× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনরকমারিপ্রবাসীদের কথাবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা ইলেকশন কর্নার
ঢাকা, ১৮ জুলাই ২০১৯, বৃহস্পতিবার

কমেছে ভালো গল্পের সিনেমা

বিনোদন

কামরুজ্জামান মিলু | ৮ জুলাই ২০১৯, সোমবার, ৭:৩৬

একটা সময় নতুন সিনেমা দেখার জন্য সিনেমাপ্রেমী দর্শকদের ব্যাপক আগ্রহ লক্ষ্য করা যেত। ছবি মুক্তির দিন শুক্রবারেই সিনেমা হলে ভিড় করতেন অনেক দর্শক। প্রতি শুক্রবার কোন ছবি মুক্তি পাচ্ছে তার খোঁজখবর আগে থেকেই নিয়মিত রাখতেন তারা। পছন্দের তারকাদের এক নজর দেখার জন্য এফডিসির গেটে ভিড় করা, সিনেমা হলে গিয়ে প্রথম শোতে বসে ছবি দেখার চিত্র ছিল চোখে পড়ার মতো। এমনকি সিনেমা দেখার পর ছবির কাহিনী, সংলাপ নিয়ে আড্ডায় বসে গল্পের আসর জমতো। সেই দিনগুলো ক্রমশ হারিয়ে গেছে। এফডিসির ফ্লোরেও এখন আর শুটিং ব্যস্ততা তেমন নেই। ছবি মুক্তির প্রথম দু’দিন সিনেমা দেখার জন্য ভিড় থাকলেও অন্য সময় সিনেমা হলের চিত্র থাকে একদমই ভিন্ন।
দর্শক মনের মতো ছবি না পেলে দ্বিতীয় দিনের পর আর দেখতে চায় না। সিনেমা হলের সংখ্যাও কমে গেছে। দর্শকরা এখন মুঠোফোনে ইউটিউব ভিডিওতে ব্যস্ত হয়ে পড়েছে। সিনেমা হলের দর্শক কতটা কমেছে? এমন প্রশ্নের উত্তর খুঁজতে শুক্রবার সন্ধ্যায় রাজধানীর বলাকা সিনেমা হলে গিয়ে দেখা গেল সেখানে সাইফ চন্দন পরিচালিত ‘আব্বাস’ ছবিটি ঐদিন মুক্তি পেয়েছে। এ ছবিতে নিরব, সোহানা সাবা ও সূচনা আজাদ অভিনয় করেছেন। বলাকায় সন্ধ্যার শোতে বেশকিছু দর্শকের দেখা মিললো। একসঙ্গে ছবিটি দেখতে এসেছেন বেশ ক’জন যুবক। তাদের মধ্যে মাসুদ নামের একজন বলেন, আমি বাংলাদেশি সিনেমার ভক্ত। প্রতি শুক্রবারে বন্ধু-বান্ধবসহ সিনেমা দেখতে ছুটে আসি। তবে ছবি ভালো লাগলে দুই-তিনবারও দেখতে আসি। কিন্তু ভালো কাহিনীর সিনেমা এখন কম পাচ্ছি। আমি আরো মানসম্মত ও সমসাময়িক গল্পের সিনেমা বড় পর্দায় দেখতে চাই। ‘আব্বাস’ ছবি দেখে বের হওয়া মাসুদ রহমান নামের এক দর্শক জানান, ছবিটি মোটামুটি ভালো লেগেছে। নিরব ভাইকে ভিন্ন লুকে দেখলাম। এটা বেশি ভালো লেগেছে। বলাকা হল কর্তৃপক্ষ সংশ্লিষ্ট একজন জানান, সিনেমা হলে দর্শক এখন আগের মতো হয় না। নতুন ছবি কয়েকদিন চললে আমাদেরই তো লাভ বেশি। এই ছবিটি দর্শকরা কয়েকদিন ধরে দেখছে। দেখা যাক এক সপ্তাহ শেষ হওয়ার পর লাভ-লোকসানের হিসাব বলা যাবে। রাজধানীর মধুমিতা সিনেমা হলের কর্ণধার ইফতেখার উদ্দিন নওশাদ বলেন, দর্শকদের সিনেমা হলে আসা খুব একটা কমেনি। ভালো সিনেমা হলে দর্শকরা সব সময়ই সেই ছবি দেখার জন্য প্রেক্ষাগৃহে ভিড় করে। তবে সেই ধারাবাহিকতাটা আমাদের ইন্ডাস্ট্রিতে নেই। শুধু ঈদে না, প্রতি শুক্রবার ভালো গল্পের সিনেমা দরকার। ভালো গল্পের সঙ্গে উন্নত প্রযুক্তির ছোঁয়া থাকলে দর্শকরা বেশি আকৃষ্ট হয়। সেই দিকে নজর দিতে হবে নির্মাতা ও প্রযোজকদের। এদিকে সমপ্রতি ভারতের পশ্চিমবঙ্গ থেকে পাঁচটি ছবি দেশের প্রেক্ষাগৃহে মুক্তির জন্য আমদানি করা হয়েছে। সেই ছবিগুলো হলো ‘ভোকাট্টা’, ‘শেষ থেকে শুরু’, ‘কিডন্যাপ’, ‘ভূতনাথ ডটকম’ ও ‘বিবাহ অভিযান’। এরমধ্যে ‘ভোকাট্টা’ নামের ছবিটি দেশের প্রেক্ষাগৃহে মুক্তি পেলেও ভালো ব্যবসা করতে পারেনি। ছবিটি আমদানি করেছে বাংলাদেশের শাপলা মিডিয়া। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক পরিচালক বলেন, আমাদের দর্শকরা এখনো বাংলাদেশি সিনেমা দেখতেই বেশি পছন্দ করে। কলকাতার ছবি এখানে কোনোটাই খুব একটা ব্যবসা করেনি। মুক্তির পর বেশিরভাগই ফ্লপ হয়েছে। তাই দেশি সিনেমায় ভালো গল্প ও মেকিং পেলে শুধু ঈদের সময় না, যেকোনো সময়ই দর্শকরা তা সিনেমা হলে গিয়ে দেখতে চাইবে। সেই সঙ্গে ইন্ডাস্ট্রির চাকা ঘোরাতে ছবির প্রচারণাকেও আমাদের গুরুত্ব দিতে হবে।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর