× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনরকমারিপ্রবাসীদের কথাবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা ইলেকশন কর্নার মন ভালো করা খবর
ঢাকা, ২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৯, সোমবার

না থাকলে তিস্তার পানি দেবো কোথা থেকে : মমতা

ভারত

পরিতোষ পাল, কলকাতা থেকে | ২ জুলাই ২০১৯, মঙ্গলবার, ৩:৩৮

তিস্তার পানি দেওয়া যে সম্ভব নয় সেটা পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় জানিয়ে দিয়েছেন। সেই সঙ্গে তিনি অনুযোগের সুরে বলেছেন, তিস্তার পানি দিতে না পারায় বাংলাদেশ আমাদের ইলিশ দিচ্ছে না। আজ  মঙ্গলবার পশ্চিমবঙ্গ বিধানসভায় ইলিশের প্রসঙ্গেই মমতা তিস্তার পানি দিতে না পারার বিষয়টির উল্লেখ করেছেন। এদিন বিধানসভার প্রশ্নোত্তর পর্বে বিধায়ক রহিমা বিবির এক প্রশ্নের উত্তরে মুখ্যমন্ত্রী বলেছেন, বাঙালি মাছেভাতে থাকতে ভালবাসে। কিন্তু বাংলাদেশকে আমরা তিস্তার পানি দিতে পারিনি। তাই ওরা আমাদের ইলিশ মাছ দেওয়া বন্ধ করে দিয়েছে। ওরা আমাদের বন্ধুদেশ। কিন্তু পানি নেই তো কোথা থেকে দেব?

তিস্তার পানির ন্যায়সঙ্গত হিস্যার দাবি জানিয়ে আসছে বাংলাদেশ। গত ইউপিএ সরকারের আমলে তিস্তার পানি চুক্তি মমতার আপত্তিতে আটকে গিয়েছে। নরেন্দ্র মোদী সরকার ক্ষমতায় আসার পর  বাংলাদেশকে বারে বারে আশ্বস্ত করা হয়েছে যে, আলোচনার ভিত্তিতে তিস্তার পানি বণ্টনের ব্যবস্থা করা হবে। কিন্তু তিস্তার পানি বাংলাদেশকে না দেবার সিদ্ধান্তে অনড় রয়েছেন। তিনি আগেই বলেছেন, তিস্তায় পানির প্রবাহ অনেক কমে গিয়েছে।  তাই উত্তরবঙ্গের চাহিদা মিটিয়ে সেই পানি বাংলাদেশকে দেওয়া সম্ভব নয়। এদিনও বিধানসভায় মমতা সেই কথাই পুনরায় ব্যক্ত করেছেন। যে ইলিশ নিয়ে তিস্তার প্রসঙ্গ উঠে এসেছে সেই ইলিশ নিয়ে মুখ্যমন্ত্রী রাজ্যের মানুষকে আশ্বস্ত করে বলেছেন, আমরা ইলিশ মাছ নিয়ে রিসার্চ সেন্টার করেছি। আমাদের বাংলায় এখন ইলিশ মাছের অভাব নেই। আগামী দিনে রিসার্চ শেষ হলে গোটা দেশে আমরা ইলিশ সরবরাহ করতে পারব। সেইসঙ্গে তিনি আরও বলেছেন, রাজ্য কয়েক বছরের মধ্যেই মাছ উৎপাদনে স্বনির্ভর হয়ে উঠবে। ফলে দু-এক বছরের মধ্যে আর বাইরে থেকে মাছ আনতে হবে না ।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর