× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনরকমারিপ্রবাসীদের কথাবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা ইলেকশন কর্নার
ঢাকা, ২৬ আগস্ট ২০১৯, সোমবার

ইরানের পরমাণু চুক্তি লঙ্ঘন গুরুতর কিছু নয়: ইইউ

বিশ্বজমিন

মানবজমিন ডেস্ক | ১৭ জুলাই ২০১৯, বুধবার, ৮:৪৩

ইরানের পরমাণু চুক্তি লঙ্ঘন তেমন গুরুতর কিছু নয় বলে মন্তব্য করেছেন ইউরোপীয় ইউনিয়নের পররাষ্ট্র বিষয়ক প্রধান ফেডেরিকা মঘেরিনি। তিনি একে সংশোধনযোগ্য বলেও মনে করেন।  সোমবার তিনি বলেন, ইরানকে আমরা আহ্বান জানাচ্ছি তারা যাতে তাদের পদক্ষেপের সংশোধন করে আবার আগের মতোই চুক্তির শর্ত অনুসরণ করে। এ খবর দিয়েছে বিবিসি। খবরে বলা হয়, চুক্তি ভেঙে গত মে মাস থেকে ইরান ইউরেনিয়াম উৎপাদন বাড়িয়েছে। ইউরেনিয়াম সাধারণত পারমাণবিক চুল্লিতে জ্বালানি হিসেবে ব্যবহৃত হয়। তবে যুক্তরাষ্ট্রের দাবি ইরান সম্ভবত পারমাণবিক বোমা বানাতে এই ইউরেনিয়াম ব্যবহার করবে। যুক্তরাষ্ট্র চুক্তি থেকে একতরফাভাবে নিজেদের প্রত্যাহার করে ইরানের ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপের জবাবে ওই পদক্ষেপ নেয় তেহরান। ইরান এবং যুক্তরাষ্ট্রের মধ্যে চলমান উত্তেজনা যখন তুঙ্গে, ঠিক তখনই এই চুক্তি লঙ্ঘন করলো ইরান।

তবে সামপ্রতিক সংকট তৈরি হয়েছে বৃটেন ও ইরানের মধ্যেও।
চলতি মাসে নিষেধাজ্ঞা উপেক্ষা করে সিরিয়ায় তেল পাঠানোর অভিযোগে ইরানের একটি তেল ট্যাংকার আটক করার পর এই সংকট তৈরি হয়। যদিও এই অভিযোগ নাকচ করেছে ইরান।
ইউরোপীয় ইউনিয়নভুক্ত দেশগুলোর পররাষ্ট্রমন্ত্রীদের এক বৈঠকে মিজ মঘেরিনি বলেন, বাস্তবিকপক্ষে এ পর্যন্ত যেসব পদক্ষেপ নেয়া হয়েছে তার সবগুলোই সংশোধনযোগ্য। চুক্তিতে স্বাক্ষরকারীদের কেউই মনে করে না যে, চুক্তির যে অংশ লঙ্ঘিত হয়েছে তা গুরুতর। আর তাই তারা এ নিয়ে নতুন করে কোনো বিতর্কে যাবে না। এতে আরো বেশি নিষেধাজ্ঞার মুখে পড়তে পারে দেশটি।
ব্রাসেলসে অনুষ্ঠিত ওই বৈঠকে, ইরানের সঙ্গে সংকট সহজ করে পরমাণু চুক্তি টিকিয়ে রাখার ওপর গুরুত্ব দেয়া হয়। যুক্তরাষ্ট্র ও ইরানের মধ্যে চলমান উত্তেজনা নিরসনে ব্রাসেলসে বৈঠকে বসেন ইউরোপীয় ইউনিয়নভুক্ত দেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রীরা। এর আগে বৃটিশ পররাষ্ট্রমন্ত্রী জেরেমি হান্ট বলেন, চুক্তি টিকিয়ে রাখার খুব  ছোট একটি সম্ভাবনা রয়েছে। তিনি বলেন, পরমাণু অস্ত্র তৈরি করতে ইরানের এখনো অনেক সময় প্রয়োজন। বৈঠকের আগে প্রকাশিত এক যৌথ সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বৃটেন, ফ্রান্স এবং জার্মানি চুক্তির পক্ষে নিজেদের সমর্থন জানান দেন।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর