× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনরকমারিপ্রবাসীদের কথাবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা ইলেকশন কর্নার
ঢাকা, ২৬ আগস্ট ২০১৯, সোমবার

যুক্তরাষ্ট্র ও কানাডায় শুরু হয়েছে বিপজ্জনক তাপপ্রবাহ

বিশ্বজমিন

মানবজমিন ডেস্ক | ২০ জুলাই ২০১৯, শনিবার, ১২:০৭

যুক্তরাষ্ট্র ও কানাডায় আঘাত হানতে শুরু করেছে বিপজ্জনক মাত্রার তাপপ্রবাহ। চলতি সপ্তাহের শেষের দিকে এই তাপপ্রবাহের উত্তাপ সর্বোচ্চ হবে। আবহাওয়াবিদরা জানিয়েছেন, দুই দেশের ২০ কোটির বেশি মানুষ আক্রান্ত হবেন তীব্র এই তাপপ্রবাহে। নিউ ইয়র্ক, ওয়াশিংটন, বোস্টন ও মিডওয়েস্ট অঞ্চলসহ যুক্তরাষ্ট্রের বেশিরভাগ প্রধান শহর ও কানাডার অংশবিশেষজুড়ে বিরাজ করবে অসহনীয় মাত্রার তাপপ্রবাহ। এ খবর দিয়েছে বিবিসি।

খবরে বলা হয়, চলতি সপ্তাহের বেশিরভাগ সময়জুড়ে তাপপ্রবাহে আক্রান্ত অঞ্চলগুলোয় তাপমাত্রা থাকবে ৩৮ ডিগ্রির কাছাকাছি আর কোনো কোনো শহরে এর চেয়েও বেশি। বিশেষজ্ঞরা বলছেন, জলবায়ু পরিবর্তনের কারণে সাম্প্রতিক বছরগুলোয় বাড়ছে তাপপ্রবাহের মাত্রা। পৃথিবীর ইতিহাসে সবচেয়ে উত্তপ্ত জুন মাস ছিল চলতি বছর। বিশ্বজুড়ে গতমাসে গড় তাপমাত্রা ছিল ৬১.৬ ফারেনহাইট বা ১৬.৪ ডিগ্রি সেলসিয়াস।
বিংশ শতাব্দীর গড় বৈশ্বিক তাপমাত্রার তুলনায় তা ১.৭ ফারেনহাইট বেশি। যুক্তরাষ্ট্রের জাতীয় মহাসাগরীয় ও বায়ুম-লীয় প্রশাসন (এনওএএ) জানিয়েছে, জুন মাসের তাপমাত্রায় দক্ষিণ মেরুতে সামুদ্রিক বরফের আস্তরণ রেকর্ড পরিমাণ কমে গেছে। ১৮৮০ সাল থেকে ২০১৯ সাল পর্যন্ত  ১০টি উষ্ণতম জুন মাস পার হয়েছে গত নয় বছরের মধ্যে। চলতি বছরের আগে সবচেয়ে উষ্ণতম ছিল ২০১৬ সালের জুন মাস। নাসা ও অন্যান্য সংস্থাও একই ঘোষণা দিয়েছে।

যুক্তরাষ্ট্রের জাতীয় আবহাওয়া অধিদপ্তর জানিয়েছে, কলোরাডো ও ক্যানসাস থেকে উত্তর-পূর্বাঞ্চলের গ্রেট লেকস পর্যন্ত আক্রান্ত হবে চলতি সপ্তাহের তাপপ্রবাহে। তাপমাত্রা বাড়বে পূর্ব উপক’লীয় অঞ্চলেও। আবহাওয়া অধিদপ্তর জানিয়েছে, পুরো সপ্তাহজুড়েই বিরাজ করবে অ¯পষ্ট, উত্তপ্ত ও সেঁতসেঁতে আবহাওয়া। নিউ ইয়র্কের মেয়র বিল দে ব্লাসিও শহরজুড়ে অত্যধিক গরমের জন্য জরুরি অবস্থা ঘোষণা করেছেন।
বৃহ¯পতিবার টুইটারে এক পোস্টে তিনি জানান, আগামী কয়েকদিনজুড়ে তাপপ্রবাহ থাকবে। এটা বেশ গুরুতর বিষয়। শুক্রবারের অবস্থা থাকবে খারাপ। শনিবার ও রোববারের অবস্থা থাকবে আরো খারাপ।

এদিকে, কানাডার কিছু অংশে তাপমাত্রা বাড়ার সতর্কতা জারি করা হয়েছে। এর মধ্যে রয়েছে কিউবেক, অন্টারিও ও নোভা স্কটিয়া। আবয়াওয়াবিদরা জানিয়েছেন, টরোন্টোতে তাপমাত্রা ৪০ ডিগ্রি সেলসিয়াসের বেশি অনুভ’ত হতে পারে। এছাড়া তীব্র বজ্রঝড়ের আশঙ্কাও করা হচ্ছে।

কানাডার আবহাওয়াবিদরা জানিয়েছেন, মনট্রিয়েলে ৪৫ ডিগ্রী সেলসিয়াসের বেশি তাপমাত্রা অনুভ’ত হতে পারে আগামী দুইদিন। এদিকে, মার্কিন আবহাওয়াবিদরা বলছেন, এ তাপপ্রবাহ পুরো সপ্তাহজুড়েই চলবে। কোনো কোনো শহরে অনুভ’ত হবে ওই শহরের ইতিহাসের সর্বোচ্চ তাপমাত্রা। তবে পরবর্তী সপ্তাহেই আবার নাটকীয়ভাবে কমে আসতে পারে এই তাপমাত্রা। তখন আচমকাই ঠা-া হয়ে আসবে আবহাওয়া।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর