× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনরকমারিপ্রবাসীদের কথাবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা ইলেকশন কর্নার
ঢাকা, ১৯ জুলাই ২০১৯, শুক্রবার

মেসির অপরাধটা কী?

খেলা

স্পোর্টস ডেস্ক | ৮ জুলাই ২০১৯, সোমবার, ৯:১০

মেসিকে যে লাল কার্ড দেখানো হলো, তার অপরাধটা কী?- চিলির বিপক্ষে ম্যাচ শেষে এমন প্রশ্ন তুললেন আর্জেন্টিনার কোচ লিওনেল স্কালোনি।
লিওনেল মেসির এখন ৩২ বছর চলছে। কোপা আমেরিকার আগামী সংস্করণে খেলবেন কি না, তা রইল সময়ের হাতে। আপাতত এ কথা বলাই যায়, কোপায় মেসির শেষ দৃশ্যটা বড়ই বিষাদমাখা, চরম বিতর্কিতও। এ ঘটনায় সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ঝড় উঠেছে সমালোচনা ঝড়। মুণ্ডুপাত চলছে প্যারাগুইয়ান রেফারি মারিও ডিয়াজ দে ভিভারের। আর রেফারির প্রতি প্রশ্ন রেখেছেন আর্জেন্টিনা কোচ লিওনেল স্কালোনি ‘মেসি যে লাল কার্ড পেলো, আমি বুঝতে পারছি না তার অপরাধটা কী?’
স্কালোনির মতো অনেক ফুটবলপ্রেমীও বুঝতে পারেননি মেসির অপরাধটা আসলে কী? ম্যাচের তখন ৩৭ মিনিট। চিলির বিপদ সীমার মধ্যে বল দখলের লড়াইয়ে গ্যারি মেডেলকে পেছন থেকে ধাক্কা দিয়েছিলেন লিওনেল মেসি।
সেটি ইচ্ছাকৃত না অনিচ্ছাকৃত, তখন পরিষ্কার বোঝা যায়নি। কিন্তু এর প্রতিক্রিয়ায় চিলি অধিনায়ক যা করলেন তা অবিশ্বাস্য। পেছনে ঘুরেই তিনি শরীর দিয়ে গুঁতোতে শুরু করেন মেসিকে। হঠাৎ এ আক্রমণের পাল্টা জবাব দেননি মেসি। দুই হাত তুলে চিলি অধিনায়কের প্রতিটি গুঁতোয় পিছিয়েছেন দু-এক পা করে। এর মধ্যে সবচেয়ে অবিশ্বাস্য কাণ্ডটি ঘটিয়েছেন রেফারি মারিও ডিয়াজ দে ভিভার। ছুটে এসে সরাসরি লাল কার্ড দেখালেন দুজনকেই! অথচ ভিডিও রিপ্লেতে দেখা গেছে, লাল কার্ড দেখার মতো কোনো অপরাধ করেননি মেসি। এমনকি চিলি অধিনায়ক গ্যারি মেডেলকেও বড়জোর হলুদ কার্ড দেখানো যেতো। মেসি চুপচাপ থাকলেও অনেক বেশি আক্রমণাত্মক ছিলেন মেডেল। তৃতীয় স্থান নির্ধারণী এ লড়াইয়ে চিলির বিপক্ষে আর্জেন্টিনা ২-১ গোলে জিতলেও ম্যাচের ফল ছাপিয়ে আলোচনার কেন্দ্রে মেসির লাল কার্ড। ম্যাচ শেষে সংবাদ সম্মেলনে তাই ফেটে পড়লেন আর্জেন্টিনা কোচ লিওনেল স্কালোনি। তিনি বলেন, ‘আমি এখনো বুঝতে পারছি না মেসিকে ঠিক কী কারণে (মাঠ থেকে) বের করে দেয়া হলো? আর্জেন্টিনার ফাইনাল খেলা উচিত ছিল বলে আমি মনে করি। কিন্তু আমরা পেয়েছি সান্ত্বনা পুরস্কার তৃতীয় স্থান।’ কোপা আমেরিকায় ভিডিও অ্যাসিস্ট্যান্ট রেফারি (ভিএআর) প্রযুক্তির মান নিয়েও প্রশ্ন তুলেছেন স্কালোনি। বলেন, কোপায় ভিএআর ব্যবহারের মানদণ্ড আমি এখনো ঠিক বুঝতে পারছি না। হয় এ মানদণ্ড ভুল কিংবা রেফারিরা একমত হতে পারছেন না। আমার মনে হয় না ভিএআর তারা ঠিকঠাক বুঝতে পারছে।’

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর