× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনরকমারিপ্রবাসীদের কথাবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা ইলেকশন কর্নার
ঢাকা, ২৩ জুলাই ২০১৯, মঙ্গলবার
শেষ ধাপের উপজেলা নির্বাচন

নিরুত্তাপ ভোটেও সংঘর্ষ ইভিএম লুট, বর্জন

শেষের পাতা

বাংলারজমিন ডেস্ক | ১৯ জুন ২০১৯, বুধবার, ১০:০০

পঞ্চম ধাপের ১৬ ও স্থগিত ৫ উপজেলা নির্বাচন গতকাল অনুষ্ঠিত হয়েছে। আগের চতুর্থ ধাপের মতো শেষ ধাপের নিরুত্তাপ এই ভোটেও সংঘর্ষ, ইভিএম মেশিন ভাঙচুর, লুট, জাল ভোট, নৌকা ও বিদ্রোহী প্রার্থীদের ভোট বর্জনের ঘটনা ঘটেছে। ব্রাহ্মণবাড়িয়ার বিজয়নগরে ভোটগ্রহণ চলাকালে একটি কেন্দ্রে ইভিএম মেশিন ভাঙচুর ও যন্ত্রাংশ লুটপাটের ঘটনা ঘটে । এর জের ধরে স্বতন্ত্র প্রার্থীর বাড়িতে হামলা হয়। সিরাজগঞ্জের কামারখন্দে দুই চেয়ারম্যান প্রার্থীর সমর্থকদের মধ্যে সংঘর্ষ হয়। ফেনীর ছাগলনাইয়ায় জালভোট দেয়ার অভিযোগে ৭ জনকে আটক করা হয়। পটুয়াখালীর রাঙ্গাবালীতে ভোটকেন্দ্রে মোবাইল নিয়ে প্রবেশ করায় নৌকার এজেন্টসহ ৫ জনকে আটক করা হয়। এদিকে রাজবাড়ীর কালুখালী উপজেলায় কারচুপির অভিযোগ এনে ভোট বর্জন করেছেন আওয়ামী লীগ সমর্থিত প্রাথী কাজী সাইফুল ইসলাম।
এছাড়া একই অভিযোগে গাজীপুর সদর উপজেলায় স্বতন্ত্র প্রার্থী মো. ইজাদুর রহমান মিলন  চৌধুরী ও  শায়েস্তাগঞ্জ উপজেলায় স্বতন্ত্র প্রার্থী আলী আহমদ খান ভোট বর্জন করেন। ওদিকে খুলনার ডুমুরিয়া উপজেলা নির্বাচনে কর্তব্যরত এসআই নাজমুল হকের পিস্তল ও ১২ রাউন্ড গুলি খোয়া গেছে। এ ঘটনার সঙ্গে জড়িত থাকার অভিযোগে স্কুলের দপ্তরী সন্দিপ কুমার রাহা (৩৪) ও একই এলাকার এক রাজমিস্ত্রির সহকারী বুলবুল খা (২০)কে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

স্টাফ রিপোর্টার, ব্রাহ্মণবাড়িয়া/বিজয়নগর প্রতিনিধি জানান, ব্রাহ্মণবাড়িয়ার বিজয়নগর উপজেলা পরিষদ নির্বাচনের ভোটগ্রহণ চলাকালে একটি কেন্দ্র থেকে ইভিএম ভাঙচুর ও এর যন্ত্রাংশ লুট করে নেয়ার ঘটনা ঘটে। এ ছাড়া অন্য আরো একটি কেন্দ্রের বাইরে দু’পক্ষের সংঘর্ষে ৮ জন আহত হয়। এ ঘটনার জের ধরে পরবর্তীতে হামলা হয়েছে এক স্বতন্ত্র প্রার্থীর বাড়িতে।

সূত্র জানায়, সকাল ৯টা থেকে উপজেলার ৬৩ কেন্দ্রের সবক’টিতে ইভিএম পদ্ধতিতে ভোটগ্রহণ শুরু হয়। ভোট চলাকালে দুপুরে  চান্দুরা ইউনিয়নের সাতগাঁও মডেল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়কেন্দ্র থেকে ইভিএমের সঙ্গে সংযুক্ত একটি মনিটর ভাঙচুর এবং চারটি মনিটর লুটে নেয়া হয়। এ ঘটনায় প্রায় এক ঘণ্টা ভোটগ্রহণ বন্ধ থাকে। নাম না প্রকাশ করার শর্তে ওই কেন্দ্রের এক এজেন্ট জানান, স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান প্রার্থী নাছিমা মুকাই আলীর ঘোড়া প্রতীকে বেশি ভোট পড়ছে বুঝতে পেরে নৌকা প্রতীকের এজেন্টরা হঠাৎ করে আক্রমণ চালায়। এ কেন্দ্রের প্রিজাইডিং কর্মকর্তা নূর মাহমুদ জানান, দুপুরে হঠাৎ করে কয়েকজন বুথে আক্রমণ করে। এ সময় তারা ইভিএমের সঙ্গে সংযুক্ত একটি মনিটর ভাঙচুর করে চারটি মনিটর লুটে নিয়ে যায়। ঘটনার খবর পেয়ে ভোটকেন্দ্রে ছুটে আসেন জেলা প্রশাসক হায়াত-উদ-দৌলা খান ও পুলিশ সুপার আনোয়ার হোসেন খানসহ অন্য কর্মকর্তারা। দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে পত্তন ইউনিয়নের বড়পুকুর পাড় সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়কেন্দ্রে বহিরাগত নৌকার সমর্থক ও এলাকার ঘোড়া প্রতীকের সমর্থকদের মধ্যে মারামারির ঘটনা ঘটে। এসময় পুলিশ কনস্টেবল রিপন মোদক,  জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি মাসুম বিল্লাহ, সাবেক ভিপি হাসান সারোয়ার সহ ৭/৮ জন আহত হন। আহতরা জেলা সদর হাসপাতালে চিকিৎসা নেন। তবে ভিপি হাসান সারোয়ারকে ঢাকায় প্রেরণ করা হয় উন্নত চিকিৎসার জন্য। এ ঘটনার জেরে স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান প্রার্থী নাছিমা মুকাই আলীর জেলা শহরের বাসভবনে একদল দুর্বৃত্ত হামলা চালিয়ে ভাঙচুর করে।  এসময় দুর্বৃত্তরা ২টি জিপ, একটি প্রাইভেটকার ও মোটরসাইকেলের ব্যাপক ভাঙচুর করে। ওই ভবনের ভাড়াটিয়া জাহাঙ্গীর নামে এক পুলিশ কর্মকর্তার একটি মোটরসাইকেলেও অগ্নিসংযোগ করা হয়। এ ছাড়া হামলাকারীরা ২টি মোটরসাইকেল লুট করে নিয়ে যায় বলেও অভিযোগ করেন ভবনের বাসিন্দারা। স্থানীয়রা জানায়, দুপুর প্রায় সোয়া দুইটার দিকে নাছিমা মুকাই আলীর স্বামী লুৎফুর রহমানের মালিকানাধীন এলআর টাওয়ারে ৫০/৬০ জনের দুর্বৃত্ত দল হামলা চালায়। দুর্বৃত্তরা বাসভবনের ফটক ভেঙে ভেতরে প্রবেশ করে নিচতলা ও দোতলায় ব্যাপক ভাঙচুর চালায়। পরে ভবনের আন্ডারগ্রাউন্ডে পার্কিং এলাকায় রাখা গাড়ি ভাঙচুর করে। খবর পেয়ে সদর ও ডিবি পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে। পরে ফায়ার সার্ভিসের লোকজন এসে আগুন নিয়ন্ত্রণে আনে। নাছিমা মুকাই আলী অভিযোগ করেন আওয়ামী লীগ প্রার্থী তানভীর ভূঁইয়ার লোকজন আমার বাড়িতে এ হামলা চালিয়েছে। পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে ৩টি রামদা, ২টি চাপাতিসহ বিভিন্ন অস্ত্র উদ্ধার করেছে। এ ঘটনায় ৫ জনকে আটক করেছে পুলিশ।
এ ছাড়া বিজয়নগর উপজেলা পরিষদ নির্বাচনের বাকি কেন্দ্রগুলোতে শান্তিপূর্ণ ভোটগ্রহণ শেষ হয়েছে। তবে ভোটার উপস্থিতি ছিল কম। ইভিএমের কারণে ভোটগ্রহণেও ছিল ধীরগতি। ভোটকেন্দ্রের লম্বা লাইনেও অসন্তোষ প্রকাশ করেছে অনেকে। চম্পকনগর ইউনিয়নের সাটিরপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ভোটকেন্দ্র থেকে ইয়াছমিন নামে ওই কেন্দ্রের এক ভোটার জানান, সকাল সাড়ে নয়টায় কেন্দ্রে এসেছি ভোট দিতে। কিন্তু লাইন শেষ হচ্ছে না। মনে হচ্ছে এক জায়গাতেই আছি। কেন্দ্রটির প্রিজাইডিং কর্মকর্তা মো. এ হালিম সরকার বলেন, এই প্রথমবার ইভিএমে ভোট নেয়া হচ্ছে। অজ্ঞতায় ভোটারদের একটু সমস্যা হচ্ছে।
স্টাফ রিপোর্টার, খুলনা থেকে জানান, খুলনার ডুমুরিয়া উপজেলা নির্বাচনে কর্তব্যরত এসআই নাজমুল হকের পিস্তল ও ১২ রাউন্ড গুলি খোয়া গেছে। এ ঘটনার সঙ্গে জড়িত থাকার অভিযোগে স্কুলের দপ্তরি সন্দিপ কুমার রাহা (৩৪) ও একই এলাকার এক রাজমিস্ত্রির সহকারী বুলবুল খাঁ (২০) কে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। এলাকায় তল্লাশি অভিযান অব্যাহত রয়েছে। কর্তব্যে অবহেলার অভিযোগে এসআই নাজমুল হককে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে। শরাফপুর ইউনিয়নের বানিয়াখালী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের পুলিশের থাকার জন্য ব্যবহৃত কক্ষে এ পিস্তল ও গুলি খোয়া যাওয়ার ঘটনা ঘটেছে। ঘটনাটি নিয়ে পুলিশ প্রশাসনে ব্যাপক তোলপাড় চলছে।
পুলিশ জানায়, দিঘলিয়া থানায় কর্মরত এসআই নাজমুল হক ডুমুরিয়া উপজেলা নির্বাচনে ডিউটি ছিল বানিয়াখালী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে। জোহরের নামাজের জন্য তিনি তার কাছে থাকা ব্যাগের মধ্যে তার ব্যবহৃত পিস্তল, ১২ রাউন্ড গুলি ও একটি বেল্ট ঢুকিয়ে কেন্দ্রের অফিস কক্ষে রেখে যায়। দুপুর ২টা থেকে আড়াইটার মধ্যে উক্ত স্থানে এসে দেখে তার ব্যাগের চেইন খোলা। তখন ব্যাগের মধ্যে দেখে তার পিস্তল, ১২ রাউন্ড গুলি ও একটি বেল্ট নেই। তখন বিষয়টি ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের জানালে এসপি এসএম শফিউল্লাহ ও র‌্যাবের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা ঘটনাস্থলে আসেন। এবং স্কুলের ছাদ ও আশপাশে ব্যাপক তল্লাশি চালায়। এ সময় ঘটনার সঙ্গে জড়িত থাকার অভিযোগে স্কুলের দপ্তরি সন্দিপ কুমার রাহা (৩৪) ও একই এলাকার এক রাজমিস্ত্রির সহকারী বুলবুল খাঁ (২০) কে গ্রেপ্তার করে। এলাকায় তল্লাশি অভিযান অব্যাহত রয়েছে। সঙ্গে সঙ্গে কর্তব্যে অবহেলার অভিযোগে এসআই নাজমুল হককে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে।

এ ব্যাপারে খুলনা জেলা পুলিশ সুপার এসএম শফিউল্লাহ বলেন, সন্দেহজনকভাবে দুইজনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। তাদের ব্যাপক জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে। আর কর্তব্যে অবহেলার অভিযোগে এসআই নাজমুল হককে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে। অস্ত্র ও গুলি উদ্ধারে অভিযান অব্যাহত রয়েছে। তবে, এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত অস্ত্র ও গুলি উদ্ধার হয়নি।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর