× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনরকমারিপ্রবাসীদের কথাবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা ইলেকশন কর্নার
ঢাকা, ২৪ জুলাই ২০১৯, বুধবার

কর্নাটকের রাজনীতিতে চরম নাটকীয়তা

বিশ্বজমিন

মানবজমিন ডেস্ক | ১০ জুলাই ২০১৯, বুধবার, ১১:০৮

ভারতের কর্ণাটকের রাজনীতিতে চরম এক নাটকীয়তা। মুখ্যমন্ত্রী এইচ কুমারাস্বামীর জোট সরকারকে সমর্থন করা কংগ্রেস ও জনতা দল সেকুলার (জেডিএস)-এর ১০ জন বিধায়ক বেঁকে বসেছেন। তারা আশ্রয় নিয়েছেন মুম্বইয়ের একটি হোটেলে। সেখান থেকে তারা মুম্বই পুলিশের কাছে নিরাপত্তা চেয়েছেন। তাদের সঙ্গে সাক্ষাত করতে গিয়েও পারেন নি রাজ্যের মন্ত্রী ডিকে শিবকুমার। তাকে আটকে দিয়েছে পুলিশ। তিনি প্রবেশ করতে পারেন নি ওই হোটেলে। ওদিকে বিজেপি বলেছে, তারা এর প্রতিবাদ জানাবে রাজ্যের বিধানসভায়।

বেশ কয়েকদিন ধরেই কর্নাটকের রাজনীতিতে উদ্বেগ উৎকণ্ঠা বিরাজ করছে। মিডিয়ার খবর অনুযায়ী, ওই ১০ বিধায়ক পদত্যাগ করেছেন। কিন্তু তা গ্রহণ করা হয় নি। তাদেরকে বুঝিয়ে সমঝোতায় আনার চেষ্টা করে যাচ্ছে কংগ্রেস। এসব বিধায়ককে ঠা-া করতে আজ বুধবার সকালে ওই হোটেলে যান রাজ্যের মন্ত্রী শিবকুমার। কিন্তু তার আগেই ওই বিধায়করা মুম্বই পুলিশের কাছে নিরাপত্তা চেয়ে আবেদন করেন। বলেন, তারা কারো সঙ্গে সাক্ষাত করতে চান না। ওই চিঠিতে তারা লিখেছেন, তারা ভীতি সন্ত্রস্ত। মনে করেন, শিবকুমার তাদের হোটেলে ঝড়ো অভিযান চালাতে পারেন। ওই চিঠিতে যেসব বিধায়ক স্বাক্ষর করেছেন তারা হলেন শিবরাম হেব্বার, প্রতাপ গৌড়া পাতিল, বিসি পাতিল, এসটি সোমশেখর, রমেশ জারকিহোলি,বায়রাতি বাসবরাজ, গোপালাইয়া, এইচ বিশ^নাথ, নারায়ণ গৌড়া ও মহেশ কুমুতালি।
তাদের অনুরোধের প্রেক্ষিতে মুম্বই পুলিশ ওই হোটেলের বাইরে নিরাপত্তা জোরদার করেছে। পুলিশি বলেছে, মন্ত্রী ডিকে শিবকুমারকে ওই হোটেলে প্রবেশ করতে দেয়া হবে না। এমন অবস্থায় ব্যাঙ্গালোরে বিজেপি নেতা বিএস ইয়েদ্দুরাপ্পা বলেছেন, এর প্রতিবাদে বিধানা সৌধের সামনে আমরা ধরণার সিদ্ধান্ত নিয়েছি। আমরা স্পিকার ও গভর্নরের সঙ্গে সাক্ষাত করবো।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর