× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনরকমারিপ্রবাসীদের কথাবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা ইলেকশন কর্নার
ঢাকা, ১৯ জুলাই ২০১৯, শুক্রবার

উজানের ঢলে তিস্তায় পানি বৃদ্ধি পানিবন্দি ১১ হাজার পরিবার

বাংলারজমিন

স্টাফ রিপোর্টার, রংপুর থেকে | ১০ জুলাই ২০১৯, বুধবার, ৮:০২

 উজানের ঢলে তিস্তার পানি বৃদ্ধি পেয়ে রংপুরে ১১ হাজার পরিবার পানিবন্দি হয়ে পড়েছে। তিস্তার পানিতে ডুবে গেছে ফসলের ক্ষেত। দেখা দিয়েছে বিশুদ্ধ পানি ও খাবার সংকট। পানির কারণে প্রয়োজনে ঘর থেকে বের হতে পারছে না মানুষ। জনজীবনে নেমে এসেছে স্থবিরতা। জানা যায়, গতকাল সকালে মুষলধারে বৃষ্টি আর উজানের পানিতে তিস্তা নদীতে পানি বেড়ে যায়। লালমনিরহাটের দোয়ানী পয়েন্টে তিস্তা নদীর পানি বিপদসীমার ৫ সে.মি নিচ দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। তিস্তা নদীতে পানি বৃদ্ধি পাওয়ায় গঙ্গাচড়া উপজেলার লক্ষ্মীটারী ইউনিয়নের চরশংকরদহ, চরইচলী, বাগেরহাট, জয়রামওঝা, ইসবকুল গ্রামের ১০ হাজার পরিবার ও আলমবিদিতর ইউনিয়নের সাউথপাড়া, পাইকান, ব্যাংকপাড়া, হাজীপাড়া, আলমবিদিতর গ্রামের ৫শ’ পরিবার পান্দিবন্দি হয়ে পড়েছে।
সেই সঙ্গে পাটসহ বিভিন্ন সবজির ক্ষেত পানিতে তলিয়ে গেছে। চরশংকরদহ গ্রামের আনোয়ার হোসেন (৫৮) বলেন, হঠাৎ করে তিস্তা নদীর পানি বেড়ে যাওয়ায় আমরা পানিবন্দি হয়ে পড়েছি। গরু-ছাগল, হাঁস-মুরগি নিয়ে ঘরের চৌকিতে আশ্রয় নিয়েছি। তিস্তা নদীর পানি বেড়ে গেলে বাড়িতে থাকা যাবে না। ইচলী গ্রামের মনোয়ারা বেগম (৩৫) বলেন, পানি বাড়ির আঙ্গিনায় ঢুকে গেছে। ঘরের বাইরে বের হওয়া যাচ্ছে না। কাজ না করলে খাবো কি। এখন পর্যন্ত কোনো মেম্বার-চেয়ারম্যান আমাদের সাহায্য করতে আসে নাই। লক্ষ্মীটারী ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুল্লাহ্‌ আল হাদী বলেন, তিস্তার পানি হঠাৎ বেড়ে যাওয়ায় আমার ইউনিয়নের চর এলাকার ১০ হাজার মানুষ পানিবন্দি হয়ে পড়েছে। তাদের ত্রাণ সহায়তা দিতে উপজেলায় যোগাযোগের চেষ্টা চালাচ্ছি। তিস্তার পানি যেভাবে তেড়ে আসছে, তাতে পানি বেড়ে বন্যা দেখা দিতে পারে।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর