× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনরকমারিপ্রবাসীদের কথাবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা ইলেকশন কর্নার
ঢাকা, ১৬ জুলাই ২০১৯, মঙ্গলবার

নয়া পল্টনে ছাত্রদলের দুই পক্ষের হাঙ্গামা

দেশ বিদেশ

স্টাফ রিপোর্টার | ২৫ জুন ২০১৯, মঙ্গলবার, ৯:৩৪

নয়াপল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে বহিস্কৃত ছাত্রদল নেতা ও তাদের কর্মী সমর্থকরা তুলকালাম কাণ্ড ঘটিয়েছে। বিক্ষুব্ধরা কার্যালয়ের বিদ্যুৎ বিচ্ছিন্ন করে দেয়ার পাশপাশি কার্যালয় থেকে বের হওয়া নেতাকর্মীদের পিটিয়েছে। এছাড়া কয়েকটি ককটেল বিস্ফোরণের ঘটনাও ঘটে। গতকাল সকাল সাড়ে ১১ টা থেকে বেলা দেড়টা পর্যন্ত তারা সেখানে অবস্থান করে বিক্ষোভ করে। এ সময় বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভীর পদত্যাগ দাবি করে তারা। তাদের তোপের মুখে পড়েন দলটির সাংগঠনিক সম্পাদক ফজলুল হক মিলনসহ সিনিয়র নেতৃবৃন্দ। আজ আবারও একই ধরনের কর্মসূচি পালন করবে বলে জানিয়েছে তারা। একই সঙ্গে পুনঃতফসিল ঘোষণা না করলে লাগাতার আন্দোলন চালিয়ে যাওয়ারও হুশিয়ারি দিয়েছেন বিক্ষুব্ধরা।
ধারাবাহিক কমিটি গঠনের দাবিতে আন্দোলনরত বিলুপ্ত কমিটির নেতা ওমর ফারুক মুন্না বলেন, দলের হাইকমান্ডের প্রতি আহ্বান থাকবে আমাদের দাবি মেনে নিয়ে পুনঃতফসিল ঘোষণা করা হোক। তা না হলে আমাদের আন্দোলন অব্যাহত থাকবে। এর আগে ১২ নেতার বহিষ্কারাদেশ প্রত্যাহারসহ বয়সসীমা তুলে দিয়ে নিয়মিত কমিটির দাবিতে সোমবার বেলা সাড়ে ১১টার দিকে সহস্রাধিক নেতাকর্মীর একটি মিছিল নয়াপল্টনে এসে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে দুপুর পর্যন্ত কর্মসূচি পালন করে। বিক্ষুব্ধ নেতাকর্মীরা কার্যালয়ের সামনে অবস্থান নিয়ে বিভিন্ন শ্লোগান দিতে থাকেন। এসময় তারা কার্যালয়ের কলাপসিবল গেট বন্ধ করে দেন। কিছুক্ষণ অবস্থান কর্মসূচি চলার পর কার্যালয়ের বিদ্যুৎ বিচ্ছিন্ন করে দেয় আন্দোলনকারীরা। অন্যদিকে, আন্দোলনকারীদের যেকোনও ধরনের অপ্রীতিকর ঘটনা প্রতিহত করতে কার্যালয়ের ভেতরে ছাত্রদল, যুবদল, স্বেচ্ছাসেবক দল ও মহানগর বিএনপির কয়েকশ নেতাকর্মী অবস্থান নেন। কার্যালয়ের আশপাশেও অবস্থান নেন ছাত্রদল ও বিএনপির অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠনের নেতাকর্মীরা। আন্দোলনকারীরা কার্যালয়ের গেট আটকানোর সময় দুই পক্ষের মধ্যে উত্তেজনা তৈরি হয়। ভেতরে অবস্থানরত ও বাইরের আন্দোলনকারী ছাত্রদল নেতাকর্মীদের মধ্যে টানাহেঁচড়ার ঘটনাও ঘটে। এছাড়া, কার্যালয়ের ভেতর থেকে কেউ বের হলে তার ওপর চড়াও হয় আন্দোলনকারীরা। এদিকে ছাত্রদলের বিক্ষুব্ধ নেতাকর্মীদের আন্দোলনের মধ্যে দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে কার্যালয়ে আসেন দলের সাংগঠনিক সম্পাদক ফজলুল হক মিলন। কার্যালয়ে প্রবেশ করতে গিয়ে তোপের মুখে পড়েন বিক্ষুব্ধ নেতাকর্মীদের। এ সময় আন্দোলনকারীরা তাকে ঘিরে ধরেন। তাকে কার্যালয়ের সামনে থেকে চলে যাওয়ার জন্য অনুরোধ করেন। মিলনকে উদ্দেশ্য করে বিক্ষুব্ধরা বলেন, সিন্ডিকেটের জন্য আজ কমিটির এই অবস্থা। এসব অবৈধ সিন্ডিকেট আমরা মানি না। আমাদের দাবি আদায় না হওয়া পর্যন্ত আমরা ছেড়ে যাব না। এখানে আপনি থাকলে কোনো ধরনের অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটলে তার দায় আমরা নেব না। পরে দুপুরে পুনঃতফসিল দাবি করে কর্মসূচি অব্যাহত রাখার ঘোষণা দেন বিক্ষুদ্ধ ছাত্রদল নেতারা।
এদিকে, ছাত্রদলের বিক্ষুব্ধ নেতাকর্মীরা অবস্থান কর্মসূচি শেষে চলে যাওয়ার সময় নয়াপল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের আশপাশ এলাকায় মুহুর্মুহু কয়েকটি ককটেল বিস্ফোরিত হয়। এছাড়া আরো কয়েকটি ককটেল অবিস্ফোরিত অবস্থায় দেখা যায়। তবে এই ককটেল বিস্ফোরণের ঘটনায় কারা জড়িত সে সম্পর্কে কিছু জানা যায়নি। এর আগে রোববার দুপুরে ১৫ই জুলাই ছাত্রদলের কাউন্সিলের তারিখ ঘোষণা করেন বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান ও সাবেক ছাত্রনেতা শামসুজ্জামান দুদু। তিনি বলেন, নব উদ্যমে ছাত্রদলকে এগিয়ে নেয়ার জন্য কাউন্সিলের উদ্যোগ নিয়েছি। জুলাইয়ের ১৫ তারিখ সরাসরি ভোটের মাধ্যমে নেতৃত্ব নির্বাচন হবে। এজন্য নির্বাচন কমিশন, বাছাই ও আপিল কমিটি করা হয়েছে। ভোটার তালিকা প্রকাশ করাসহ পর্যায়ক্রমে ঘোষণা করা হবে।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
পাঠকের মতামত
**মন্তব্য সমূহ পাঠকের একান্ত ব্যক্তিগত। এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।
Rose
২৪ জুন ২০১৯, সোমবার, ১:৩৯

ফখরুল সাহেব সব সময় অভিযোগ না করে নিজের সামনে ফ্লাইং কিক টা প্রতিহত করেন

অন্যান্য খবর