× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনরকমারিপ্রবাসীদের কথাবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা ইলেকশন কর্নার
ঢাকা, ১৯ জুলাই ২০১৯, শুক্রবার

টুকরো খবর

বাংলারজমিন

| ১২ জুলাই ২০১৯, শুক্রবার, ৮:৩৮


ভাঙ্গুড়ায় কালভার্ট নির্মাণে আওয়ামী লীগ নেতার অনিয়ম
ভাঙ্গুড়া (পাবনা) প্রতিনিধি: ভাঙ্গুড়ায় সরকারি ৩টি পুকুরে কালভার্ট নির্মাণে অনিয়মের অভিযোগ উঠেছে। কোটেশানের মাধ্যমে এসব পুকুরে পানি প্রবেশের জন্য কালভার্ট নির্মাণের মাধ্যমে দ্বিগুণের বেশি অর্থ উত্তোলন করে নিয়েছে মৎস্য কর্মকর্তার যোগসাজশে স্থানীয় এক আওয়ামী লীগ নেতা। উপজেলা মৎস্য অধিদপ্তর সূত্রে জানা যায়, ভাঙ্গুড়া উপজেলার মৎস্য অধিদপ্তরাধীন ‘জলাশয় সংস্কারের মাধ্যমে মৎস্য উৎপাদন বৃদ্ধি’ প্রকল্পের মাধ্যমে উপজেলার খান মরিচ ইউনিয়নে দুটি ‘বলতৈল’ ও ‘আইধা’ এবং দিলপাশার ইউনিয়নে একটি ‘বেতুয়ান জলমহাল’ মোট তিনটি সরকারি পুকুর সংস্কার করা হয়। বর্ষাকালে এসব পুকুরে পানি প্রবেশের জন্য পুকুরগুলোতে মোট তিনটি কালভার্ট নির্মাণ করা হয়েছে।
সরজমিনে গিয়ে দেখা যায়, বলতৈল, আইধা ও বেতুয়ান পুকুরে বর্ষার সময় পানি প্রবেশের জন্য ২০ ফুট দৈর্ঘ্য ও ৩ ফুট চওড়া একটি করে রিং কালভার্ট নির্মাণ করা হয়েছে। নিম্নমানের ইটবালি দিয়ে নির্মাণ করা হয়েছে এই কালভার্ট। ভাঙ্গুড়া পৌর আওয়ামী লীগের প্রচার সম্পাদক বশির আহমেদ কোটেশানের মাধ্যম দিয়ে এই কালভার্ট তিনটি নির্মাণ করেন। গত অর্থবছরে মৎস্য অধিদপ্তরের বরাদ্দে মৎস্য কর্মকর্তা আব্দুল মতিন এই কাজ করিয়ে নেন। বশির আহমেদের সঙ্গে উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তা আব্দুল মতিনের দীর্ঘদিনের সুসম্পর্ক রয়েছে বলে জানা যায়।
এলাকাবাসীর ধারণা এই ধরনের একটি রিং কালভার্ট এক লাখ টাকার মধ্যে নির্মাণ করা সম্ভব। মূলত ব্যক্তিকে লাভবান করার জন্যই দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তা প্রতিটি কালভার্টে দুই লাখ টাকার ওপরে ব্যয় ধরেছেন। উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তা আব্দুল মতিন অতিরিক্ত বরাদ্দের বিষয়ে বলেন, কালভার্টের নকশা অনুযায়ী যে খরচ হবে সেটাই ধরা হয়ছে। এলাকাবাসী বিষয়টি বুঝতে না পেরে এসব কথা বলছে। ভাঙ্গুড়া উপজেলার ইউএনও সৈয়দ আশরাফুজ্জামান বলেন, বিষয়টি আমার জানা নেই।
ধর্ষণের চেষ্টা, শিক্ষক গ্রেপ্তার
স্টাফ রিপোর্টার, নোয়াখালী থেকে: সোনাইমুড়ীতে তৃতীয় শ্রেণির ছাত্রীকে ধর্ষণের চেষ্টার অভিযোগে মাদ্রাসা শিক্ষক আবদুল মমিন (৫৪)কে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। গ্রেপ্তারকৃত আবদুল মমিন চর জব্বর থানার পশ্চিম চর জব্বর গ্রামের জয়নাল আবেদীন ব্যাপারী বাড়ির মৃত জয়নাল আবেদিন’র ছেলে। এ ঘটনায় ভিকটিমের মা বাদী হয়ে অভিযুক্ত শিক্ষকের বিরুদ্ধে সোনাইমুড়ী থানায় মামলা দায়ের করেন। এর আগে পুলিশ অভিযোগ পেয়ে মঙ্গলবার রাতে ওই শিক্ষককে তাৎক্ষণিক গ্রেপ্তার করে। মামলার সূত্রে জানা যায়, গত রোববার প্রতিদিনের ন্যায় মাদ্‌রাসায় যায় তৃতীয় শ্রেণির (৯) বছরের এ ছাত্রী। মাদরাসা ছুটির পরে শিক্ষক আবদুল মমিন ওই ছাত্রীকে কৌশলে তার কক্ষে ডেকে নিয়ে ধর্ষণের চেষ্টা করে। পরে ছাত্রী তার বাড়িতে গিয়ে এ ঘটনা মাকে বলে দেয়।
কালিয়ায় স্কুলছাত্রী ধর্ষিত
কালিয়া (নড়াইল) প্রতিনিধি: নড়াইলের কালিয়ায় ষষ্ঠ শ্রেণির এক স্কুলছাত্রীকে ধর্ষণ করেছে এক বখাটে। গত ১০ই জুলাই পঞ্চগ্রাম নিম্ন মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের ওই ছাত্রীকে এলাকার এক বখাটে পাটক্ষেতে নিয়ে ধর্ষণ করে। পুলিশ ধর্ষিতাকে উদ্ধার করে ডাক্তারি পরীক্ষার জন্য নড়াইল হাসপাতালে পাঠায়। কালিয়া ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো. আলমগীর হোসেন জানান, ১২ বছরের ওই ছাত্রী বিদ্যালয়ে ১১টায় যায়। তাকে ফুসলিয়ে নিয়ে মাউলী গ্রামের ছত্তার সেখের পুত্র সমেদ সেখ বিদ্যালয়ের পিছনে পাটক্ষেতে নিয়ে ধর্ষণ করে। এ ব্যাপারে নড়াগাতি থানায় একটি ধর্ষণ মামলা হয়েছে। তবে ধর্ষক গ্রেপ্তার হয়নি।
পাঁচবিবিতে ফেনসিডিলসহ আটক ৩
পাঁচবিবি (জয়পুরহাট) প্রতিনিধি: জয়পুরহাটের পাঁচবিবিতে কচু বোঝাই পিকআপ ভ্যান হতে ৫৪০ ফেনসিডিলসহ ৩ জন মাদক ব্যবসায়ীকে আটক করেছে থানা পুলিশ। এ ঘটনায় বিশেষ ক্ষমতা আইনে আটকৃতদের বিরুদ্ধে থানায় একটি মামলাও হয়েছে। থানা পরিদর্শক মো. মনসুর রহমানের নেতৃত্বে এসআই সামিদুল্ল্যাহ সরকার, এএসআই গোলাম মর্তুজা সঙ্গীয় ফোর্সসহ গোপন সংবাদের ভিত্তিতে বুধবার সন্ধ্যা সাড়ে ৭টায় পাঁচমাথা আলমের স’মিলের সামনে কচু বোঝাই একটি পিকআপ ভ্যান আটক করে।
আড়াইহাজারে গ্রেপ্তার হয়নি ধর্ষণ মামলার আসামি
আড়াইহাজার (নারায়ণগঞ্জ) প্রতিনিধি: আড়াইহাজারে সপ্তম শ্রেণি পড়ুয়া এক মাদ্রাসা ছাত্রীকে ধর্ষণে অভিযুক্ত ইয়াছিনকে পুলিশ প্রায় ১ মাসেও গ্রেপ্তার করতে পারেনি। এতে দাবি মামলার অগ্রগতি নিয়ে হতাশায় ভুগছেন। তার অভিযোগ পুলিশ মূল আসামিকে গ্রেপ্তার করতে গড়িমসি করছে। গতকাল বাদী বলেন, আসামি প্রভাবশালী হওয়ায় পুলিশ তাকে গ্রেপ্তার করতে গড়িমসি করছে। মামলা হওয়ার পর প্রায় এক মাস অতিবাহিত হয়ে গেলেও মামলার অগ্রগতি নিয়ে আমি শঙ্কায় রয়েছি।
ইয়াছিন স্থানীয় জোকারদিয়ার নয়াপাড়া এলাকার মোতালিবের ছেলে। প্রসঙ্গত, চলতি বছরের ৪ঠা জানুয়ারি ওই ছাত্রীকে বাড়ির পাশে একা পেয়ে তুলে নিয়ে জোরপূর্বক ধর্ষণ করে স্থানীয় কাপড় ব্যবসায়ী ইয়াছিন। বিষয়টি জানাজানি না করতে তাকে মেরে ফেলারও ভয় দেখানো হয়েছিল। এতে তার পরিবারের লোকজনের কাছে ঘটনা সে গোপন রাখে। চলতি বছরের ১৬ই জুন সে অসুস্থ হয়ে পড়লে স্থানীয় একটি বেসরকারি হাসপাতালে তাকে নিয়ে গেলে চিকিৎসকরা তার গর্ভে সাড়ে চার মাসের যমজ সন্তান রয়েছে বলে জানানো হয়। আড়াইহাজার থানার ওসি নজরুল ইসলাম বলেন, ধর্ষককে গ্রেপ্তারে পুলিশের অভিযান চলছে। খুব দ্রুত সময়ের মধ্যেই তাকে গ্রেপ্তার করা সম্ভব হবে।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর