× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনরকমারিপ্রবাসীদের কথাবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা ইলেকশন কর্নার
ঢাকা, ১৯ জুলাই ২০১৯, শুক্রবার

স্বামীর ভয়ে সন্তানসহ পালিয়ে বেড়াচ্ছে হাজেরা

বাংলারজমিন

চৌহালী (সিরাজগঞ্জ) প্রতিনিধি | ১০ জুলাই ২০১৯, বুধবার, ৮:০২

 যৌতুকলোভী স্বামীর ভয়ে শিশুসন্তান সহ পালিয়ে বেড়াচ্ছে নির্যাতিত হাজেরা খাতুন (২০) নামে এক অসহায় গৃহবধূ। বিয়ের পর থেকে একের পর এক দাবি করা টাকা দিনমজুর পিতার কাছ থেকে এনে দিতে না পারায় পাষণ্ড স্বামীর মারধরের শিকার হয়ে সে এখন আশ্রয় নিয়েছে এক আত্মীয়ের বাড়িতে। বিষয়টি নিয়ে এলাকা জুড়ে ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে। জানা যায়, এনায়েতপুর থানার দুর্গম চর স্থল ইউনিয়নের বসন্তপুর গ্রামের দিনমজুর কৃষি শ্রমিক বৃদ্ধ জহুরুল ইসলামের ৭ ছেলেমেয়ের মধ্যে মেঝো মেয়ে হাজেরা খাতুন। গত দুই বছর আগে উত্তর নওহাটা চরের শ্যাম মণ্ডলের ছেলে কৃষক আবদুল কাদেরের সঙ্গে বিয়ে হয় তার। তখন চেয়েচিন্তে দাবি করা প্রায় দেড় লাখ টাকার যৌতুক দিয়ে অসহায় দিনমজুর পিতা বিয়ে দেন। গত ১০ মাস আগে তাদের পরিবারে একটি ছেলে সন্তানের জন্ম হয়। এরপর থেকেই কারণে-অকারণে তাকে নানা ভাবে নির্যাতন করে আসছে স্বামী কাদের।
গত ২ সপ্তাহ আগে মালয়েশিয়া যাবে এই মর্মে শ্বশুরের কাছে ২ লাখ টাকা দাবি করে। তখন হতদরিদ্র জহুরুল ইসলাম অপারগতা প্রকাশ করলে ক্ষিপ্ত হয়ে বাড়ি চলে যায় সে। হঠাৎ গত রোববার সকালে স্ত্রী সন্তান ও কাদের নিজে শ্বশুর বাড়ি এসে স্ত্রীকে চাপ সৃষ্টি করে শ্বশুরকে বলায়- দাবিকৃত ২ লাখ টাকা না দিলে তাকে আর বাড়ি নেবে না। তখনও পরিবারের পক্ষ হতে অপারগতা প্রকাশ করলে পাষণ্ড স্বামী আবদুল কাদের সবার সামনেই তার স্ত্রী হাজেরা ও সন্তান ইসমাইলকে বেদম মারধর করে। এ সময় বাড়ির পাশের তাদের বৃদ্ধ নানা-নানি পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে এগিয়ে এলে তাদেরও বেদম মারধর করে চলে যায়। তখন সে হুমকি দিয়ে বলে, ২ লাখ টাকা না দিলে তোদের কাউকে বাড়িতে থাকতে দেব না। আবার লোকজন নিয়ে এসে তোদের সবাইকে তুলে নিয়ে যাব। এরপর থেকেই সন্ত্রাসী যৌতুক লোভী ওই স্বামীর ভয়ে শিশুসন্তান নিয়ে আত্মীয়ের বাড়িতে আশ্রয় নিয়েছে হাজেরা। হাজেরা খাতুন অভিযোগ করে জানান, আমি এখন তার ভয়ে অসহায় হয়ে পড়েছি। কতবার যে সে আমাকে নির্যাতন করেছে তা বলে শেষ করা যাবে না। ২ লাখ টাকা আমার পিতার কাছ থেকে না এনে দিলে আমার সন্তানকেও মেরে ফেলতে পারে।
তাই আমরা বাঁচতে পালিয়ে বেড়াচ্ছে। সে আরো জানায়, ওরা প্রভাবশালী হওয়ায় আমার বাবা-মাসহ পরিবারের সবাই এখন আতঙ্কিত। শুধু আমার স্বামী নয়, শ্বশুর-শাশুড়িও বলে দিয়েছে, ২ লাখ টাকা ছাড়া বাড়িতে না আসতে। বিষয়টি নিয়ে এনায়েতপুর থানার ওসি তদন্ত মোয়াজ্জেম হোসেন জানান, ঘটনাটি হৃদয়বিদারক। মেয়ে পক্ষের কেউ এসে অভিযোগ করলে আমরা যথাযথ ব্যবস্থা নেব।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর