× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনরকমারিপ্রবাসীদের কথাবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা ইলেকশন কর্নার মন ভালো করা খবর
ঢাকা, ১৪ অক্টোবর ২০১৯, সোমবার
আলাপন

‘এখন বেশিরভাগ নাটকে ভালো গল্প ও চরিত্রের সংকট’

বিনোদন

এন আই বুলবুল | ১৬ জুলাই ২০১৯, মঙ্গলবার, ৯:৫৩

চলচ্চিত্রে ফিরলেন মডেল-অভিনেত্রী স্বাগতা। সম্প্রতি তিনি শুটিং-ডাবিং শেষ করেছেন  নুরুল আলম আতিকের ‘মানুষের বাগান’ শিরোনামের একটি নতুন চলচ্চিত্রের। বেশ লম্বা সময় পর চলচ্চিত্রে কাজ করে দারুণ উচ্ছ্বসিত এ অভিনেত্রী। তার ভাষ্য, আতিক ভাইয়ের সঙ্গে আগে নাটকে কাজ করেছি। নির্মাতা হিসেবে তিনি এককথায় দারুণ। এই চলচ্চিত্রে কাজের অভিজ্ঞতাও ভালো। তবে ছবিটিতে আমার চরিত্রটি কেমন, তা এখন বলতে চাই না। নির্মাতার নিষেধের কারণেই বেশি কিছু বলতে পারছি না।
শুধু এটা বলতে পারি, আমাকে দর্শক নতুনভাবে দেখতে পাবেন। এদিকে ছয় বছর পর চলচ্চিত্রে অভিনয় করছেন স্বাগতা। তাকে সর্বশেষ দেখা গেছে ‘অশান্ত মন’ শিরোনামের একটি চলচ্চিত্রে। এটি নির্মাণ করেন কাজী হায়াৎ। এতে তিনি অভিনয় করেন কাজী মারুফের বিপরীতে। ২০১৪ সালে ‘সূচনা রেখার দিকে’ শিরোনামের একটি ছবির শুটিং শেষ করেছিলেন এ অভিনেত্রী। কিন্তু নানা কারণে ছবিটি এখনো মুক্তি পায়নি। ২০০৭ সালে প্রয়াত নায়ক মান্নার বিপরীতে ‘শত্রু শত্রু খেলা’ চলচ্চিত্রে প্রথম নায়িকা চরিত্রে অভিনয় করেন স্বাগতা।

এ ছবিতে আরো ছিলেন জনপ্রিয় অভিনেত্রী মৌসুমী। সেই সময় ছবিটি বানিজ্যিক ভাবে দারুণ সাড়া ফেলে। প্রথম ছবি দিয়ে স্বাগতা মন জয় করেন বড়পর্দার দর্শকের। এ পর্দাকন্যা বর্তমানে ছোটপর্দায় বেশ ব্যস্ত সময় পার করছেন। রিদম খান শাহীনের ‘পাগলের সুখ মনে মনে’ শিরোনামের একটি ধারাবাহিকে অভিনয় করছেন তিনি। এছাড়া আসছে ঈদের নাটকের শুটিং নিয়েও ব্যস্ত আছেন বলে জানান।  ঈদের জন্য সম্প্রতি মাতিয়া বানু শুকুর পরিচালনায় ‘মৌনব্রত’ নামে একটি নাটকের কাজ শেষ করেছেন স্বাগতা। এতে তাকে দেখা যাবে আফরান নিশোর বিপরীতে।  ঈদের কাজ প্রসঙ্গে এ অভিনেত্রী বলেন, আমি খন্ড নাটকে বেশি অভিনয় করছি। এরইমধ্যে কয়েকটি নাটকের শুটিং শেষ হলো। এখন ঈদের কিছু শিডিউল দেওয়া আছে। চলতি মাসে সেগুলোর শুটিং শেষ করবো।

অভিনয়ের পাশাপাশি স্বাগতা উপস্থাপনাতেও দারুণ ব্যস্ত। দীর্ঘদিন ধরে বাংলাভিশনে ‘সোনালি দিনের রূপালি গল্প’ অনুষ্ঠানটি উপস্থাপনা করছেন তিনি। এ অনুষ্ঠান নিয়ে দর্শক প্রতিক্রিয়া জানার সুযোগ হয়েছে কি? এই প্রশ্নের উত্তরে তিনি বলেন,  সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে অনুষ্ঠানটি ভালো  লেগেছে বলে অনেকেই জানিয়েছেন। কিন্তু সত্যি বলতে অনুষ্ঠানটি কতটা জনপ্রিয়তা পাবে তা ভেবে উপস্থাপনা শুরু করিনি। শুরুর দিকে আমার ভাবনা ছিল, এ অনুষ্ঠানের মাধ্যমে দেশের চলচ্চিত্র সম্পর্কে অনেক নতুন কিছু জানতে পারবো। পরে ধীরে ধীরে শুধু এ দেশের ছবি নয়, পৃথিবীর বিভিন্ন দেশের চলচ্চিত্র সম্পর্কে জানতে পারছি। অনুষ্ঠানে চলচ্চিত্র নির্মাণের পাশাপাশি এ মাধ্যমটির নানা বিষয়ে কথা বলা হয়। যেহেতু নিজেও চলচ্চিত্র বিষয়ে পড়াশোনা করছি, ফলে অনুষ্ঠানটি দারুণ উপভোগ করছি। এ সময়ে অভিনয় নাকি উপস্থাপনাকে প্রাধান্য দেওয়া হচ্ছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, ভালোলাগা থেকেই উপস্থাপনা করি। আর নাটকের ব্যাপারে বলবো, এখন বেশিরভাগ নাটকে ভালো গল্প ও চরিত্রের সংকট রয়েছে।

তাই একটু বাছ-বিচার করে কাজ করছি। সাম্প্রতিক সময়ে বিটিভিতে ছায়াছন্দ, এটিএন বাংলায় রান্নার অনুষ্ঠান, এশিয়ান টিভিতে সংগীতানুষ্ঠান, এনটিভিতে লাফটার শো, বাংলাভিশনে সিনেমাবিষয়ক অনুষ্ঠান উপস্থাপনা করে সাড়াও পেয়েছি।  সেজন্য উপস্থাপনা থেকে সরে আসতে চাচ্ছি না। তবে এটা ঠিক, মানসম্মত অনুষ্ঠান ছাড়া উপস্থাপনা করবো না। উপস্থাপনা করলেও আমার পরিচয় আমি অভিনেত্রী। আলাপনে এই অভিনেত্রী নাটকের সংগঠনগুলো নিয়েও কথা বলেন। তিনি বলেন, আমাদের নাটকে শিল্পীদের কল টাইম-বাজেটসহ বেশ কিছু সমস্যা বেড়ে যাচ্ছে। সংগঠনগুলো এসব সমস্যা সমাধানের জন্য দ্রুত এগিয়ে আসবে এমনটাই প্রত্যাশা আমার।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর