× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনরকমারিপ্রবাসীদের কথাবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা ইলেকশন কর্নার
ঢাকা, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৯, বৃহস্পতিবার

চট্টগ্রামের ৫৭০ কিলোমিটার সড়ক ভাঙাচোরা

দেশ বিদেশ

স্টাফ রিপোর্টার, চট্টগ্রাম থেকে | ১৩ জুলাই ২০১৯, শনিবার, ৮:৪৮

সড়ক ও জনপদ অধিদপ্তরের চট্টগ্রাম জোনে সর্বাধিক ৫৭০ কিলোমিটার ভাঙাচোরা সড়ক রয়েছে। এর মধ্যে জাতীয় মহাসড়ক ১১৯ কিলোমিটার, আঞ্চলিক মহাসড়ক ১৫০ ও জেলা সড়কের পরিমাণ ৩০১ কিলোমিটার। সড়ক ও জনপথ (সওজ) অধিদপ্তরের মহাসড়ক উন্নয়ন ও ব্যবস্থাপনা (এইচডিএম) বিভাগের মেইনটেন্যান্স অ্যান্ড রিহ্যাবিলিটেশন নিডস রিপোর্ট অব ২০১৯-২০২০ এ এমন তথ্য উঠে এসেছে। ২০১৮ সালের নভেম্বর থেকে ২০১৯ সালের মার্চ পর্যন্ত সারা দেশে সওজের ১৭ হাজার ৪৫২ কিলোমিটার সড়কে জরিপ চালিয়ে প্রতিবেদনটি তৈরি করেছে এইচডিএম। ইন্টারন্যাশনাল রাফনেস ইনডেক্স (আইআরআই) মানের ভিত্তিতে জরিপ করা সড়কগুলোকে ভালো, চলনসই, দুর্বল, খারাপ ও খুব খারাপ শ্রেণিতে ভাগ করা হয়েছে। জরিপকালে ৮ হাজার ৭২৩ কিলোমিটার বা ৪৯ দশমিক ৯৮ শতাংশ ভালো, ৪ হাজার ৪৮২ কিলোমিটার বা ২৫ দশমিক ৬৮ শতাংশ চলনসই, ২ হাজার ২১০ কিলোমিটার বা ১২ দশমিক ৬৭ শতাংশ দুর্বল, ১ হাজার ১৯ কিলোমিটার বা ৫ দশমিক ৮৪ শতাংশ খারাপ ও ১ হাজার ১৬ কিলোমিটার বা ৫ দশমিক ৮৩ শতাংশ সড়ক খুব খারাপ অবস্থায় পেয়েছে এইচডিএম। দুর্বল, খারাপ ও খুব খারাপ অবস্থায় আছে ২৪ দশমিক ৩৪ শতাংশ সড়ক। সওজের আওতাধীন সড়কের পরিমাণ ২১ হাজার ৫৭৬ কিলোমিটার। এ হিসেবে দুর্বল, খারাপ ও খুব খারাপ অবস্থায় আছে ৫ হাজার ২৫১ কিলোমিটার সড়ক। এ তিন শ্রেণির সড়ক-মহাসড়কের পরিমাণ সবচেয়ে বেশি সওজের চট্টগ্রাম জোনে। তবে, মহাসড়ক উন্নয়ন ও ব্যবস্থাপনা (এইচডিএম) বিভাগের প্রতিবেদনের সঙ্গে একমত হতে পারেননি সওজের চট্টগ্রাম জোনের দায়িত্বে থাকা অতিরিক্ত প্রধান প্রকৌশলী খান মো. কামরুল আহসান। তিনি দাবি করেছেন, সার্বিকভাবে এ জোনের সড়কগুলো বেশ ভালো অবস্থায় রয়েছে। এখন এইচডিএম অনেকগুলো সূচকের ভিত্তিতে ভাঙাচোরা সড়কের পরিমাণ নিরূপণ করায় প্রতিবেদনটি না দেখে বলা যাবে না। প্রতিবেদনের তথ্যমতে, চট্টগ্রাম জোনে সর্বাধিক ৫৭০ কিলোমিটার ভাঙাচোরা সড়ক রয়েছে। এর মধ্যে জাতীয় মহাসড়ক ১১৯ কিলোমিটার, আঞ্চলিক মহাসড়ক ১৫০ ও জেলা সড়কের পরিমাণ ৩০১ কিলোমিটার। যা জরিপকৃত মোট সড়কের ৩০ দশমিক ২৬ শতাংশ। প্রতিবেদনের তথ্য মোতাবেক জাতীয়, আঞ্চলিক ও জেলা সড়ক মিলে জোনটিতে দুর্বল সড়ক ২৯১ কিলোমিটার। খারাপ সড়কের পরিমাণ ১৪২ কিলোমিটার। আর খুব খারাপ অবস্থায় আছে চট্টগ্রাম জোনের ১৩৭ কিলোমিটার সড়ক-মহাসড়ক। সারা দেশে করা এক জরিপে দেখা গেছে, দেশের মোট সড়কের ৩০ দশমিক ২৬ শতাংশ সড়কের অবস্থা খুবই নাজুক। এদিকে, সড়ক ও জনপদ বিভাগের চট্টগ্রাম অঞ্চলে কর্মরত অনেক কর্মকর্তা এ তথ্য সঠিক বলে মনে করেন। যাদের কয়েকজন নাম প্রকাশ না করার শর্তে বলেন, দেশের অর্থনীতির চাকা সচল রাখতে চট্টগ্রাম জোনের সড়কগুলোর সংস্কার করা বেশি প্রয়োজন। কর্মকর্তাদের মতে, চট্টগ্রাম কক্সবাজার মহাসড়কের প্রায় ৮০ থেকে ৯০ কিলোমিটার অংশ ভাঙাচোরা। যেখানে যানবাহন চলাচল করতে গিয়ে প্রায় দুর্ঘটনার কবলে পড়ছে যানবাহন। এতে ঘটছে প্রাণহানি ও পঙ্গু হওয়ার মতো ঘটনা। একইভাবে চট্টগ্রাম-রাঙ্গামাটি মহাসড়কের ৮০ কিলোমিটারের মধ্যে ৪০ কিলোমিটারেরও বেশি ভাঙাচোরা। যেখানে যানবাহন চলাচলে প্রায় প্রতিদিন দুর্ভোগে পড়ছেন যানবাহন চালক ও চট্টগ্রামের হাটহাজারী, রাঙ্গুনিয়া, রাঙ্গামাটি ও খাগড়াছড়ি পার্বত্য জেলার লাখো যাত্রী। এ ছাড়া চট্টগ্রাম-আনোয়ারা, বাঁশখালী, চন্দনাইশ, চট্টগ্রাম-বোয়ালখালী, পটিয়া, চট্টগ্রাম-কাপ্তাই, ফটিকছড়ি-নাজিরহাট সড়কসহ সবক’টি সড়কের বেহাল অবস্থা।
বছরের পর বছর এসব সড়কে চলাচলকারী যানবাহন চালক ও সাধারণ যাত্রীরা প্রতিদিন দুর্ভোগের শিকার হচ্ছেন। ঘটছে দুর্ঘটনা ও প্রাণহানি।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর