× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনসাক্ষাতকাররকমারিপ্রবাসীদের কথামত-মতান্তরফেসবুক ডায়েরিবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা মন ভালো করা খবরকলকাতা কথকতা
ঢাকা, ১৪ আগস্ট ২০২০, শুক্রবার

ভালুকায় ধর্ষণ মামলার আসামি ‘বন্দুকযুদ্ধে’ নিহত

শেষের পাতা

ভালুকা (ময়মনসিংহ) প্রতিনিধি | ১০ জুলাই ২০১৯, বুধবার, ৯:০৬

ভালুকা উপজেলার উথুরা ইউনিয়নের কৈয়াদী সোনা উল্লাহ স্কুল অ্যান্ড কলেজের অষ্টম শ্রেণির ছাত্রী ধর্ষণ মামলার প্রধান আসামি সাইফুল ডাকাত (৪০) জেলা গোয়েন্দা ও ভালুকা মডেল থানা পুলিশের সঙ্গে কথিত বন্দুকযুদ্ধে নিহত হয়েছে। গতকাল ভোরে উপজেলার হাতিবেড় গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। এলাকাবাসী জানায়, ভালুকা উপজেলার কৈয়াদী সোনা উল্লাহ স্কুল অ্যান্ড কলেজের অষ্টম শ্রেণির ছাত্রী  গত ১৬ই জুন স্কুলে যাওয়ার পথে একই গ্রামের মৃত জাবেদ আলীর ছেলে সাইফুল ইসলাম (৪০) ও ইয়ার মাহমুদের ছেলে রমজান আলী (৩০), তাকে জঙ্গলে নিয়ে গলায় চাকু ধরে ও এসিড নিক্ষেপের ভয় দেখিয়ে ধর্ষণ করে তা ভিডিও করে রাখে। ২৪শে জুন পুনরায় ওই ছাত্রী স্কুলে যাওয়ার পথে একই কায়দায় তারা ধর্ষণের চেষ্টা করে। পরে বিষয়টি স্থানীয়ভাবে বিচার চেয়ে ব্যর্থ হয়ে মেয়ের বাবা ময়মনসিংহ পুলিশ সুপারের কাছে অভিযোগ করেন। পরে পুলিশ সুপারের নির্দেশে ৩০শে জুন ভালুকা মডেল থানায় নারী শিশু নির্যাতন দমন আইনে একটি মামলা (নম্বর-৬২) রুজু হয়। এ ঘটনার বিচার চেয়ে এলাকাবাসী সোচ্চার হলে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর টনক নড়ে।

ভালুকা মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ মোহাম্মদ মাইন উদ্দিন জানান, গোপন সূত্রে জানতে পারি উপজেলার হাতিবেড় গ্রামে তুহিনের বাড়ির কাছে ধর্ষণ মামলার আসামিরা অবস্থান করছে। পরে ময়মনসিংহ জেলা গোয়েন্দা ও ভালুকা মডেল থানা পুলিশ সেখানে যৌথ অভিযান চালায়।
এ সময় আসামিরা পুলিশকে লক্ষ্য করে এলোপাতাড়ি গুলি করতে থাকে। পুলিশও আত্মরক্ষার্থে পাল্টা গুলি ছোড়ে। এক পর্যায়ে অন্য আসামিরা দৌড়ে পালিয়ে গেলেও ঘটনাস্থল থেকে আহত অবস্থায় প্রধান আসামি সাইফুলকে আটক করে ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিলে কর্তব্যরত ডাক্তার তাকে মৃত ঘোষণা করেন। ঘটনাস্থল থেকে ১টি পাইপগান ও ৩টি ছুরা উদ্ধার করা হয়। সাইফুল নিহত হওয়ায় এলাকাবাসীর মধ্যে স্বস্তি ফিরে এসেছে।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর