× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনরকমারিপ্রবাসীদের কথাবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা ইলেকশন কর্নার
ঢাকা, ২৪ জুলাই ২০১৯, বুধবার
১২ ছাত্রীকে যৌন নির্যাতন

সেই মাদ্রাসা প্রধান পাঁচ দিনের রিমান্ডে

শেষের পাতা

স্টাফ রিপোর্টার, নারায়ণগঞ্জ থেকে | ৮ জুলাই ২০১৯, সোমবার, ৮:৫৪

ফতুল্লার ভূঁইগড়ে বায়তুল হুদা ক্যাডেট মাদ্রাসার ১২ শিশু ছাত্রীকে যৌন নির্যাতন ও ধর্ষণের অভিযোগে গ্রেপ্তারকৃত প্রধান শিক্ষক মাওলানা আল আমিনের ৫ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন আদালত। গতকাল দুপুরে নারায়ণগঞ্জের সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট কাউছার আলমের আদালতে তার রিমান্ড শুনানি হয়। এর আগে দুটি মামলায় ১০ দিন করে রিমান্ড আবেদন করে পুলিশ তাকে আদালতে হাজির করে। পরে শুনানি শেষে আদালত র‌্যাবের দায়ের করা ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের মামলায় ৫ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন। নারায়ণগঞ্জ কোর্ট পুলিশের পরিদর্শক হাবিবুর রহমান জানান, দুটি মামলায় ১০ দিন করে রিমান্ড আবেদন করা হয়েছিল। গতকাল একটি মামলার রিমান্ড শুনানি হয়েছে। আরেকটি মামলায় পরে শুনানি হবে।

শুক্রবার সকালে ফতুল্লা মডেল থানায় মাওলানা আল আমিনের বিরুদ্ধে নির্যাতিত শিক্ষার্থীদের পরিবারের পক্ষ থেকে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে একটি মামলা এবং র‌্যাবের পক্ষ থেকে ডিজিটিাল নিরাপত্তা আইনে দ্বিতীয় মামলাটি দায়ের করা হয়।
এরআগে বিভিন্ন শিক্ষার্থী ও অভিভাবকদের কাছ থেকে অভিযোগের প্রেক্ষিতে বৃহস্পতিবার দুপুরে নারায়ণগঞ্জ সদর উপজেলার ফতুল্লার মাহমুদপুর পাকারমাথা এলাকার বায়তুল হুদা ক্যাডেট মাদ্রাসা থেকে এর প্রতিষ্ঠাতা ও প্রধান শিক্ষক আল আমিনকে গ্রেপ্তার করে র‌্যাব।
এ সময় তার দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি ও মাদ্রাসা বন্ধের দাবিতে বিক্ষোভ মিছিল করে এলাকাবাসী।

র‌্যাব-১১ এর অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. আলেপ উদ্দিন জানান, গ্রেপ্তারের পর প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে আল আমিন মাদ্রাসার ১২ জন ছাত্রীকে ধর্ষণ ও যৌন নির্যাতনের কথা স্বীকার করেছেন। একই সঙ্গে তিনি ওই সব শিশু শিক্ষার্থীদের পর্নোগ্রাফি ভিডিও চিত্র দেখিয়ে এবং তাদের ছবি যুক্ত করে পর্ণোগ্রাফি বানিয়ে ব্ল্যাকমেইল করে অসামাজিক কাজে বাধ্য করতো বলেও জিজ্ঞাসাবাদে স্বীকার করেছে।
তিনি আরো জানান, এই ১২ শিক্ষার্থী ছাড়া আরো কোনো শিক্ষার্থীর সঙ্গে ওই শিক্ষক যৌনাচার করেছেন কিনা সে ব্যাপারে তাকে আরো জিজ্ঞাসাবাদ প্রয়োজন।
এ বিষয়ে ফতুল্লা মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আসলাম হোসেন জানান, দুই মামলার মধ্যে একটি মামলায় আদালত আল আমিনের ৫ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর