত ১১ই জুন মঙ্গলবার সকালে তারিক ও তার স্ত্রী আমেনা রব্বানীর গাছপালা ক্ষতি করতে থাকলে সাবিনা বেগম বাধা দেয়। এতে দেবর তারিক ও জা আমেনা ক্ষিপ্ত হয়ে সাবিনাকে মার ডাং করলে সে মাটিতে পড়ে যায়। এ সুযোগে জা আমেনা বেগম চুলায় থাকা প্রচণ্ড গরম পানি এনে সাবিনা মুখ ও শরীরে ঢেলে দেয়।
ফলে সাবিনার মুখ-বুক ঝলসে যায়।
তাকে গুরুতর অবস্থায় স্থানীয়দের সহযোগিতায় ভগ্নিপতি নুর ইসলাম রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে বার্ণ ও সার্জারি বিভাগে চিকিৎসার জন্য ভর্তি করায়।
বর্তমানে সাবিনা ওই বিভাগের আইসিইউতে চিকিৎসাধীন রয়েছে। ঘটনার দিনেই সাবিনা বাদী হয়ে জা আমেনা ও দেবর তারিককে আসামি করে ভগ্নিপতি নূর ইসলামের মাধ্যমে গঙ্গাচড়া মডেল থানায় মামলা দায়ের করেন।
ঘটনার পর থেকে আসামিরা পলাতক থাকায় মামলার ৬ দিনেও পুলিশ তাদের গ্রেপ্তার করতে পারেনি।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর