× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনরকমারিপ্রবাসীদের কথাবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা ইলেকশন কর্নার
ঢাকা, ২৪ জুলাই ২০১৯, বুধবার
গার্ডিয়ানের রিপোর্ট

বৃটেনে সবচেয়ে কম বেতন পান বাংলাদেশিরা

শেষের পাতা

মানবজমিন ডেস্ক | ১১ জুলাই ২০১৯, বৃহস্পতিবার, ৯:২২

বৃটেনে বসবাসকারীদের মধ্যে সবচেয়ে কম বেতন পান বাংলাদেশি কর্মজীবীরা। তাদের পরেই রয়েছেন পাকিস্তানিরা। আর সবচেয়ে বেশি বেতন পান যথাক্রমে চীনা ও ভারতীয়রা। সমপ্রতি এক সরকারি জরিপে এই তথ্য উঠে এসেছে। এ খবর দিয়েছে দ্য গার্ডিয়ান। এতে বলা হয়, বৃটেনে জাতিগত বেতন বৈষম্য নিয়ে এই প্রথম কোনো সরকারি পরিসংখ্যান প্রকাশ করা হয়েছে। ২০১২ সাল থেকে ২০১৮ সাল পর্যন্ত কর্মঘণ্টা হিসাব করে এই আয়ের তালিকা তৈরি করেছে দেশটির জাতীয় পরিসংখ্যান অধিদপ্তর। মঙ্গলবার প্রকাশিত ‘এথনিসিটি পে গ্যাপস  ইন গ্রেট বৃটেন: ২০১৮’ শীর্ষক ওই পরিসংখ্যান প্রতিবেদন অনুসারে, ঘণ্টা প্রতি বেতনের হিসাবে বাংলাদেশিরা শ্বেতাঙ্গ বৃটিশদের চেয়ে ২০.১ শতাংশ কম বেতন পেয়ে থাকেন।


প্রতিবেদনে বলা হয়, শিক্ষা ও পেশা বিবেচনায় আনার পরও বৃটেনে তীব্র জাতিগত বেতন বৈষম্য দেখা যায়। বিশেষ করে যারা বৃটেনের বাইরে জন্মগ্রহণ করেছেন তাদের ক্ষেত্রে এই বৈষম্য প্রকট। পরিসংখ্যান অনুসারে, শ্বেতাঙ্গ কর্মজীবীদের চেয়ে সংখ্যালঘুরা ৩ দশমিক ৮ শতাংশ কম বেতন পান। লন্ডনে এই বৈষম্যের হার ২১.৭ শতাংশ। আর এদিক দিয়ে সবচেয়ে পিছিয়ে রয়েছে বাংলাদেশি ও পাকিস্তানিরা। গত বছর শ্বেতাঙ্গ বৃটিশ কর্মজীবীদের ঘণ্টা প্রতি গড় আয় ছিল ১২ পাউন্ড। আর বাংলাদেশি, পাকিস্তানি, ভারতীয় ও চীনাদের গড় আয় ছিল যথাক্রমে ৯.৬০ পাউন্ড, ১০ পাউন্ড, ১৩.৪৭ পাউন্ড ও ১৫.৭৫ পাউন্ড।

কেবল পারিশ্রমিক নয়, বেকারত্বের দিক দিয়েও পিছিয়ে রয়েছে বাংলাদেশি ও পাকিস্তানিরা। যুক্তরাজ্যে বাংলাদেশি ও পাকিস্তানিদের বেকারত্বের হার হচ্ছে যথাক্রমে ৫৮.২ শতাংশ ও ৫৪.৯ শতাংশ।

বৈষম্যের কারণ হিসেবে প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, যারা যুক্তরাজ্যে জন্ম নিয়েছে এবং যাদের জন্ম অন্য কোথাও তাদের আয়ের মধ্যে পার্থক্য স্পষ্ট। পড়াশোনা এবং ইংরেজি বলার দক্ষতা এক্ষেত্রে ভূমিকা রাখে।

প্রতিবেদনে নারী-পুরুষ ভিত্তিতেও বৈষম্য তুলে ধরা হয়। বলা হয়, বাংলাদেশিদের মধ্যে প্রায় ৩৮.১ শতাংশ নারী ও পাকিস্তানিদের মধ্যে ৩২.১ শতাংশ নারী কোনো প্রাতিষ্ঠানিক কাজ করেন না। তবে গড় তুলনায় বাংলাদেশি পুরুষদের চেয়ে নারীরা ১০.৫ শতাংশ বেশি আয় করে।

যুক্তরাজ্যের বেতন বৈষম্য বিষয়ক এই পরিসংখ্যান নিয়ে সমতা বিষয়ক থিংকট্যাংক রানিমেডে ট্রাস্টের উপ-পরিচালক জুবাইদা হক বলেন, এর সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ বার্তাটি হচ্ছে যে, বর্তমানেও আপনার বংশই ঠিক করে দেয় আপনি এদেশে কেমন উপার্জন করতে পারবেন। এটা আমাদের সামাজিক মূল্যবোধ ও সমতার সুযোগবিরোধী। প্রতিষ্ঠানগুলোকে এ ধরনের পরিসংখ্যান প্রকাশের পাশাপাশি, এই বৈষম্য কাটিয়ে তোলার একটি পরিকল্পনাও প্রকাশ করা উচিত। অন্যথায়, কোনো লাভ নেই।

বৃটেনের কর্মসংস্থান মন্ত্রী অলক শর্মা প্রতিবেদনটি নিয়ে বলেন, ৩০ বছরের কমবয়সীদের পরিসংখ্যান বিবেচনায় দেখা যায় যে, প্রজন্মের ব্যবধানে বৈষম্যের হারও কমে এসেছে। তবে কর্মসংস্থানের ক্ষেত্রে বৈষম্য দূর করতে আমাদের আরো উদ্যোগ নিতে হবে।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর